বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মহাকাশ থেকে তোলা কোনো গ্রহের পৃষ্ঠদেশ নয়, খুলনার সড়কগুলো এমনই

খুলনা ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:৩৭ পিএম

ছবিটি দেখে হঠাৎ মনে হতে পারে, মহাকাশ থেকে তোলা অজানা কোন গ্রহের অমসৃণ পৃষ্ঠদেশ। মনুষ্য বসতির অযোগ্য গ্রহটির উপরিভাগ খানাখন্দে ভরা। ভূমিকম্পে বদলে গেছে ভূমিরূপ। আসলে তা নয়। খুলনার অধিকাংশ সড়কের এখন এই দশা। সামান্য বৃষ্টি হলেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে সড়কগুলো। অথচ খুলনা মহানগরীর সড়ক, ড্রেন ও ফুটপাত সংস্কারে প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার মেগা প্রকল্পের কাজ চলছে দীর্ঘদিন ধরে।

প্রকল্প বাস্তবায়নকারী খুলনা সিটি করপোরেশন সূত্র জানায়, এডিপিভুক্ত দুই প্রকল্পে প্রায় ১ হাজার ৪৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন ও সড়ক উন্নয়ন কাজ চলছে। প্রকল্পের আওতায় মহানগরীর সড়ক মেরামত ও উন্নয়নে ৬০৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৮ কিলোমিটার সড়ক কার্পেটিং, ১৫১ কিলোমিটার সড়ক আরসিসি ঢালাই ও ৩৩ কিলোমিটার সড়ক সিসি ঢালাই দেওয়া হবে। ২০টি গুরুত্বপূর্ণ মোড় উন্নয়ন, সৌন্দর্যবর্ধন ও কিছু যানবাহন কেনারও প্রস্তাব রয়েছে প্রকল্পে।

সরেজমিনে দেখা গেছে খুলনা মহানগরীতে গত ৯ মাস ধরে ড্রেনেজসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ চলছে। বছরখানেক আগে পানি সরবরাহ প্রকল্পের (ওয়াসা) ভূগর্ভস্থ পাইপ বসানোর কাজ করায় নগরীর অধিকাংশ রাস্তাগুলো ব্যবহারের অনুপযুক্ত হয়ে পড়ে। দীর্ঘ সময় পার হলেও অনেক সড়কই যথাযথভাবে সংস্কার করা হয়নি। কয়েকটি সড়ক দায়সারা গোছের কাজ করায় সেগুলো সামান্য বৃষ্টি হলেই পানিতে তলিয়ে যায়। এতোদিন শুকনো মওসুম থাকায় সাধারণ মানুষ ধূলোবালির আস্তরণ মেখে পথ চলাচল করছিল। বর্ষা চলে আসায় এখন পানিবদ্ধতার নতুন ভোগান্তি যোগ হয়েছে।

মহানগরীর খুলনা-যশোর মহাসড়কের গোয়ালখালি এলাকায় শনিবার বিকেলে দেখা গেছে রাস্তায় বৃষ্টির পানি ও এবং কাদা জমে যান ও পথচারী চলাচলে চরম প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া রাস্তার ছোটবড় গর্তে তিনচাকার হাল্কা যানগুলো মাঝেমধ্যেই দুর্ঘটনায় পড়ছে। একই চিত্র দেখা গেছে মুজগুন্নি এলাকার মহাসড়কে। রাস্তা বলতে সেখানে বড় বড় গর্ত ছাড়া আর কিছু নেই। রাস্তার কার্পেটিং উঠে গেছে কয়েক বছর আগে। এরপর ইট সরে গিয়ে শুধুই গর্ত। সড়কটি নগরীর নতুন রাস্তা মোড়ের সাথে সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনালকে যুক্ত করেছে। রাস্তার দুপাশে আবাসিক এলাকা ও বেশ কিছু সরকারি অফিস অবস্থিত। সরকারি বিভিন্ন সংস্থার উন্নয়নের নামে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির কারণে এ অবস্থা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী লিয়াকত আলী খান দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, দ্রুত নগরীর রাস্তাগুলো সংস্কার করা হবে। আপাতত পরিস্থিতি সামাল দিকে ইট ও বালু দেয়া হচ্ছে। বর্ষা শেষ হলে বড় ধরণের সংস্কার করা হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন