ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

ইসলামী জীবন

তারাবীহ নামাযের ফজীলত ও প্রয়োজনীয় কিছু মাসআলা

আল্লামা মুফতী মুজাহিদ উদ্দীন চৌধুরী দুবাগী | প্রকাশের সময় : ১৭ মে, ২০১৯, ১২:০৫ এএম


তারাবীহ অত্যন্ত ফজীলতপূর্ণ নামায, যার দ্বারা বান্দার জীবনের গুনাহ ক্ষমা করা হয়। মহানবী (সা:) রমজান মাসে তারাবীহ নামায আদায় করার জন্য সাহাবা-এ-কেরামকে বিশেষভাবে উৎসাহ প্রদান করতেন। তারাবীহ নামাযের ফজীলত ও মর্যাদা সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (সা:) ইরশাদ করেছেন, “যে ব্যক্তি রমজান মাসে ঈমানের সঙ্গে শুধু সওয়াবের আশায় তারাবীহ পড়ে, তার অতীতের সব (সগিরা) গোনাহ মাফ করে দেয়া হয়।” (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ২০০৮, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৭৫৯, সুনানে দারেমি, হাদীস নং ১৮১৭, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ৯৪৪৫, মুসনাদে হুমাইদি, হাদীস নং ১০৩৭) ।
রাসুল (সা:) এর যুগে আনুষ্ঠানিকভাবে জামাতে তারাবীহ নামায পড়ার ব্যবস্থা ছিল না। উম্মতের প্রতি অতিশয় করুণা ও দয়াশীলতার কারণেই তিনি তারাবীহর নামায নিয়মিত জামাতে আদায় করেননি। কারণ তিনি কোনো আমল নিয়মিত করলে তা ফরজ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। কাজেই তারাবীহ ফরজ হয়ে গেলে দুর্বল উম্মতের জন্য নিয়মিত তারাবীহ আদায় করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ত। এ ব্যাপারে হাদিসে এসেছে, নবী করিম (সা:) রমজানের একরাতে মসজিদে তারাবীহ পড়লেন। সাহাবায়ে কেরামও তাঁর সঙ্গে জামাতে শামিল হলেন। দ্বিতীয় রাতে নামাজির সংখ্যা আরও বেড়ে গেল। এরপর তৃতীয় বা চতুর্থ রাতে নবী করিম (সা:) তারাবীহর জন্য মসজিদে এলেন না। ফজরের পর সবাইকে লক্ষ্য করে বললেন, “আমি তোমাদের আগ্রহ ও উপস্থিতি লক্ষ্য করেছি, কিন্তু এ নামায তোমাদের উপর ফরজ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় আমি তোমাদের কাছে আসিনি।” (সহীহ বুখারী: হাদীস নং- ২০১২, সহীহ মুসলিম: হাদীস নং ৭৬১)। হযরত আবু বকর (রা:) এর খেলাফত কাল ও হযরত উমর (রা:) এর খেলাফতের প্রথম দিকে এ অবস্থায়ই ছিল। এরপর হযরত উমর (রা.) মসজিদে নববীতে সাহাবীদের স্ব স্ব জামাতে ও একাকী তারাবীহর নামায পড়তে দেখে সবাই মিলে এক জামাতে তারাবীহ পড়ার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেন। এরপর তিনি হযরত উবাই ইবনে কা’ব (রা:) এর পিছনে সকলকে জমা করে দিলেন। (সহীহ বুখারী: হাদীস নং- ২০১০)
তারাবীহ শব্দের অর্থ ও নাম করণের কারণ
হাফিজ ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) বলেন: তারাবীহ শব্দটি ‘তারবিহাতুন’ এর বহুবচন। ‘তারবিহাতুন’ অর্থ একবার বিশ্রাম গ্রহণ করা। ‘রমজান মাসে এশার নামাযের পর যে (২০ রাকাত) সুন্নাত নামায পড়া হয়, তা হল তারাবীহর নামায।’ এই নামাযের নিয়ম হল প্রতি দুই রাকাত পর সালাম ফিরানো এবং প্রতি চার রাকাত পর বসে বিশ্রাম গ্রহণ করা । এই নামায কে ‘কিয়ামে রমজান’ও বলা হয় । যখন থেকে সাহাবায়ে কেরাম এ নামায সম্মিলিতভাবে জামাতে আদায় করতে আরম্ভ করেন তখন থেকেই তাঁরা চার রাকাতের পর বিশ্রাম নিতেন। তাই এ নামাযের নাম করা হয় তারাবীহ (ফাতহুল বারী, কিতাবু সালাতিত তারাবীহ ৪/২৯৪, তুহফাতুল আলমায়ী ২য় খন্ড, ২৮৯ পৃ:,কামুসুল ফিকহ ২য় খন্ড , ৪৪৮পৃ:, আলবাহরুর রায়েক: ২য় খন্ড, ১১৬ পৃষ্ঠা)।
তারাবীহ নামাযের বিধান
তারাবীহ নামায নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যই সুন্নতে মুয়াক্কাদা। এ নামায পুরুষ মসজিদে জামাতের সঙ্গে আর মহিলা ঘরে আদায় করা বেশি সওয়াবের কাজ। এ নামাযে কোরআন শরীফ খতম করা অধিক সওয়াবের কাজ। তবে সূরা তারাবীহর মাধ্যমে আদায় করলেও নামায হয়ে যাবে।
ফুকাহায়ে কেরাম বলেন: পুরুষের মসজিদে জামাতের সাথে তারাবীহর নামায পড়া সুন্নাতে মুয়াক্কাদা কেফায়া। কোন মহল্লায় যদি কেউ-ই জামাতের সাথে না পড়ে তাহলে সকলেই গুনাগার হবে। আর যদি কিছু লোক মসজিদে জামাতের সাথে আদায় করে আর কেউ কেউ ঘরে একা একা আদায় করে তাহলে সকল গুনাগার হবে না । তবে একথা অবশ্যই স্বরণ রাখতে হবে যে, যারা একা একা পড়ল তারা জামাতে পড়ার সওয়াব থেকে বঞ্চিত হল। (কামুসুল ফিকহ: ২য় খন্ড, ৪৫০পৃষ্ঠা)
উল্লেখ্য যে পবিত্র রমজান মাসে তারাবীহর নামাযে একবার কুরআন শরীফ খতম করা সুন্নাত। দুই বার খতম করা উত্তম। আর তিনবার খতম করা আফজাল বা অতিউত্তম। (রাদ্দুল মুহতার : ২য় খন্ড, ৪৯৭ পৃষ্ঠা, ফাতওয়া দারুল উলুম দেওবন্দ ৪র্থ খন্ড, ২৭৪ পৃষ্ঠা)
২০ রাকাত তারাবীহ নামাযের দলীল
তারাবীহ নামাযের সূচনা থেকেই ২০ রাকাত আদায় করা হত। হাদীস শরীফে বর্ণিত আছে, হযরত ইবনে আব্বাস (রা:) বর্ণনা করেন যে রাসূলে পাক (সা:) রমজান মাসে ২০ রাকআত (তারাবীহ) নামায আদায় করতেন এবং এরপর ৩ রাকাত বেতরের নামাযও আদায় করতেন। (এ হাদীসটি ’মোসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা’, ২য় খÐ, হাদীস নং ৭৬৯২, বায়হাকী (খ. ২ প.৪৯৬)। ইমাম তাবরানীর আল-মুজমালুল কাবীর (খ:১১ পৃ:৩১)। আল-আওসাত লিততাবরানী (খ:১ পৃ:৪৪৪)। আল ইসতিযকার (খ:৫ পৃ: ১৫৬) ইত্যাদি সহ হাদীসের নির্ভরযোগ্য বহু কিতাবে উল্লেখিত হয়েছে।)।
হযরত উমর (রা.)-এর খিলাফতকালে সাহাবায়ে কেরামের ইজমা দ্বারা মূলত রমজান মাসের মধ্যে ২০ রাকাত তারাবীহর নামায জামাতের সঙ্গে আদায় করার রীতি প্রচলিত হয়। নতুবা মূল তারাবীহর সূচনা হযরত রাসূল (সা:) থেকেই হয়েছে। (আল মুগনী ১ম খন্ড, ৮৩৩ ও ৮৩৪ পৃষ্ঠা)। আমীরুল মোমেনীন হযরত উমর (রা:), প্রখ্যাত সাহাবী তামীম আদদারী (রা:) ও উবাই ইবনে কা’ব (রা:) এর ইমামতিতে তারাবীহর জামাতের ব্যবস্থা করেন। আর রাসূল (সা:) ইরশাদ করেছেন যে, তোমরা আমার সুন্নাত এবং খোলাফায়ে রাশিদীনের সুন্নাতকে দৃঢ়তার সাথে আকড়ে ধর। (আবু দাউদ:৪৬০৭, তিরমিজী, ২৬৭৬,), ফাতওয়ায়ে ফাতওয়া শামী: ২য় খন্ড,৪৯৩ পৃষ্ঠা)
হযরত সায়েব ইবনে ইয়াযীদ (রা:) বলেছেন, “খলীফা হযরত উমর ইবনে খাত্তাব (রা:) এর শাসন আমলে সাহাবায়ে কেরাম ও তাবেয়ীগণ রমজান মাসের প্রতি রাতে ২০ রাকাত তারাবীহ ও ৩ রাকাত বিতির নামায পড়তেন।”(‘মুয়াত্তা মালেক’, সালাত অধ্যায়, মা জা’আ ফী কিয়ামে রমজান, ১ম খÐ, ১৫৯ পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৩৮০)। তাবেয়ী হযরত আবদুল আযীয বিন রাফি’ (রহ:) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন: “হযরত উবাই ইবনে কা’ব ((রা:) মদীনা মোনাওয়ারায় রমজান মাসে ২০ রাকাত তারাবীহ নামাযের জামাতে ইমামতি করতেন।”(মোসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, ৫ম খÐ, ২২৪ পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৭৭৬৬)।
হযরত হাসান বসরী (রহ:) বলেন: “খলীফা উমর ফারূক (রা:) তারাবীহ নামাযে হযরত উবাই ইবনে কা’ব (রা:) এর ইমামতিতে মানুষদেরকে জামাতে কাতারবদ্ধ করেন এবং তিনি (ইবনে কা’ব) ২০ রাকাত নামায পড়ান।” (‘সিয়ার আল-আ’লম ওয়াল নুবালাহ’, ১ম খÐ, ৪০০-১ পৃষ্ঠা, হযরত উবাই ইবনে কা’ব (রা:) (এর জীবনী), ইমাম নববী (রহ:) উল্লেখিত বর্ণনা সম্পর্কে বলেন: “এর সনদ সহীহ।” (‘আল-খুলাসাত আল-আহকাম’, হাদীস নং ১৯৬১)।
ইমাম আবু বকর কাসানি (রহ:) বলেন- ‘‘অধিকাংশ উলামায়ে কেরাম যা বলেছেন তাই ঠিক। কেননা হযরত উমর (রা.) রমজান মাসে সাহাবায়ে কেরামকে উবাই ইবনে কা’ব (রা.) এর ইমামতিতে একত্রিত করেন এবং তিনি তাঁদেরকে নিয়ে প্রতি রাতে ২০ রাকাতই পড়তেন। তাদের ইজমা সম্পন্ন হয়েছে (বাদায়েউস সানায়ে ১/৬৪৪) ।
শায়খুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়্যাহ এ সম্পর্কে বলেন: “এটি সপ্রমাণিত যে হযরত উবাই ইবনে কা’ব (রা.) রমজান মাসে সাহাবা-এ-কেরামকে নিয়ে জামাতে ২০ রাকাত তারাবীহ ও ৩ রাকাত বিতিরের নামাযে ইমামতি করতেন। অতএব, অধিকাংশ উলামা-এ-কেরামের মাসলাক (রীতি-নীতি) এই যে, এটি-ই সুন্নাহ। কেননা, হযরত উবাই ইবনে কা’ব (রা.) এই ২০ রাকাতের ইমামতি করার সময় ওখানে উপস্থিত ছিলেন মোহাজির (হিজরতকারী) ও আনসার (সাহায্যকারী) সাহাবায়ে কেরাম, কিন্তু তাঁদের একজনও এর বিরোধিতা করেন নি!” (ইবনে তাইমিয়্যাহ কৃত মজমুয়া-এ-ফাতাওয়া, ১:১৯১) ।
বিখ্যাত তাবেয়ী ইমাম আবদুর রহমান সুলামী (রহ:) বর্ণনা করেন যে হযরত আলী (রা:) রমজান মাসে কুরআন মজীদ তেলাওয়াতকারী হাফিজদের ডেকে তাদের মধ্যে একজনকে ২০ রাকাত তারাবীহ নামায পড়াতে বলেছিলেন এবং নিজে বিতিরের নামাযে ইমামতি করতেন।(ইমাম বায়হাকী কৃত ’সুনান আল-কুবরা’, ২য় খÐ, ৬৯৯ পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৪৬২০)।
হযরত আবূল হাসনা বর্ণনা করেন যে হযরত আলী (রা:) জনৈক ব্যক্তিকে রমজান মাসে ২০ রাকাত তারাবীহ নামাযে ইমামতি করার নির্দেশ দেন।” (মোসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা’, ৫ম খÐ, ২২৩ পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৭৭৬৩) । আল-হারিস (রা:) বর্ণনা করেন যে তিনি রমজান মাসে ২০ রাকাত তারাবীহ নামায আদায় করতেন, আর ৩ রাকাত বিতিরের নামাযেও ইমামতি করতেন এবং রুকূর আগে কুনুত পড়তেন (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বাহ, ৫ম খÐ, ২২৪ পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৭৭৬৭) ।
ইমাম বুখারী (রহ:) তাঁর ‘আল-কুনা’ পুস্তকে উল্লেখ করেন: হযরত আবূ আল-খুসাইব (রা:) বর্ণনা করেন যে হযরত সুওয়াইদ বিন গাফালাহ (রা:) সব সময়-ই রমজান মাসে আমাদেরকে নিয়ে জামাতে ২০ রাকাত তারাবীহ নামাযে ইমামতি করতেন (আল-কুনা, ২য় খÐ, হাদীস নং ২৩৪) ।
সাহাবী, তাবেঈ ও তাবে তাবেঈনদের যুগে এবং ইসলামের স্বনামধন্য ইমামগণ যেমন ইমাম আবু হানিফা, ইমাম মালেক, ইমাম শাফেয়ী, ইমাম আহমদ (রহ.) সবাই ২০ রাকাত তারাবীহর পক্ষে ছিলেন (আল মুদাওওয়ানাতুল কুবরা, ইমাম মালেক ১/১৯৩)।
তারাবীহ ২০ রাকাত হওয়ার ব্যপারে সকল মুহাজির ও আনসার সাহাবী এবং গোটা মুসলিম উম্মাহর ইজমা তথা ঐক্যমত সংঘটিত হয়। ২০ রাকাত তারাবীহর ব্যাপারে খোলাফায়ে রাশেদীন এবং অন্য সাহাবীর কোন ধরণের আপত্তি কোন কিতাবে উল্লেখ নেই। বিখ্যাত তাবেয়ী, ইমাম আ’তা বিন আবীরাবাহ (রহ:) বলেন: “ সাহাবা-এ-কেরাম ও তাবেয়ীগণকে ২০ রাকাত তারাবীহ আর ৩ রাকাত বিতির পড়তে পেয়েছি।” প্রখ্যাত মহাদ্দিস আল্লামা মোল্লা আলী কারী (রহ:) লিখেছেন:তারাবীহর নামায ২০ রাকাত এর উপর সব সাহাবা-এ-কেরামের ইজমা (সর্ব সম্মত ঐক্যমত) সংঘটিত হয়েছে। বুখারী শরীফের ব্যাখ্যাকার ইমাম ক্বাসতালানী (রহ:) লিখেছেন: হযরত উমর (রা:) এর যুগের অবস্থা প্রায় ইজমা বা সর্বসম্মত ঐক্যমত পর্যায়ের । মুসলিম শরিফের ব্যাখ্যা গ্রন্থে ইমাম নববী (রা:) লিখেছেন, “জেনে রাখ, তারাবীহ আলেমদের ঐকমতেই সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ এবং এর রাকাতের সংখ্যা বিশ।” (কিতাবুল-আযকার : পৃ. ৮৩)
সাহাবা-এ-কেরাম, খায়রুল কুরুনের শ্রেষ্ঠ প্রজন্ম, আইম্মায়ে মুজতাহিদিন ও সালফে সালেহিনের আমলকৃত এ অবিসংবাদিত সুন্নাত, ২০ রাকাত তারাবীহ নামায অতীতের মতো বর্তমানেও মক্কা শরীফ ও মদিনা শরীফের পবিত্র দুই মাসজিদে (হারামাইন-শরীফাইনে) যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়ে আসছে। এ বিষয়ে মুসলিম উম্মাহর মধ্যে কোনো দ্বিমত নেই। এ প্রসঙ্গে সৌদি আরবের বিখ্যাত আলেম, মসজিদে নববীর প্রসিদ্ধ মুদাররিস ও মদীনা শরীফের সাবেক কাযী, শায়েখ আতিয়্যা সালিম (রহ:) “এক হাজার বছরের অধিক সময় ধরে মসজিদে নববীতে তারাবীহ এর ইতিহাস” নামে একটি মূল্যবান গ্রন্থ রচনা করেন। তিনি পূর্ণ পুস্তিকাটিতে এই কথাই সাব্যস্ত করেছেন যে, হাজার বছরের অধিক সময় ধরে মসজিদে নববীতে তারাবীহ বিশ রাকাতই চলে আসছে।
৮ রাকাত তারাবীহ প্রসঙ্গে
হযরত আয়েশা (রা:) এর হাদীসে আট রাকাত তাহাজ্জুদ নামাযের বর্ণনা পাওয়া যায়, যা রমজান ও রমজান ব্যতীত বছরের অন্যান্য সময়েও নবী করিম (সা:) পড়তেন বলে বর্ণনায় উল্লেখ করা হয়েছে। সেটা যে তারাবীহ নয়, তা বর্ণনার ভাষা থেকেই স্পষ্ট। কারণ আট রাকাত যদি তারাবীহ হতো তাহলে রমজান ছাড়াও এটা পড়তেন বলা ঠিক হতো না। সর্বোপরি আট রাকাতের হাদীসটি ইমাম বুখারী (র:) বুখারী শরীফেও তাহাজ্জুদের অধ্যায়ে (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১১৪৭) উল্লেখ করেছেন, এতে সুস্পষ্ট হয় যে, তা আট রাকাত তাহাজ্জুদই ছিল; তারাবীহ নয়। এই হাদীসটি যদি বাস্তবেই তারাবীহ বিষয়ক হতো তাহলে যুগে যুগে মুজতাহিদ ইমামগণের কেউ না কেউ তা গ্রহণ করতেন এবং তদনুযায়ী আমল করতেন। কিন্তু ইমাম আবু হানিফা, ইমাম মালেক, ইমাম শাফেয়ী, ইমাম আহমদ এবং আহলে হাদীস ভাইদের মান্যবর ইমাম দাউদ যাহেরী, ইবনে হাযাম ও ইবনে তাইমিয়্যাহ কেউই বলেন নি যে উপরোক্ত হাদীসে তারাবীহর নামায ৮ রাকাত পড়তে বলা হয়েছে। বরং এতে তারাবীহর কোন প্রসঙ্গই নেই। এতে আছে তাহাজ্জুদ নামাযের বর্ণনা।
তারাবীহ ও তাহাজ্জুদ নামাযের মাধ্যে পার্থক্য রয়েছে। নিম্নে পার্থকের কয়েকটি দিক উল্লেখ করা হলো। ১. মুহাদ্দিসগণ দুই নামাযের জন্য পৃথক পৃথক শিরোনাম ও অধ্যায় নির্বাচন করেছেন। ২. ইমাম বুখারী রহ: রাতের শুরুতে নিজ ছাত্রদের নিয়ে জামাতের সাথে তারাবীহ পড়তেন এবং একবার কোরআন শরীফ খতম করতেন। আর সেহরীর সময় একাএকা তাহাজ্জুদ পড়তেন। ৩. তারাবীহর নামাযের সময় হল এশার নামাযের পর ঘুমানোর পূর্বে আর তাহাজ্জুদ নামাযের সময় নির্ধারিত নয়, উত্তম হলো ঘুম থেকে উঠে পড়া। ৪. তারাবীহর নামাযের জন্য লোকদেরকে ডেকে জমায়েত করা জায়েয আছে, কিন্তু তাহাজ্জুদের জন্য ডেকে জমায়েত করা জায়েয নেই। ৫. তাহাজ্জুদের নামায এক সময় ফরজ ছিল পরবর্তীতে তা ফরজ হওয়াটা রহিত হয়ে গেছে, বিধায় তা পুনরায় ফরজ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কিন্তু তারাবীহর নামায ফরজ হওয়ার আশংকাই রাসূল (সা:) দুই দিন জামাতের সাথে পড়ে আর জামাতের সাথে পড়েননি। ৬.তাহাজ্জুদের নামায পড়ার নির্দেশ পবিত্র কোরআন শরীফে রয়েছে, অথচ তারাবীহর নির্দেশ কোরআন শরীফে নেই বরং রাসূল (সা:) বলেন: “আল্লাহ তা’আলা রমজানের রোযাকে ফরয করেছেন আর আমি তোমাদের জন্য তারাবীহকে সুন্নাত করলাম।” ৭. তাহাজ্জুদের নামায মক্কা শরীফে আর তারাবীহর নামায মদীনা শরীফে হিজরতের পর বিধিবদ্ধ হয়েছে। ৮. তারাবীহ ও তাহাজ্জুদ পৃথক দুটি ইবাদত, হাদীসে তারাবীহর আলোচনা ‘কিয়ামে রমজান’ আর তাহাজ্জুদের আলোচনা ‘কিয়ামূল লাইল’ নামে এসেছে। এটাও একটা দলিল যে, তারাবীহ ও তাহাজ্জুদ এক নয়। কারণ তাহাজ্জুদ রমযানের সাথে খাস নয়।
তারাবীহর নামাযে দ্রæত ক্বিরাত পড়া প্রসঙ্গে
অন্যান্য নামাযের ন্যায় তারাবীহ নামাযেও কোরআনুল করীম ধীরে ধীরে (মাদ, গুন্নাহ, মাখরাজ ঠিক রেখে তারতীলের সাথে) ক্বিরাত পড়তে হবে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়- আমাদের দেশে অধিকাংশ মসজিদে এই নিয়ম মেনে চলা হয়না। হাফিজ সাহেবরা এমনভাবে তেলাওয়াত করেন যে, কোরআন এর আয়াতসমুহ স্পষ্ট বোঝা যায়না। এমনকি যে যত দ্রæত পড়তে পারে, তাকে তত কৃতিত্ব বা বাহবা দেওয়া হয়। এটি এক ধরনের পবিত্র কুরআনের অবমাননা, এটা অবশ্যই ত্যাগ করা উচিত। কেননা আল্লাহ তা’আলা বলেছেন, “তোমরা কোরআনকে তারতীলের সঙ্গে ধীরে ধীরে সহীহ-শুদ্ধভাবে পড় (সুরা মুযযাম্মিল, আয়াত-৪)।”
রমজান মাসে রাসুল (সা:) জিবরীলের সাথে কুরআন শরীফ পাঠ করতেন। তাঁর আদর্শ অনুসরণ করে প্রত্যেক মুমিনের উচিত এ মাসে বেশী বেশী কুরআন তেলাওয়াত করা। হযরত ইবনে আববাস (রা:) বলেন; “জিবরীল রমজানের প্রতি রাতে এসে রাসুল (সা.) এর সাথে সাক্ষাৎ করতেন এবং তাঁকে নিয়ে কোরআন শরীফ পাঠ করতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩৫৫৪)
তারাবীহর তাসবীহ
তারাবীহর নামায চার রাকাত পড়তে যতক্ষণ সময় লাগে, প্রতি চার রাকাত পর ততক্ষণ বিরতি দেয়া মুস্তাহাব। সেই সময় নফল নামায পড়া, তাসবীহ পড়া, দুরূদ শরীফ পড়া, জিকির করা, কুরআন তিলাওয়ত করা, কিংবা চুপ করে বসে থাকা, মক্কা শরীফে হলে তওয়াফ করা সবই জায়েজ। এসময় চুপ করে থাকার চেয়ে দোয়া দুরূদ, জিকির আজকার করা উচিত। হাদীস শরীফে একটি চমৎকার আল্লাহর হামদ এবং দোয়ার শব্দ তথা এই বাক্যগুলো পড়ার কথা উল্লেখ আছে:-“সুব্হানাযিল মুলকি ওয়াল মালাকূতি সুবহানাযিল ইযযাতি ওয়াল আযমাতি ওয়াল হাইবাতি ওয়াল ক্বুদরতি ওয়াল কিবরিয়ায়ি ওয়াল জাবারূত। সুব্হানাল মালিকিল হায়্যিল্লাযী লা-ইয়ানামু ওয়ালা ইয়ামূতু। সুব্বূহুন ক্বুদ্দূছুন রব্বুনা ওয়া রব্বুল মালা-য়িকাতি ওয়ার রূহ্।” কানযুল উম্মাল হাদীস নম্বর ২০৬৩ (উক্ত কিতাবে দায়লামী শরীফের বরাত সহকারে হযরত মুয়াজ বিন জাবালের (রা:) সনদের কথা বলা হয়েছে।), ১ম খন্ড ৪৭৪ পৃষ্ঠায় উক্ত দোয়া সম্পূর্ণ উল্লেখ করা হয়েছে। মুখতাসার তাফসীরে ইবনে কাছীর ১ম খন্ড ১৮৬ পৃষ্ঠা, ছাফাওয়াতুত তাফসীর ১ম খন্ড ১২০ পৃষ্ঠা এবং তাফসীরে বায়দ্বাবীর শরাহ “হাশিয়াতু শীহাব” এর ১ম খন্ড ৯ পৃষ্ঠায় বর্ণিত আছে। হানাফী মাযহাবের বিখ্যাত ফতোয়ার কিতাব “দুরুল মুখতারের” ৫ম খন্ড ২৪৮ পৃষ্ঠা এবং এই কিতাবের শরাহ রদ্দুল মুখতারের ২ খন্ড ৪৬ পৃষ্ঠায় এই দোয়া ও এটা পাঠের প্রেক্ষাপট এবং দলীল (শরহে মুনিয়াতুল মুসলি­, কুহিসতাহানি, মানহাজুল ই’বাদ) বর্ণিত আছে। ৩ শত হিজরী তে লেখা “মাজলিসু জাওয়াহিরুল উলুম” কিতাবে ৩য় খন্ড ৪৩৫ পৃষ্ঠার ১০৪৬ নম্বর হাদীসে শাব্দিক কিছু পরিবর্তনে সনদ সহকারে উক্ত দোয়ার কথা বলা হয়েছে।
আল্লাহ তা’আলা রোজাদারদের মাহে রমজানে তারাবীহ নামাযের অশেষ গুরুত্ব ও অপরিসীম ফজীলত উপলব্ধি এবং জামাতে খতমে তারাবীহ আদায়ের মাধ্যমে অধিক সওয়াব লাভের তাওফিক দান করুন! আমীন!!।
লেখক : বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও বহু গ্রন্থ প্রণেতা।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন