ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সুপরিকল্পিত ও সমন্বিত সন্ত্রাস : এনএসসিএন

ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর অরুনাচলে নাগা ছয় ক্যাডার হত্যা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ জুলাই, ২০২০, ১২:৪৬ এএম

আসাম রাইফেল, ভারতীয় সেনাবাহিনী ও অরুনাচল প্রদেশে পুলিশের একটি যৌথ বাহিনীর অভিযানে ছয় ক্যাডার নিহতের ঘটনাকে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর ‘সুপরিকল্পিত ও সমন্বিত সন্ত্রাস’ হিসেবে অভিহিত করেছে এনএসসিএন (আই-এম)। অরুনাচল প্রদেশের লংদিং জেলার এনজিনুতে শনিবার ওই হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। ছয় ক্যাডারের প্রতি সম্মান জানিয়ে নাগাল্যান্ডের স্বাধীনতাকামী দলটি রোববার এক বিবৃতিতে বলে, ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী বানোয়াট কাহিনী সাজিয়ে ঠান্ডা মাথায় ছয় নাগা সেনা সদস্যকে গুলি করে হত্যা করেছে। এর মাধ্যমে এনজিনুকে বধ্যভ‚মিতে পরিণত করা হয়েছে। নিহতরা অনিষ্টকর মিশনের পরিকল্পনা করছিলো বলে অরুনাচল প্রদেশের পুলিশের ডিজি যে দাবি করেছেন তা বানোয়াট। নাগা দলটি বলে, দিনের শুরুতে নাগা সাহসী যোদ্ধারা বিষ্ময়ের কবলে পড়ে। তাদেরকে চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়, তাদেরকে প্রস্তুত হওয়ার সময় হয় না। তারা শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে লড়াই করছে। এসএসসিএন (আই-এম) উল্লেখ করে, শুধু হত্যা করেই নিবৃত্ত হয়নি, নিরাপত্তা বাহিনী শালীনতার সব সীমা লঙ্ঘন করে ক্ষতবিক্ষত লাশগুলো খোলা জায়গায় মৃত পশুর মতো গাদাগাদি করে ফেলে রাখে। স্বাধীনতাকামী দলটি উল্লেখ করে যে, কেন্দ্রের দমনম‚লক মনোভাবের কারণেই ২৩ বছর ধরে চলা ইন্দো-নাগা রাজনৈতিক আলোচনা শুধু জটিল হয়েছে। এতে অনেক কিছু অর্জিত হলেও এগুলোকে সম্মান করা হয়েছে সামান্যেই। এনএসসিকে কদর্যর‚পে উপস্থাপনের জন্য কিছু ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনে দলটি। বিবৃতিতে বলা হয়, নাগা জনগণ ও বিশেষভাবে এনএসসিএন সর্বোচ্চ আত্মত্যাগকারী ওই ছয় ভ‚মিপ‚ত্রের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছে। এনএসসিএন বলে, নাগা সেনাবাহিনী সবসময় তাদের স্মরণ করবে ও বিজয়ের মাধ্যমে তাদের প্রতি সম্মান জানাবে। কারণ তাদের আত্মত্যাগ বৃথা যাবে না। এতে বলা হয়, ভারত সরকার এমন নির্লজ্জ প্রক্রিয়ায় ন্যাশনাল সোস্যালিস্ট কাউন্সিল অব নাগালিমের সঙ্গে আচরণ করছে, অথচ গত ২৩ বছর ধরে যুদ্ধবিরতি চলছে। যুদ্ধবিরতিতে থাকা একটি দলের বিরুদ্ধে এটা একটি রাষ্ট্র পরিচালিত সন্ত্রাস উল্লেখ করে নাগা দলটি বলে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশটি নাগা জনগণের উপর তার ইচ্ছাকে চাপিয়ে দিতে ইন্দো-নাগা যুদ্ধবিরতিকে বধ্যভ‚মি হিসেবে ব্যবহার করছে। এনএসসিএন-এর অস্তিত্বকে কোনভাবেই ভারতের জন্য একটি উপদ্রব বিবেচনা করলে হবে না বলে বিবৃতিতে হুঁশিয়ার করে দেয়া হয়। এতে আরো বলা হয়, ভারত ও এসএসসিএনের মধ্যে স্বাক্ষরিত ইন্দো-নাগা যুদ্ধবিরতি চুক্তিই ভারতের সঙ্গে শান্তিপ‚র্ণ সহাবস্থানে নাগাদের সদিচ্ছার প্রমাণ। এনই নাউ, এসএএম।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
নোমান ১৫ জুলাই, ২০২০, ২:৫২ এএম says : 0
বিষয়টি খুবই উদ্বেগের
Total Reply(0)
আশরাফুল ইসলাম ১৫ জুলাই, ২০২০, ২:৫২ এএম says : 0
আমাদেরকেও সতর্ক থাকতে হবে।
Total Reply(0)
সাব্বির আহমেদ বাবু ১৫ জুলাই, ২০২০, ১০:০৪ এএম says : 0
আমার মনে হচ্ছে ভারতের সেচ্ছাচারিতার কারণেই এমন ঘটনা ঘটছে
Total Reply(0)
আরাফাত ১৫ জুলাই, ২০২০, ১০:০৩ এএম says : 0
আমাদের সীমান্ত ব্যবস্থা আরও জোরদার করা উচিত বলে আমি মনে করি।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন