রোববার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০, ২১ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

কোনো শক্তিই ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি আটকাতে পারবে না

বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী

| প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০১৮, ১২:০০ এএম

পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের উপস্থিতিতে গতকাল এনইসি সম্মেলন কক্ষে বার্ষিক কর্মসম্পা


অর্থনৈতিক রিপোর্টার : পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, পদ্মা সেতুসহ মেগা প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে ১০ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি কোন শক্তিই আটকাতে পারবে না। আগামী ২০২৮-২৯ সালে আমরা এই লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হবো। তার আগে ২০২০ সালের মধ্যে ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হবে। তবে এই ৮ থেকে সাড়ে ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি আমাদের ধরে রাখতে হবে আরও তিন বছর। এজন্য প্রয়োজন সবাইকে এক সঙ্গে কাজ করে যাওয়া। গতকাল মঙ্গলবার বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় ও কমিশনের সংস্থাগুলোর মধ্যে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, এটা নিছক একটি চুক্তি নয়, ‘এটা শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিকতাও নয়, এটি হচ্ছে নিজের বিবেকের কাছে নিজের পরীক্ষা। তবে এ কথা সত্য যে কাজ করার জন্য অনেক লোকের প্রয়োজন হয় না। আকাশে লক্ষ্য তারা রয়েছে কিন্তু একটি চাঁদের আলোয় সারা পৃথিবী আলোাকিত হয়। আপনারা একেকজন একেকটি চাঁদ। আপনাদের কাজ এবং আলোয় আলোকিত হবে চারদিক’। তিনি বলেন, আমাদের গতানুগতিক ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আগামীতে শিক্ষা ও রাজস্ব খাতের ব্যাপক সংস্কার করা হবে। শিক্ষাকে যুগোপযোগী ও বাস্তসম্মত করা হবে। আর রাজস্ব আদায় এমন হতে হবে যাতে বেশি লোক করের আওতায় আসবে এবং করের হার কম হবে। তাহলে একদিকে যারা কর দেন তাদের উপর চাপ কমবে, অন্যদিকে সরকারের রাজস্ব আদায়ও বাড়বে। করের হার কমিয়েও কর রাজস্ব আদায় ১৫ শতাংশে নিয়ে যাওয় সম্ভব। মন্ত্রী আরও বলেছেন, প্রকল্প বাস্তবায়নের গতি বাড়াতে মন্ত্রণালয়গুলোকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তানা হলে চেষ্টা করার পরও যদিও তারা ফেল করে সেই দায়িত্ব দিন শেষে আমাদের কাঁধে এসে পড়ে।
পরিকল্পনা সচিব মোঃ জিয়াউল ইসলামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) এ.এন. সামসুদ্দিন আজাদ চৌধুরী, শামীমা নার্গিস, জুয়েনা আজিজ এবং পরিসংখ্য্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেদ্রনাথ চক্রবর্তী প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে সাধারণ অর্থনিিত বিভাগ, বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ, শিল্প ও শক্তি বিভাগ, ভৌত অবকাঠামো বিভাগ, কৃষি,পানি সম্পদ পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগ, এনএপিডি, বিআইডিএসসহ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বিভিন্ন সংস্থা প্রধানদের সঙ্গে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Nannu chowhan ২০ জুন, ২০১৮, ৭:৪৭ এএম says : 0
Expecting 10% GDP isn’t bad but need more affective & affordable plan....
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন