সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ন্যায্য দামে পণ্য মিলছে না

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

নিত্যপণ্যের দাম এখন আর সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে নেই। ধীরে ধীরে সবকিছুই ঊর্ধ্বমুখী। ন্যায্যদামে পণ্য মিলছে না কোথাও। সবধরণের পণ্যেই কমবেশি দাম বেড়েছে। এনিয়ে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা পড়েছেন বিপাকে। প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন জিনিসের দাম বাড়ছে। অন্যদিকে বাড়ছে না আয়। তাই খরচ সীমিত করেও উপায় দেখছেন না অনেকেই। গেলো রমজানের মাঝামাঝি সময় (১৯ এপ্রিল) থেকে চলতি মাসের ১৯ মে পর্যন্ত এক মাসে বাজারে শুধু ব্রয়লার মুরগি ছাড়া কোনো নিত্যপণ্যের দাম কমেনি। বেড়েছে অধিকাংশ পণ্যের দাম। তবে কিছু নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীলও রয়েছে। ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) বাজারের ৩২ ধরনের খাদ্যপণ্যের দামের ওঠা-নামার হিসাব রাখে। সংস্থাটির গত এক মাসের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এ সময়ের ব্যবধানে বাজারে ৩২ খাদ্যপণ্যের মধ্যে বেড়েছে ১৯টির দাম। কমেছে শুধু একটি পণ্যের দাম। স্থিতিশীল রয়েছে ১২টির।

টিসিবি বলছে, এক মাসের ব্যবধানে বাজারে মোটা চাল, আটা, ময়দা, সয়াবিন, পাম অয়েল, মসুর ডাল, ছোলা, আলু, পেঁয়াজ, রসুন, শুকনা মরিচ, হলুদ, আদা, জিরা, তেজপাতা, গুড়া দুধ, চিনি ও ডিমের দাম বেড়েছে। বাজারে শুধুমাত্র কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম, যা গত মাসের থেকে বর্তমানে কেজিতে ৫ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা এখন সব থেকে বেশি দামে বিক্রি করছেন গাজর। বাজার ও মান ভেদে এই সবজিটির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১২০ টাকা। এক সপ্তাহ আগে গাজরের কেজি ছিল ৬০ থেকে ৭০ টাকা। দাম বাড়ার ফলে এখন কিছু সবজির কেজিপ্রতি ‘সেঞ্চুরি’ স্পর্শ করেছে। এছাড়া আরও কয়েকটি সবজি ‘সেঞ্চুরি’ ছোঁয়ার অপেক্ষায়। বাকি সবজিগুলোর দামও বেশ চড়া। ছাড়িয়েছে ‘হাফ সেঞ্চুরি’। এর নিচে হাতে গোনা দুই একটি সবজি পাওয়া যাচ্ছে।

দাম বাড়ার এ তালিকায় রয়েছে বরবটি ও কাঁকরোল। গত সপ্তাহে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বরবটির দাম বেড়ে এখন ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। আর কাঁকরোলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এক সপ্তাহ আগে এই সবজিটির কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকার মধ্যে ছিল।
নতুন করে দাম না বাড়লেও বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা। একই দামে বিক্রি হচ্ছে করলা। কাঁচা পেঁপের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা। কাঁচা কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা।

এ সবজিগুলোর দাম সপ্তাহের ব্যবধানে না বাড়লেও পটল, ঢেঁড়স, ঝিঙে, চিচিঙ্গার দাম কিছুটা বেড়েছে। পটলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০ থেকে ৪০ টাকা। ঢেঁড়সের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০ থেকে ৪০ টাকা। ঝিঙে ও চিচিঙ্গার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০ থেকে ৪০ টাকা।

সবজির দামের বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে ক্রেতারা বলেন, একের পর এক জিনিসের দাম বাড়ছে। কিন্তু আমাদের আয় তো বাড়ছে না। বাজারে ৫০ টাকার নিচে এখন সবজি পাওয়া যাচ্ছে না। গত সপ্তাহে চিচিঙ্গার কেজি ছিল ৩০ টাকা, এখন ৫০ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে। সবকিছুর দাম এভাবে বেড়েছে।
এদিকে গত সপ্তাহে বেড়ে যাওয়া রসুন এখনো বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা। আমদানি করা রসুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। খোলা সয়াবিন তেলের কেজিও গত সপ্তাহের মতো কেজি বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকা। পাম অয়েলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৯৫ থেকে ২০০ টাকা। আর বোতলের পাঁচ লিটার সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৯৮০ থেকে ৯৮৫ টাকা।
তবে সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পেঁয়াজ এখন ৪০ থেকে ৪৫ বিক্রি হচ্ছে। তবে কোনো কোনো ব্যবসায়ী ৩৫ টাকা কেজিতেও পেঁয়াজ বিক্রি করছেন।

এদিকে ঈদের আগে কেজি ৭০০ টাকা উঠে যাওয়া গরুর গোশতের দামে কোনো পরিবর্তন আসেনি। বেশিরভাগ ব্যবসায়ী গরুর গোশতের কেজি ৭০০ টাকা বিক্রি করছেন। তবে মহল্লার সাপ্তাহিক ব্যবসায়ীরা গরুর গোশতের কেজি বিক্রি করছেন ৭২০ টাকা কেজি দরে।
গরুর গোশত বাড়তি দামে বিক্রি হলেও ব্রয়লার মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। ব্রয়লার মুরগির দাম কমে এখন ১৬৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৭০ টাকা। আর ঈদের আগে ছিল ১৮০ থেকে ১৮৫ টাকা। তবে সোনালী মুরগির কেজি আগের মতো ৩০০ থেকে ৩৪০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

ব্রয়লার মুরগির দাম কমার বিষয়ে রামপুরার ব্যবসায়ী মো. সাদ্দাম বলেন, ব্রয়লার মুরগি সাধারণত স্বল্প আয়ের মানুষেরা কেনেন। সবকিছুর দাম বাড়ার কারণে এখন অনেকে খাওয়া কমিয়ে দিয়েছেন। আমাদের ধারণা এ কারণে ব্রয়লার মুরগির চাহিদা কমেছে। এ কারণেই ব্রয়লার মুরগির দাম এখন কমতির দিকে।

মাছ বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মাছের দামে তেমন পরিবর্তন আসেনি। রুই মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা। এক কেজি ওজনের ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৩০০ থেকে এক হাজার ৬০০ টাকা। এছাড়া ৫০০-৬০০ গ্রামের ইলিশের কেজি ৫০০ থেকে ৬০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। তেলাপিয়া, পাঙাস মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা। শিং মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪৬০ টাকা। শোল মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা। কৈ মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৩০ টাকা। পাবদা মাছের কেজি ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (9)
Mohammad Abul Bashar ২১ মে, ২০২২, ৩:২৬ এএম says : 0
পৃথিবীতে বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যেখানে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়লেও মূল্যস্ফীতির হার কমে। এটা অর্থনীতির নতুন থিওরী!
Total Reply(0)
Md.yashin Arafat ২১ মে, ২০২২, ৩:২৬ এএম says : 0
অযোগ্য ও অপদার্থ লোকজন দেশের গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকলে, এরচেয়ে ভাল আর কি আশা করা যায়‌
Total Reply(0)
Md Masum ২১ মে, ২০২২, ৩:২৬ এএম says : 0
জনগনকে আইওয়াস করে আর কতোদিন রাখবেন।গণবিস্ফোরণ যখন হবে তখন আশীর্বাদ অভিশাপে পরিনত হবে।
Total Reply(0)
Sadekul Islam ২১ মে, ২০২২, ৩:২৭ এএম says : 0
ভাত দে নইলে, পদ্মা সেতু গিলে খাব।
Total Reply(0)
Rubel Ahmed ২১ মে, ২০২২, ৩:২৭ এএম says : 0
আমরা পদ্মা সেতু গিলে খাবো, আমরা উন্নয়ন গিলে খাবো। সমস্যা নাই দেশ ডিজিটাল হচ্ছে তো
Total Reply(0)
Afjal Hossain ২১ মে, ২০২২, ৩:২৭ এএম says : 0
ভয়ংকর পরিনতি অপেক্ষা করছে সামনে আল্লাহ মালিক
Total Reply(0)
Md Rahibul Islam ২১ মে, ২০২২, ৩:২৮ এএম says : 0
দেশ সিঙ্গাপুর হচ্ছে,ভুলক্রমে শ্রীলঙ্কা হলে এর দায় ভার বিএনপি
Total Reply(0)
Zulfiker Raihan ২১ মে, ২০২২, ৩:২৮ এএম says : 0
বাজারে গেলেতো হিসাব মিলেনা...চালের,দাম বাড়তি, আটার দাম বাড়তি, তেলের দাম বাড়তি...
Total Reply(0)
Yousman Ali ২১ মে, ২০২২, ৯:০১ এএম says : 0
আসলে সব দেশেই জিনিসের দাম বেশি তবে বাংলাদেশে অশিক্ষিত রাজনৈতিকরা আরো বেশি
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps