শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বাইডেনের ‘গণতন্ত্র সম্মেলন’ মোটেও গণতান্ত্রিক নয়

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৫:৪২ পিএম

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বিশ্বাস করেন, গণতন্ত্র দুর্ঘটনাক্রমে ঘটে না। তিনি বলেন, ‘আমাদের এটিকে রক্ষা করতে হবে, এটির জন্য লড়াই করতে হবে, এটিকে শক্তিশালী করতে হবে, এটি পুনর্নবীকরণ করতে হবে।’ এটি করার জন্য তার প্রচেষ্টাগুলো এই সপ্তাহে আমেরিকার ‘গণতন্ত্রের জন্য শীর্ষ সম্মেলনে’ প্রদর্শিত হবে।

বৈঠকটি আগামী ৯ ও ১০ ডিসেম্বর অনলাইনে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। সেখানে ‘বিশ্বের গণতন্ত্রের বিভিন্ন গোষ্ঠী’ কর্তৃত্ববাদের বিরুদ্ধে রক্ষা, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই এবং মানবাধিকারের প্রতি সম্মানের প্রচার নিয়ে আলোচনা করবে। পরের বছর তাদের আবার রিপোর্ট করার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হবে যে, তারা কীভাবে এই হুমকিগুলো মোকাবেলা করেছে। বাইডেন আশা করেন, ইভেন্টটি গণতন্ত্রের কারণকে এগিয়ে নিতে পারে।

গত ২৪ নভেম্বর স্টেট ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক প্রকাশিত অনুষ্ঠানের একটি অতিথি তালিকায় ১১০টি দেশ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এগুলো নির্বাচন করার ক্ষেত্রে প্রশাসন উদ্দেশ্যমূলক ব্যবস্থার চেয়ে নিজস্ব স্বার্থ অনুসরণ করে। প্রতি বছর, ওয়াশিংটনে অবস্থিত একটি এনজিও ফ্রিডম হাউস, রাজনৈতিক অধিকার এবং নাগরিক স্বাধীনতার ২৫টি মেট্রিকের ভিত্তিতে বিশ্বের দেশগুলোকে ১০০ নম্বরের ‘স্বাধীনতা স্কোর’ বরাদ্দ করে। তারপরে এটি তাদের ‘মুক্ত’, ‘আংশিকভাবে মুক্ত’ বা ‘মুক্ত নয়’ হিসাবে মূল্যায়ন করে।

বাইডেনের তালিকায় প্রায় সমস্ত ‘মুক্ত’ দেশ রয়েছে, যেগুলোকে নিরাপদে গণতন্ত্র হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে, কয়েকটি ইউরোপীয় মাইক্রোস্টেট বাদে। তবে জাম্বিয়া (৫২) এবং মোল্দোভা (৬‘) এর মতো আমন্ত্রিতদের আরেকটি অংশকে ফ্রিডম হাউস দ্বারা শুধুমাত্র ‘আংশিক মুক্ত’ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। তিনটি দেশ - গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গো (২০), ইরাক (২৯) এবং অ্যাঙ্গোলা (৩১)-কে ‘মুক্ত নয়’ হিসাবে রেট দেয়া হয়েছে। বেশ কয়েকটি দেশ যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়নি, যেমন বলিভিয়া (৬৬) এবং সিয়েরা লিওন (৬৫), অন্যদের থেকে বেশ এগিয়ে রয়েছে। (দ্য ইকোনমিস্টের একটি সিস্টার কোম্পানি ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের একটি বার্ষিক জরিপ একই রকম ফলাফল দেয়।)

তাহলে কীভাবে বাইডেন প্রশাসন তালিকায় সিদ্ধান্ত নিতে পারে? আঞ্চলিক বৈচিত্র্যের প্রয়োজন ইরাক (২৯), কেনিয়া (৪৮) এবং নাইজার (৪৮) এর মতো রাজ্যগুলোকে কাটাতে সাহায্য করেছে। কৌশলগত বিবেচনাও এর মধ্যে ছিল। পাকিস্তান (৩৭) এবং ইউক্রেনের (৬০) গণতান্ত্রিক রেকর্ড দুর্বল কিন্তু তাদের একটি কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ আমেরিকান অংশীদার এবং অন্যটি একটি কর্তৃত্ববাদী শাসনের দখলের হুমকির মধ্যে রয়েছে। বৈঠকে আমন্ত্রিত তাইওয়ান (৯৪), স্বল্প আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি সহ একটি প্রাণবন্ত গণতন্ত্র, তারা ক্রমবর্ধমান চীনা আগ্রাসনের সময়ে রাজনৈতিক সংহতির একটি চিহ্ন। এই বিষয়টি চীনকে (৯) ক্ষুব্ধ করেছে, যেটি শীর্ষ সম্মেলনের নিন্দা করেছে এবং যেটি সম্প্রতি, এবং উচ্চতরভাবে, আমেরিকার চেয়ে বেশি গণতান্ত্রিক বলে দাবি করেছে। তবুও চীনকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি, রাশিয়া (২০) বা সউদী আরবকেও (৭) বাদ দেয়া হয়েছে।

বাদ পড়াদের মধ্যে বেশ কয়েকটি রাজ্য রয়েছে যারা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তাদের গণতান্ত্রিক পশ্চাদপসরণে আমেরিকাকে হতাশ করেছে। তুরস্ক (৩২) এবং হাঙ্গেরি (৬৯) উভয়ই ন্যাটো মিত্র হওয়া সত্ত্বেও বাদ পড়েছিল। এই ফলাফল দ্বন্দ্ব এবং সুযোগ হারানোর একটি জট। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারত (৬৭), ব্রাজিল (৭৪) এবং পোল্যান্ড (৮২) সবকটিই ফ্রিডম হাউস র‌্যাঙ্কিংয়ে নেমে গেছে, তবুও তারা তালিকায় থাকার মতো রাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা (৫৩) তার বলকান প্রতিবেশী কসোভোর (৫৪) ঠিক পিছনে রয়েছে এবং ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক মেরুকরণের সময়ে তারা আমেরিকান সমর্থন ব্যবহার করতে পারে, কিন্তু তাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। আমেরিকার নিজস্ব স্কোর ২০১৯-এ ৮৬ থেকে ২০২০-এ ৮৩তে নেমে এসেছে, তাদেরকে অন্য ৬০টি দেশের পিছনে ফেলেছে। পরের বছর রিপোর্টে উন্নতির মধ্যে থাকতে বাইডেনেরও ভাগ্যের সহায়তা প্রয়োজন হবে। সূত্র: দ্য ইকোনমিস্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন