ঢাকা, শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৭ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ভারতের প্যাংগং লেক থেকে পুরোপুরি সেনা সরায়নি চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ জুলাই, ২০২০, ৯:৪৮ এএম

তীব্র উত্তেজনার পর ভারত-চীন সীমান্তে দফায় দফায় বৈঠকের উ্ত্তেজনা হ্রাস পেলে চীন এখনো বিরোধপূর্ণ সীমান্ত এলাকা থেকে সেনা সরাইনি বলে জানাচ্ছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম।
সম্প্রতি সীমান্ত উত্তেজনা কমাতে সামরিক ও কূটনৈতিক কর্মকর্তা পর্যায়ে দফায় দফায় বৈঠক করছে চীন ও ভারত। প্রাথমিক সমঝোতার অংশ হিসেবে দুপক্ষই দেড় থেকে দুই কিলোমিটার পর্যন্ত সেনা সরিয়ে নিয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছিল।

তবে স্যাটেলাইটে তোলা ছবির বরাত দিয়ে ভিন্ন দাবি করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। তাদের দাবি, এখনো সীমান্তের প্যাংগং লেক পুরোপুরি সেনা সরায়নি চীন।

সীমান্তের বিতর্কিত ফিঙ্গার-৪ ১০ জুলাইয়ের স্যাটেলাইটে তোলা ছবিতে দেখা যায়, চীনা নির্মাণ, তাঁবু ও শেড এখনো ওই এলাকায় রয়ে গেছে।

চীনা সেনারা পুরোপুরি দুই কিলোমিটার পেছনে সরে গেছে এমন দাবি করা যাবে না বলে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে এনডিটিভি।

বলা হচ্ছে, চীনা হোভারক্রাফ্ট প্যাংগং লেক সংলগ্ন এলাকায় পড়ে রয়েছে। এমনকি ১০টি বড় মাপের নৌকাও ফিঙ্গার-৪ এলাকার পূর্ব প্রান্তে ধরা পড়েছে স্যাটেলাইট চিত্রে।

সমঝোতা হয়েছিল প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) বরাবর দুই কিলোমিটার পিছু হটবে দুই দেশের বাহিনী। সীমান্তের কয়েকটি বিতর্কিত জায়গায় সেই সমঝোতা সম্পন্ন করেছে দুই দেশের সামরিক বাহিনী।

জানা গেছে, হটস্প্রিং ও গোগরা এলাকা থেকেও পিছু হটবে চীন ও ভারতীয় বাহিনী। প্যাংগং লেকের ফিঙ্গার ৪ এলাকায় চীনা সেনাদের গতিবিধি পরিলক্ষিত হয়েছিল। তাঁবু থেকে সামরিক সজ্জা সরানোর উদ্যোগ নিয়েছে চীনা বাহিনী।

সাম্প্রতিক উপগ্রহ চিত্রে দেখা গেছে, এলএসি’র ডি-ফ্যাক্টো বর্ডার এলাকায় অবস্থান করছে চীনা বাহিনী। সেখানেই তাদের অবস্থানের কথা। যে চারটি জায়গা থেকে বাহিনী সরাবে দুই বাহিনী, সেগুলো হলো লাদাখ গালওয়ান উপত্যকা, হটস্প্রিংস, গোগরা এবং প্যাংগংয়ের ফিঙার রিজিয়ন।

স্যাটেলাইট চিত্রে দেখা গিয়েছে, কিছু জায়গায় স্থাপনাগুলো ভেঙে দেওয়া হয়েছে এবং জায়গাটি পরিষ্কার। এই এলাকাটি পেট্রোল পয়েন্ট ১৪ নম্বরে, যেখানে ১৫ জুন চীনা সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা জওয়ান নিহত হন। তবে হতাহতের কথা স্বীকার করলেও সংখ্যা প্রকাশ করেনি চীন।

ভারতের সরকারি সূত্র এনডিটিভি-কে জানায়, জুলাইয়ের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে সব এলাকা থেকে চীনের সরে যাওয়া নিয়ে ‘সাবধানীভাবে আশাবাদী’ এবং দু’দেশের মধ্যে ওই সময়ের মধ্যে সেনাপর্যায়ের আরও উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হতে পারে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন