রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৯, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

ইমরান খানের মতো চ্যালেঞ্জ করার সাহস আগে কেউ করেনি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুলাই, ২০২২, ১২:০২ এএম

‘প্রথমে তারা আপনাকে উপেক্ষা করে, তারপর তারা আপনাকে নিয়ে হাসাহাসি করে, তারপর তারা আপনার সাথে যুদ্ধ করে, তারপর আপনি জয়ী হন’। এটা সঠিক। আপনি জিতবেন, প্রতিক‚লতা যাই হোক না কেন। আমেরিকান ট্রেড ইউনিয়নবাদী নিকোলাস ক্লেইন সঠিক ছিলেন।

আমাদের সমস্ত সুপ্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক রাজবংশ ইমরান খানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাহিনীতে যোগ দিয়েছে, যাকে প্রথমে ধূর্ত হিসাবে বরখাস্ত করা হয় এবং তারপরে পাগলাবাজ উপহাসের পাত্র হিসাবে ঠাট্টা করা হয়।
খান একাকী ক্রুসেডারের মতো যুদ্ধ করেন। তিনি তার ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে ক্রুসেড’-এ ‘দুষ্কৃতকারীদের দল’ এর সাথে লড়াই করেন। চিকিৎসকরা স্পিনিংয়ের মুখোমুখি হয়েছেন। তিনি এমন চ্যালেঞ্জ করেন যা আগে কেউ চ্যালেঞ্জ করার সাহস করেনি। তিনি ‘দীর্ঘস্থায়ী দুর্নীতি’ ব্যবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করেন। এ প্রক্রিয়ায় তিনি সবার বিরোধিতা করেন। তাকে নামানোর জন্য সবাই জড়ো হল এবং তার ‘অপমানজনক’ প্রস্থান এবং ইসলামাবাদে একটি ব্যর্থ পদযাত্রার পরে তার সমালোচকরা তাকে বরখাস্ত করল।

কিন্তু খান হাল ছাড়বেন না। অবিরত তার দলের অনুগতরাও তাই করেছেন। খান নিশ্চিত ছিলেন যে, স্থানীয় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় তার সরকারের পতন ঘটানো হয়নি। তিনি নিশ্চিত ছিলেন যে, এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত একটি শাসন পরিবর্তনের অভিযান, যা তার স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতিতে সন্তুষ্ট ছিল না।

তার গল্পে কেউ বিশ্বাস করেনি। অথবা তারা চায়নি। ক্ষমতাসীন জোট তাকে ‘খানের কল্পনার রূপকল্প’ বলে উপহাস করেছে। নিরাপত্তা সংস্থা এটিকে উপাদানের অভাব বলে বর্ণনা করেছে। আদালত রায় দিয়েছে যে, কোনো সমর্থনযোগ্য প্রমাণ নেই’। তবে পিটিআই দলের সমর্থকরা খানের মতোই আত্মবিশ্বাসী ছিলেন।
পাঞ্জাবের ২০টি নির্বাচনী এলাকায় সা¤প্রতিক উপনির্বাচন খানের গল্প একটি ভালো পরীক্ষা হিসেবে কাজ করেছে। সমস্ত বিশ্লেষণ, সমস্ত মূল্যায়ন এবং সমস্ত অনুমান পিএমএল-এন-এর জন্য একটি সহজ রূপান্তর প্রক্রিয়া নির্দেশ করে যা প্রায় এক ডজন জোট অংশীদারদের সমর্থনে উন্নত করা হয়েছিল। খানের মতে, ‘মিস্টার এক্স’ এবং ‘মিস্টার ওয়াই’ও উচ্চ বাজি ধরে তাদের গ্রæপে ছিলেন যাতে পিএমএল-এনের জয় নিশ্চিত করা যায়।
কিন্তু পিটিআই সবাইকে হতবাক করে দিয়েছে। তিনি প্রমাণ করেছেন যে, সমস্ত বিশ্লেষণ, সমস্ত মূল্যায়ন এবং সমস্ত ভবিষ্যদ্বাণী ভুল। এটি পাঁচটি আসন ছাড়া সবকটি আসন দখল করেছে। শরীফ এবং তাদের সহযোগীরা নিশ্চয়ই হতবাক হয়ে গেছে। নির্বাচনী পরাজয় শুধুমাত্র পাঞ্জাবে হামজা শাহবাজের পলায়নপর সরকারের ভাগ্যেই সীলমোহর করেনি বরং তার পিতা শাহবাজ শরীফের নেতৃত্বে কেন্দ্রে জোট গঠনকেও বিপন্ন করে তুলেছে।
এটি কেবল একটি জমকালো নির্বাচনী বিজয় ছিল না। তিনি খানকে নতুনভাবে উদ্ভাবন করেন, তার রাজনীতিকে পুনর্নির্মাণ করেন এবং একাধিক উপায়ে তার সংগ্রামকে পুনরুজ্জীবিত করেন।

প্রথমত, এটি গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, যদি খানের বিরোধীদের পূর্ববর্তী বর্ণনা খারিজ না করা হয় যে, তিনি পিটিআই-এর পক্ষে ২০১৮ সালের নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে নিরাপত্তা সংস্থার দ্বারা ‘নির্বাচিত’ হয়েছিলেন। বিচার বিভাগ ন্যাশনাল ইক্যুইটি পার্টির এমপিদের আসন বাতিল করার পর যে বিশটি আসন খালি হয়ে গিয়েছিল, যারা খানকে ক্ষমতাচ্যুত করার পরে পাঞ্জাবের দলকে ধ্বংস করে দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। তারা পিটিআই টিকিটে গত নির্বাচনে জিতেছিল কিন্তু পিএমএল-এন প্রার্থী হিসাবে উপনির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করার সময় একই আসনে পরাজিত হয়েছে। জনগণ আবার খানের দলকে ভোট দিয়েছে। এর মানে এখানে পিটিআইয়ের আগের জয়টাও ইঞ্জিনিয়ারড ছিল না।

দ্বিতীয়ত, এটি দেখায় যে, পাঞ্জাব আর শরীফদের অন্তর্গত নয়, যারা ঐতিহ্যগতভাবে এই নেতৃস্থানীয় প্রদেশের মধ্য ও উত্তর প্রদেশ থেকে তাদের রাজনৈতিক ক্ষমতা টেনে এনেছে। জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (একেপি) দক্ষিণ, মধ্য এবং উত্তর পাঞ্জাবের সবচেয়ে জনপ্রিয় দল হিসেবে আবির্ভ‚ত হয়েছে। দলটি লাহোর শরীফ ফোর্টের চারটি আসনের মধ্যে তিনটিতে জয়লাভ করে। এটি একটি ভোঁতা জাগরণ ছিল, এটা উচিত নয়। লিবার্টি চকে খানের অভিশংসনের পরে ব্যাপক জৈব এবং স্বতঃস্ফ‚র্ত বিক্ষোভ পিএমএল-এনকে এ নতুন বাস্তবতায় জাগ্রত করে বলে মনে করা হয়েছিল।

তৃতীয়ত, খানের অ্যাকাউন্ট ভোটারদের দ্বারা গ্রহণ করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে, বিশেষ করে শিক্ষিত মধ্যবিত্তরা। এ উপন্যাসটি চারটি বিষয়কে কেন্দ্র করে আবর্তিত হয়েছে: ১. খান আমেরিকার প্রতিশোধের মুখোমুখি হয়েছিলেন তার হুকুম অমান্য করতে এবং একটি স্বাধীন পররাষ্ট্রনীতির গতিপথ লেখতে। ২. পাকিস্তানের রাজনৈতিক দলগুলো তার সরকারকে পতনের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যোগসাজশ করেছিল, এইভাবে রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বকে বিপন্ন করে। ৩. খানই পাকিস্তানের একমাত্র ভরসা এবং ৪. শুধুমাত্র তিনিই বেসামরিক সার্বভৌমত্বের স্বার্থে নিরাপত্তা সংস্থার কাছে দাঁড়াতে সক্ষম।

চতুর্থত, এটি ভোটারদের ক্রমবর্ধমান পরিপক্কতা এবং রাজনৈতিক সচেতনতা নির্দেশ করে। তারা শুধুমাত্র তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগের জন্য [কিছু নির্বাচনী এলাকায় ৬০ শতাংশ পর্যন্ত] বিপুল সংখ্যায় উপস্থিত হননি বরং তাদের ভোটকে জালিয়াতির বিরুদ্ধেও রক্ষা করেছেন। তারা ‘সুবিধাবাদী’ এবং ‘নির্বাচিত’দের প্রত্যাখ্যান করেছে এবং একটি আদর্শের পক্ষে ভোট দিয়েছে। এটি আমাদের নতুন গণতন্ত্রের ভবিষ্যতের জন্য একটি শুভ লক্ষণ।
পঞ্চমদ, খান প্রমাণ করেছেন যে, তার দল কোটিপতিদের কাছে জিম্মি হতে পারে না যারা তাদের ভাগ্য বৃদ্ধির জন্য রাজনীতিতে যোগ দেয়। খান হয়তো জাহাঙ্গীর তারিন এবং আলীম খানের উদারতা থেকে অনেক উপকৃত হতেন, যারা এক সময় পিটিআই-এর ‘এটিএম’ নামে পরিচিত ছিল, কিন্তু যখন তাকে নির্বাচন করতে হয়েছিল তখন তিনি তার নীতির সাথে আপস করেননি। কারণ তিনি জানতেন যে, তার আদর্শিক সমর্থকরা তাদের অনুদান দিয়ে দলকে অর্থায়নে এগিয়ে যাবে।

তবে এই জয়ে খানের জন্যও একটি শিক্ষা রয়েছে। একটি নীতিহীন বিরোধী জোটের ক্ষমতা দখল একটি আল্লাহপ্রেরিত ছিল, কারণ তিনি যদি তার মেয়াদে থাকতেন তবে আসন্ন নির্বাচনে তার পারফরম্যান্স রক্ষা করার জন্য তার খুব কমই সুযোগ থাকত। ‘ভোট কো ইজ্জত দাও’ আখ্যান ত্যাগ করা এবং পিটিআই সরকারকে উৎখাত করা যখন ‘সুযোগ’ উপস্থিত হয়েছিল তখন বিরোধীদের, বিশেষ করে পিএমএল-এনকে একটি ভারী মূল্য দিতে হয়েছিল।

তার নিজের স্বীকৃতি মতো ইমরান খান ক্ষমতায় থাকাকালীন প্রকৃত ক্ষমতা প্রয়োগ করেননি। তার সরকারকে অন্যত্র গৃহীত সিদ্ধান্তের ফল ভোগ করতে হবে। গণতন্ত্রে জনগণই ক্ষমতার একমাত্র বৈধ উৎস। বিদ্যমান কর্তৃপক্ষের সাথে ‘একই পৃষ্ঠায়’ থাকার স্থান ত্যাগ করা কেবল অগণতান্ত্রিক শক্তিকে শক্তিশালী করবে এবং নাগরিক আধিপত্যকে দুর্বল করবে। নড়বড়ে ভিত্তির ওপর নির্মিত সরকার সর্বদা ‘মিস্টার এক্স’ এবং ‘মিস্টার ওয়াই’ এবং বিদেশের প্লটের জন্য দুর্বল থাকবে। সূত্র : এক্সপ্রেস ট্রিবিউন। (নাভিদ হুসাইনের বিশ্লেষণ)

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Harunur Rashid ২২ জুলাই, ২০২২, ৮:৪৪ এএম says : 0
Bangladesh need an Bangladeshi IK. Need to get rid off clan politics.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন