সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

পাঁচ প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা আদায়ে অনিশ্চয়তা

ব্যাংক বর্হিভূত খেলাপি ঋণ সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩০ আগস্ট, ২০২১, ১২:০০ এএম

দেশে বর্তমানে ব্যাংক বহির্ভূত ৩৪টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণ বিতরণ করেছে ৬৬ হাজার ৯৬২ কোটি ৪২ লাখ টাকা। এর মধ্যে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৩৫৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা। যা বিতরণ করা ঋণের ১৫ দশমিক ৪৬ শতাংশ। এর মধ্যে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানেরই সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা খেলাপী রয়েছে। যা আদায় করা শতভাগ অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। অর্থাৎ পাঁচটি কোম্পানিই খাদের কিনারায় এসে দাঁড়িয়েছে। যাদের মোট বিতরণ করা ঋণের বেশির ভাগই ‘মন্দ ঋণ’ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। কারো কারো ৮০ থেকে ৯৫ শতাংশ ঋণই খেলাপি হয়ে পড়েছে। একারণে কষ্টার্জিত জমানো অর্থ ফেরত পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। যা ফেরত পাওয়ার আশায় বর্তমানে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন সংশ্লিষ্ট আমানতকারীরা।

খেলাপি ঋণে ডুবতে থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে- বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি), ফাস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড, ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিসেস লিমিটেড (আইএলএফএসএল) ও প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড। এ পাঁচ প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ছয় হাজার ৫৬৯ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। যা এ খাতের মোট খেলাপি ঋণের ৬৩ শতাংশ।

অভিযোগ উঠেছে, প্রতিষ্ঠানগুলোর উদ্যোক্তা পরিচালকরা নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন শত শত কোটি টাকা। এজন্য নামে-বেনামে কাগুজে প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়েছে বেওয়ারিশ ঋণ। যা পরবর্তীতে আর ফেরত আসছে না। শেষমেশ প্রতিষ্ঠানগুলো আমানতকারীদের অর্থ ফেরত দিতে পারছে না।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানের ঋণগ্রহীতার সঙ্গে পরিষদ সদস্যদের একটা যোগসাজশ রয়েছে। তা না হলে এত খেলাপি হবে কেন? এ ঋণ আদায়েও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ সংস্থার কঠোর মনিটরিং থাকা দরকার। কেন ঋণ আদায় হচ্ছে না, কীভাবে ঋণ দেওয়া হয়েছে তার অনুসন্ধানের দায়িত্ব তো নিয়ন্ত্রণ সংস্থার। এখানে যদি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা পরিচালক বা ব্যবস্থাপনার কেউ অনিয়ম করেন তাহলে দ্রুত তাদের আইনের আওতায় আনা উচিত। এটির দায়িত্ব তো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের

বিআইএফসি : খেলাপি ঋণে ডুবতে থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অন্যতম বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ তথ্য বলছে, চলতি বছরের মার্চ শেষে দেউলিয়ার পথে থাকা বিআইএফসির বিতরণ করা ৮১৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ঋণের মধ্যে ৭৭২ কোটি তিন লাখ টাকা অর্থাৎ প্রায় ৯৫ শতাংশ খেলাপি। এর মধ্যে ৭৭০ কোটি টাকা আদায় অযোগ্য ঋণ। এগুলোর বেশির ভাগই নামে-বেনামে নিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নানের মালিকানাধীন সানম্যান গ্রæপ। স¤প্রতি অনিয়মের অভিযোগে আদালতের নির্দেশনায় গঠিত বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্ত কমিটি মেজর মান্নান ও তার স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। অনিয়মের প্রসঙ্গে বিআইএফসির বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এ কে এম আশফাকুর রহমান চৌধুরী বলেন, ৯৫ শতাংশ খেলাপি ঋণই দীর্ঘদিনের। এ নিয়ে আদালত বেশকিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। নতুন পরিষদ গঠন করা হয়েছে। তারা ঋণ আদায়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছেন। সেই আলোকে আমরা কার্যক্রম চালাচ্ছি।

ফাস ফাইন্যান্স : এফ এ এস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত মোট এক হাজার ৯২৪ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করেছে। এর মধ্যে এক হাজার ৬৯১ কোটি ৪৬ লাখ টাকা অর্থাৎ প্রায় ৮৮ শতাংশই খেলাপি। আদায় অযোগ্য এক হাজার ২১০ কোটি টাকা। এছাড়া মন্দ ঋণের বিপরীতে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তাদের প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে প্রায় ৩০৫ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ফাস ফাইন্যান্স চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত মোট এক হাজার ৯২৪ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করেছে। এর মধ্যে এক হাজার ৬৯১ কোটি ৪৬ লাখ টাকা অর্থাৎ প্রায় ৮৮ শতাংশই খেলাপি। আদায় অযোগ্য এক হাজার ২১০ কোটি টাকা। এছাড়া মন্দ ঋণের বিপরীতে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি

অভিযোগ আছে, পরিষদ ও ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের যোগসাজশে প্রতিষ্ঠানটি থেকে ঋণ নিয়ে হরিলুট করা হয়েছে। এর সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাসেল শাহরিয়ারের একক স্বাক্ষরে ৭০০ কোটি টাকার ঋণের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। যার বিপরীতে ছিল না কোনো মর্টগেজ (ঋণের জন্য স্থাবর সম্পত্তি গচ্ছিত রাখা)। লোক দেখানো বোর্ড মিটিংয়ে তা পাস করিয়ে অর্থছাড়ও করা হয়। এর পেছনের কারিগর ছিলেন আলোচিত প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পি কে হালদার। ফাস ফাইন্যান্সের এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা আত্মসাতের রহস্য উদঘাটনে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) জিজ্ঞাসাবাদে এমন চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি দিয়েছেন রাসেল শাহরিয়ার।

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং: একসময় ভালো প্রতিষ্ঠান হিসেবে খ্যাতি ছিল ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের। কিন্তু ২০১৫ সালে বিভিন্ন নামে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার কিনে পরিচালনা পর্ষদ দখল করে নেন রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের এমডি পি কে হালদার। প্রভাব খাটিয়ে অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে-বেনামে প্রায় এক হাজার ৬০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাৎ করেন। প্রতিষ্ঠানটি এখন খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে। অন্যদিকে কষ্টার্জিত জমানো অর্থ ফেরত পাওয়ার আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন আমানতকারীরা।
একসময় ভালো প্রতিষ্ঠান হিসেবে খ্যাতি ছিল ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের। দেশের ভালো কয়েকটি গ্রæপ প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পরিষদের সঙ্গে যুক্ত ছিল। কিন্তু ২০১৫ সালে বিভিন্ন নামে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার কিনে পরিচালনা পর্ষদ দখল করে নেন রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও এনআরবি গেøাবাল ব্যাংকের এমডি পি কে হালদার। প্রভাব খাটিয়ে অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে-বেনামে প্রায় এক হাজার ৬০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাৎ করেন
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, আইএলএফএসএল চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত মোট চার হাজার ২২ কোটি ৮৬ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ করেছে। এর মধ্যে তিন হাজার কোটি টাকা অর্থাৎ ৭৫ শতাংশই খেলাপি। যার দুই হাজার ৬৫৮ কোটি টাকা আদায় অযোগ্য। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে খেলাপির শীর্ষে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং।

ফারইস্ট ফাইন্যান্স:
পরিচালকদের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে সংকটের মুখে পড়েছে ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। আর্থিক প্রতিষ্ঠানটি এখন গ্রাহকদের টাকা ফেরত দিতে পারছে না। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের মার্চ শেষে প্রতিষ্ঠানটি ৯৪০ কোটি ৫৫ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ করেছে। এর মধ্যে ৫০ দশমিক ৫৮ শতাংশ অর্থাৎ ৪৭৫ কোটি ৭১ লাখ টাকা খেলাপি। মন্দ বা আদায় অযোগ্য ঋণের পরিমাণ ১৭১ কোটি টাকা। এছাড়া সাড়ে ১০ কোটি টাকার প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। জানা যায়, ফারইস্ট ফাইন্যান্স প্রায় ৫০ কোটি টাকার ঋণ দেয় আলোচিত পি কে হালদারের তিন আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে। এর মধ্যে পিপলস লিজিংয়ে ৩৮ কোটি এবং বাকি টাকা এফ এ এস ফাইন্যান্স ও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানিকে দেওয়া হয়। এর সবই এখন আদায় অযোগ্য।

প্রিমিয়ার লিজিং: নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনায় বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে প্রিমিয়ার লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির বিতরণ করা ঋণের প্রায় অর্ধেক খেলাপিতে পরিণত হয়েছে। এছাড়া নিয়মিত ঋণের বেশির ভাগই বারবার পুনঃতফসিলের সুবিধা নিচ্ছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের মার্চ শেষে প্রতিষ্ঠানটি এক হাজার ২৯৯ কোটি ৫১ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ করেছে। এর মধ্যে ৪৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ অর্থাৎ ৬৩১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা খেলাপি। যার ৫২৬ কোটি টাকা আদায় অযোগ্য। পাশাপাশি ১১৭ কোটি টাকার প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। সবমিলিয়ে দুরবস্থায় রয়েছে প্রিমিয়ার লিজিং। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একদিকে বিতরণ করা ঋণ আদায় হচ্ছে না, অন্যদিকে প্রতিষ্ঠানটি পাঁচ আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও সমস্যাগ্রস্ত বেসিক ব্যাংকে ১৯৪ কোটি টাকা আমানত রেখেছে। দীর্ঘদিন ধরে এসব অর্থ ফেরত পাচ্ছে না। ফলে আমানতকারীদের জমানো অর্থ ফেরত দিতে পারছে না।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Mahadi ৩০ আগস্ট, ২০২১, ৮:১৪ এএম says : 0
আহারে! বাংলাদেশ
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন