ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ সফর ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ভারতীয় সেনারা আজাদ কাশ্মীর দখলে প্রস্তুত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:০০ পিএম

৩৭০ ধারা বাতিল করে কাশ্মীরকে অভ্যন্তরীণ একটি বিষয় হিসেবে তুলে ধরে সমগ্র বিশ্বের কাছে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এক কড়া বার্তা দিয়েছিল ভারত। আর তারপর থেকেই অনেকের মনেই প্রশ্ন ছিল পাকিস্তান অধিকৃত আজাদ কাশ্মীরের পুনর্দখলের বিষয়ে।
গতকাল বৃহস্পতিবার ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন তারা পাকিস্তান অধিকৃত আজাদ কাশ্মীর দখলে প্রস্তুত রয়েছেন।
যদিও সেনাপ্রধান এই বিষয় নিয়ে পরিস্কার করে জানিয়েছেন যে, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন ভারত সরকার এবং সরকারের নির্দেশ মত কাজ করা হবে।
জেনারেল রাওয়াত জানিয়েছেন, জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষদের এটা বুঝতে হবে ওখানে যা হচ্ছে তা কেবলমাত্র তাদের জন্যই হচ্ছে। ৩৭০ ধারা বাতিল করা নিয়ে তিনি জানিয়েছেন কাশ্মীরকে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষজন সেখানে মোতায়েন হওয়া সেনাবাহিনীকে একটা সুযোগ দিক।
সেখানকার সরকারের পক্ষে উপত্যকায় শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। কাশ্মীরের মানুষজন ৩০ বছর ধরে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের সাক্ষী হয়েছে। আর নয়, তারাও শান্তিতে থাকুক।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
anisul ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১:১৪ পিএম says : 0
Yessss!!!!!!!!!!!!! Go ahead!!!!!!!!!!
Total Reply(0)
anisul ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ২:৫৭ পিএম says : 0
৩৭০ ধারা রদ এবং এনআরসি নিয়ে কংগ্রেস-সহ সমস্ত বিরোধী দল যখন ক্রমাগত নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনা করে চলেছে, কেন্দ্রের এই দুই পদক্ষেপকেই ‘মানবিকতা বিরোধী’ অ্যাখ্যা দেওয়া হচ্ছে, সে সময় সমর্থন উড়ে এল ভারতের সর্ববৃহৎ মুসলিম সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ-এর কাছ থেকে। মোদীর পাশে দাঁড়িয়ে তাদের দাবি, ভারতের সঙ্গে সার্বিক ঐক্যের মধ্যেই যেমন কাশ্মীরীদের উন্নতি লুকিয়ে রয়েছে, তেমনই দেশের সুরক্ষায় এনআরসির মাধ্যমে অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করাটাও জরুরি। বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ-এর বার্ষিক সভা ছিল। সেই সভাতেই এমন মত প্রকাশ করে জমিয়তে। সভা শেষে এই দুই বিষয়ে সংগঠনের মতামত সাংবাদিকদের জানান সংগঠনের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ মাদানি। তিনি বলেন, ‘‘কাশ্মীর আমাদের ছিল, আমাদের আছে, আমাদের থাকবে, যেখানে ভারত থাকবে সেখানেই আমরা থাকব। কাশ্মীরের মানুষদের রক্ষাকবচ হিসাবে ব্যবহার করে পাকিস্তান এিই উপত্যকাকে ধ্বংস করে দিতে চাইছে। কিন্তু আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস যে, ভারতের সঙ্গে সার্বিক ঐক্যের (৩৭০ ধারা রদের মধ্য দিয়ে) মধ্যেই কাশ্মীরিদের উন্নতি লুকিয়ে রয়েছে।’’ কাশ্মীরে কোনওরকম বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন তাঁরা সমর্থন করেন না বলে জানিয়েছেন।
Total Reply(0)
Mir shadab ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৮:৩৬ পিএম says : 0
Modir kach theke koti koti taka niyechere madani bujhle arugula baba
Total Reply(0)
alim ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৯:১১ পিএম says : 0
লাগা যুদ্ধ। ভারত একটা বর মাইর খাক।
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন