সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

করোনার বিধিনিষেধ প্রত্যাহার সউদীতে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ মার্চ, ২০২২, ১২:১০ এএম

করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করে নিয়েছে সউদী আরব। এখন থেকে সামাজিক দূরত্ব মানা এবং বাইরে মাস্ক পরিধানে বাধ্যবাধকতা থাকছে না দেশটিতে। সউদীর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন ঘোষণা শনিবার থেকেই কার্যকর হয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সউদী গেজেট। সউদী আরবের প্রধান দুই পবিত্র মসজিদ মক্কা ও মদিনার পাশাপাশি দেশটির অন্যান্য মসজিদেও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে না। খোলা জায়গায় মাস্ক পরার বাধ্যকতা তুলে নেওয়া হলেও, বাড়ির ভেতরে মাস্ক পরা আবশ্যক। নতুন ঘোষণায় অনুযায়ী, এখন থেকে খোলা জায়গায় অনুষ্ঠান আয়োজন করা যাবে। যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না। বিদেশি যাত্রীরা দেশটিতে প্রবেশের পর করোনার পিসিআর পরীক্ষার নিয়মও প্রত্যাহার করা হয়েছে। এদিক ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের কারণে আফ্রিকার বেশ কয়েকটি দেশের সাথে সরাসরি ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করে দেয় সউদী সরকার। নতুন নিয়মে দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, বতসোয়ানা, লেসোথু, এস্বাতীনি, মোজাম্বিক ও এশিয়ার আফগানিস্তানসহ ১৭ দেশের নাগরিকরা সরাসরি ভ্রমণ করতে পারবেন সউদীতে। এদিকে সউদী টিকা প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়েছে। সউদী গেজেট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
shanto ৭ মার্চ, ২০২২, ২:২৮ পিএম says : 0
অজ্ঞ নির্বোধ লোকেরা মনে করে এবং বিশ্বাস করে যে সরকার জনগণের কল্যাণে কাজ করছে, কিন্তু বাস্তবে সমস্ত ক্ষতিকর সাইকোপ্যাথিক অমানুষ এবং সরকার শয়তানী এজেন্ডার জন্য কাজ করছে, সাধারণ মানুষকে তাদের ম্যাডডগ দাস ভেড়া ইঁদুর শূকরে পরিণত করছে। অহংবাদ, মিথ্যা, ভণ্ডামি, ধোকা, প্রতারণা, বিভ্রান্তি, অমানবিকতা, ক্ষতিকারক, শয়তানবাদের সর্বোচ্চ অন্ধকার যুগে বর্তমান বিশ্বে আমরা অবস্থান করছি। তাই সাধারণ মানুষ সর্বোচ্চ সতর্কতা সাবধানতা অবলম্বন করুন! আপনার সাধারণ বোধগুলোকে সক্রিয় করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন। গভীর তদন্ত না করে অন্ধভাবে কোনও কিছু গ্রহণ বা বিশ্বাস করবেন না। একটা কথা সব সময় স্মরণ রাখবেন আর তা হলো - সর্বোচ্চ শয়তানবাদের এই যুগে " রক্ষকরাই ভক্ষক " এর ভূমিকা পালন করছে, আপনার চারপাশে এর অসংখ্য প্রমাণ রয়েছে। সুতরাং বিশ্বাস একমাত্র শুধুমাত্র সত্যকে করা যায়। আর শুধুমাত্র সর্বশক্তিমান আল্লাহ সমস্ত সত্তের উৎস। কিন্তু সাবধান ! শয়তান এবং এর অনুসরণ কারীরা নিজেদেরকে সত্যবাদী হিসেবে প্রকাশ করে অথচ এরাই সমস্ত ধরনের মিথ্যার উৎস! এরা বলে, কথিত ভাইরাস নাকি ভয়ঙ্কর! যার সত্যিকারের কোনো অস্তিত্ব নেই সেটি কে কেন্দ্র করে লকডাউন দিয়ে অসহায় দরিদ্র মানুষদের উপর লোভী স্বার্থপর শয়তানি ক্ষমতার অধিকারীরা নানাভাবে শোষণ নির্যাতন জুলুম করে তাদের অসংখ্য ক্ষতি করে চলছে। অথচ ঐ সমস্ত অমানুষ কথিত ভাইরাস থেকে লক্ষ কোটি গুণ বিষাক্ত, এদের দ্বারা পৃথিবীর লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি মানুষ নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং মারা যাচ্ছে। যদি লকডাউন এবং বিষাক্ত ভ্যাকসিন দিতে হয় তাহলে এই সকল বড় বড় মিথ্যুক ভন্ড প্রতারক জালেম শোষকদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক লকডাউন এবং বিষাক্ত ভ্যাকসিন দেওয়া হোক। বর্তমানে সারা পৃথিবীতে কথিত ভাইরাসের নাম দিয়ে মানুষের বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর যে কারণ বলা হচ্ছে তার আসল কারণ হচ্ছে বিষাক্ত ভ্যাকসিন, বিষাক্ত খাদ্য, বিষাক্ত পরিবেশ, বিষাক্ত মোবাইল রেডিয়েশন, বিষাক্ত মানসিক চাপ - যা শয়তান এবং এর অনুসরণকারীরা এই পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠা করেছে। মানুষের রূপ ধারী অমানুষ, যারা তাদের ভেতর শয়তানকে ধারণ করে শয়তানকে লালন করে, যারা নানাভাবে সাধারণ মানুষের সাথে মিথ্যা ধোকা প্রতারণা ভন্ডামি করে তাদের উপর নানাভাবে জুলুম শোষণ করে যাচ্ছে, সাধারণ মানুষকে নানাভাবে তাদের ক্রীতদাসে রূপান্তর করছে, তাদেরকে অন্ধভাবে বিশ্বাস করে নিজেদের জীবনকে বিষাক্ত অভিশপ্ত করবেন না। সদা সর্বদা সবসময় সত্যের পক্ষে থাকুন। আর এই পৃথিবীতে সর্বোচ্চ পর্যায়ের সত্য হচ্ছে মনুষত্ব,ন্যায় বিচার, কল্যাণ, মানবতা, শান্তি। অথচ আজ এই পৃথিবীতে সত্তিকারের মনুষ্যত্ব ন্যায় বিচার কল্যাণ মানবতা শান্তি নেই। এরা নানাভাবে সাধারণ মানুষদের মানব অধিকার, মানব স্বাধীনতা এবং বাক স্বাধীনতাকে নানাভাবে ধ্বংস করছে। বড় বড় মিথ্যুক ভন্ড প্রতারক ধোকাবাজ শোষক জালেম - মানুষের রূপ ধারী অমানুষরা আজ মুখে মুখে মনুষত্ব ন্যায় বিচার শান্তির কথা বলে, অথচ তারাই এই পৃথিবীতে তাদের নিজস্ব লোভ স্বার্থ শয়তানি ক্ষমতার জন্য ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে নানারকম অশান্তি সৃষ্টি করছে। আপনি যতই এদেরকে সহযোগিতা করবেন এরা ততোই শক্তিশালী হয়ে নানাভাবে আপনার উপর শোষণ-নির্যাতন করবে। সাধারন জনগন যদি এদের ক্ষতিকর কর্মকাণ্ড গুলোকে বন্ধ করতে বাধ্য না করে তাহলে কখনই তারা এ থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখবে না। সুতরাং এদেরকে সকল ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করা বন্ধ করুন, না হলে সর্বোচ্চ পর্যায়ের ক্ষতিগ্রস্ত হবেন আপনি।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps