সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৯ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

সারা বাংলার খবর

নেছারাবাদে যুবক খুনের মামলায় আপন দুই ভাইয়ের যাবজ্জীবন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০২২, ৬:১০ পিএম

পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলায় জাকির হোসেন (২২) নামে এক যুবককে খুনের দায়ে আপন দুই ভাইকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ সোমবার (২০ জুন) বিকেলে জেলা ও দায়রা জজ মো. মুহিদুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করেন। কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন বাদশা শেখ (৫০) ও তার আপন ভাই কাইউম শেখ (৪৫) নেছারাবাদ উপজেলার সোহাগদল ইউনিয়নের সোহাগদল গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নান শেখের ছেলে।

বাদী পক্ষের আইনজীবী পিপি অ্যাডভোকেট খান মো. আলাউদ্দিন জানান, নেছারাবাদ উপজেলার সোহাগদল গ্রামের আব্দুর রশিদের বাড়ির সীমানা নিয়ে বাদশা শেখের পরিবারের বিরোধ ছিল। ২০১২ সালের ৩০ অক্টোবর বিকেলে স্থানীয় কামালের চায়ের দোকানের বিরোধের জমি নিয়ে সালিস হয়। সালিস চলাকালে আব্দুর রশিদের ছেলে জাকির হোসেনের সঙ্গে আসামিদের ঝগড়া হয়। এ সময় আব্দুর রশিদ ও তার তিন ছেলে জাকির হোসেন, মো. সুমন ও মামুন হোসেনকে মারপিট করেন আসামিরা। তিনি আরও জানান, আসামি বাদশা শেখের লাঠির আঘাতে জাকির হোসেন মাথায় আঘাত পেয়ে আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় জাকির হোসেনকে উদ্ধার করে প্রথমে নেছারাবাদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

পরদিন ৩১ অক্টোবর জাকির হোসেনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১ নভেম্বর দুপুরে তিনি মারা যান। পরে ২ নভেম্বর নিহত জাকির হোসেনের বাবা আব্দুল মিয়া বাদী হয়ে বাদশা শেখকে প্রধান আসামি করে ১২ জনের বিরুদ্ধে নেছারাবাদ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবর মামলাটি তদন্ত শেষে পুলিশ সাত আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট কানাই লাল বিশ্বাস জানান, এই মামলার এজাহারে লোহার রড থেকে আঘাত উল্লেখ থাকলেও সাক্ষীরা চাম্বল কাঠ দিয়ে আঘাতের কথা বলেছেন। এখানে মামলার সাক্ষীদের কথার সঙ্গে এজাহারের গড়মিল পাওয়া যায়। নিরপেক্ষ সাক্ষী দ্বারা ঘটনাটি পরিষ্কার না হওয়ায় আসামি পক্ষ সঠিক বিচার পাওয়ার জন্য এই রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন