শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইসরাইলের উদ্বেগ বাড়িয়ে ইরানের হাতে সিরিয়াকে ছেড়ে দিচ্ছে রাশিয়া

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ মে, ২০২২, ২:৩৪ পিএম

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ডনবাসের যুদ্ধে সাহায্য করার জন্য সিরিয়া থেকে ইউক্রেনে সৈন্য পাঠানো শুরু করেছেন বলে এক রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে। এদিকে, তেহরানে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের সাম্প্রতিক সফরের ফলে ইরান রাশিয়ার রেখে যাওয়া শূন্যতা পূরণের চেষ্টা করতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যোগদানের প্রেক্ষিতে রাশিয়া এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সিরিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্র মুখ ফিরিয়ে নেয়ার পর থেকেই সেখানে শান্তি বজায় রাখার দায়িত্বে ছিল রুশ সেনা। কিন্তু সেখানে ইরানের সেনাদের অবস্থান নেয়ার মানে হচ্ছে তা মার্কিন মিত্র ইসরাইলের জন্য সরাসরি হুমকি। যার ফলে মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব বৃদ্ধি পাবে এবং যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলের জন্য এটি অনেক বেশি উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠেবে। কারণ, ইরান এবং সিরিয়া দুই দেশই তীব্র ইসরাইল-বিরোধী। মার্কিন-বিরোধিতাও তাদের মধ্যপ্রাচ্যে কাছাকাছি এনেছে।

রাশিয়া আগেই বলেছে যে, ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যোগদানের পদক্ষেপ ইউরোপকে কম স্থিতিশীল করে তুলবে এবং মস্কো ‘প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ’ নিতে বাধ্য হবে। ক্রেমলিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে যে, হেলসিঙ্কির আবেদন, এটি দেশের পররাষ্ট্র নীতিতে একটি ‘আমূল পরিবর্তন’। সিরিয়ায় ২০১৫ সাল থেকে ক্রেমলিনের হাজার হাজার সৈন্য ছিল যারা প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে সমর্থন দিয়ে আসছিলেন। ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে ৬৩ হাজারেরও বেশি রাশিয়ান সামরিক কর্মী সিরিয়ায় মোতায়েন করেছে, মস্কো বলছে, তবে বর্তমানে কতজন অফিসার সেখানে অবস্থান করছেন তা স্পষ্ট নয়।

সিরিয়ায় রাশিয়ার পরিত্যক্ত বিমান ঘাঁটি ইরানের সামরিক-রাজনৈতিক সংস্থা, ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পস এবং যোদ্ধা গোষ্ঠী হিজবুল্লাহর কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, 8 মে তেহরানে সিরিয়ার শাসক নেতা বাশার আল আসাদের আকস্মিক সফর ইঙ্গিত দেয় যে তিনি ইরানকে আরও সমর্থনের জন্য আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছেন কারণ তার অন্য প্রধান অংশীদার রাশিয়া সেনা প্রত্যাহার শুরু করেছে।

মস্কো-ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ লিওনিড সাভিন বলেছেন যে, রাশিয়ার প্রত্যাহারের খবরটি মস্কোর বিরুদ্ধে ইউরোপীয় দেশগুলির মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধের অংশ। তবে রাশিয়ার কাছে এমন খবর গোপন রাখার কারণও রয়েছে। প্রথমত, তারা এটিকে দুর্বলতা হিসাবে দেখাতে চায় না এবং দ্বিতীয়ত, এটি ইসরাইলকে প্রান্তে রাখতে চায় না কারণ তেল আবিব দীর্ঘদিন ধরে সিরিয়ায় রাশিয়ান সৈন্যের অনুপস্থিতিতে ইরান-সমর্থিত মিলিশিয়াদের উত্থানের আশঙ্কা করেছিল।

সিরিয়ার বিরোধী যোদ্ধাদের ক্রমাগত প্রতিরোধের মুখে আসাদের টিকে থাকা নিশ্চিত করতে রাশিয়া এবং ইরান উভয়ই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ইরান যখন আসাদকে সমর্থন করার জন্য শিয়া মিলিশিয়াদের পাঠিয়েছিল, রাশিয়া তার ফাইটার জেট দিয়ে তাকে সমর্থন করেছিল। কিন্তু কয়েক বছর ধরে, রাশিয়া এবং ইরান উভয়ই সিরিয়ায় প্রভাব বিস্তারের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে, বিশেষ করে লাভজনক খনি ও নির্মাণ চুক্তি নিয়ে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, রাশিয়া মার্কিন-সমর্থিত অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার উত্তাপ অনুভব করে এবং তার সামরিক বাহিনী দীর্ঘস্থায়ী সংঘাতের মতো মনে হচ্ছে, ইরান সিরিয়ায় তার অবস্থান শক্তিশালী করার চেষ্টা করতে পারে। ইরান ইতিমধ্যে সিরিয়ায় শিয়া মিলিশিয়াদের অর্থায়ন ও পরিচালনা করে যেখানে তারা আসাদের স্থল বাহিনীকে সমর্থন দেয় যারা বিরোধী যোদ্ধাদের সাথে দীর্ঘ এবং রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করেছে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘রাশিয়া তার জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকির সম্মুখীন হওয়া বন্ধ করার জন্য সামরিক-প্রযুক্তিগত এবং অন্যান্য প্রকৃতির উভয় ধরনের প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবে।’ এদিকে, ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, ফিনল্যান্ডের ন্যাটো বিড অনুশোচনার কারণ হবে। সূত্র: দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট, টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Zakir Hossen ১৩ মে, ২০২২, ১০:০৬ পিএম says : 0
আমেরিকা বিশ্বের সবচাইতে বড় সন্রাসী রাষ্ট্র ইসরায়েলকে অস্র ও অর্থ দিয়ে সন্রাসে মদদ দেওয়ার বিশ্বে আমেরিকার জনপ্রিয়তা শুন্যের কোটায়।
Total Reply(0)
Khondaker Shahjahan ১৩ মে, ২০২২, ৫:১১ পিএম says : 0
আমেরিকার উস্কানি থেকে রাশিয়া- ইউক্রেন যুদ্ধ সৃষ্টি হয়েছে। রাশিয়া তার নিজস্ব প্রয়োজনে সিরিয়া থেকে তার সেনাবাহিনী প্রত্যাহার করতে পারে। এ শূন্যস্হান ইরান পূরণ করতে সক্ষম মধ্যপ্রাচ্যে ইরানীয়ান প্রভাব বৃদ্ধির প্রয়োজন। এতে আমেরিকার মধ্যপ্রাচ্যের প্রভূত্ব হ্রাস পাবে এবং ঐ অন্চলটি হতে আমেরিকার বিদায় আসন্ন হবে।
Total Reply(0)
Md.bulbul Ahmed ১৪ মে, ২০২২, ১১:২৩ এএম says : 0
মধ্যপ্রাচ্য থেকে আমেরিকাকে হটাও। মধ্যপ্রাচ্য বাঁচাও
Total Reply(0)
Mohiuddin molla ১৪ মে, ২০২২, ৬:৫৫ এএম says : 0
ঠিক কাজ হচ্চে।
Total Reply(0)
রাশেদ এয়াকুব ১৪ মে, ২০২২, ৪:৫৩ পিএম says : 0
সিরিয়াকে ইরানের হাতে ছেড়ে দিলে ভালই হবে কিন্তু লিবিয়াকে কার হাতে ছেড়ে যাচ্ছে? ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব পৃথিবীর প্রতিটি অঞ্চলে একেকরকম ভাবে পড়তে যাচ্ছে। গত ৫০ বছরে আর কোন যুদ্ধ বিশ্বকে এতটা নাড়া দেয়নি। তাই একে অঘোষিত বিশ্বযুদ্ধও বলা যেতে পারে।
Total Reply(0)
রেজাউল করিম ১৪ মে, ২০২২, ৯:০৭ এএম says : 0
আমেরিকার একক কর্তৃত্বের অবসান দরকার। বিশ্বে ক্ষমতার ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য আমেরিকা বিরোধী জোট গঠিত হ‌ওয়া জরুরি।
Total Reply(0)
Mir ১৪ মে, ২০২২, ৭:০৬ পিএম says : 0
Russia good working so Iran is best strong country so Israel criminal country filing is Iran
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন