সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

‘মোরা’য় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান পীর সাহেব চরমোনাই’র

পরিত্রাণ পেতে তওবা ও ইস্তেগফার করতে হবে

| প্রকাশের সময় : ২ জুন, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ এর আঘাতে দেশের উপকূলীয় এলাকায় আটের অধিক মানুষের মৃত্যু এবং হাজার হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে মানবেতর জীবন-যাপনে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।
গতকাল বিবৃতিতে পীর সাহেব বলেন, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন উপকূলে ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’র আঘাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ পর্যন্ত নারী ও শিশুসহ আটজন নিহত এবং শত শত বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। অসংখ্য মাছের ঘের, গাছ-পালা, ফসল ফলাদি উড়ে গেছে, জোয়ারের পানিতে কক্সবাজারসহ বিভিন্ন নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের হাত থেকে বাঁচতে যারা আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছিল তাদের অবস্থাও করুণ। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও খাবারের তীব্র সংকটের কারণে দুর্গতরা মানবেতর জীবন যাপন করছে।
পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, সাইক্লোন সেন্টারে যারা আশ্রয় গ্রহণ করেছে তাদের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি, আহত ও অসুস্থদের জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এবং গৃহহীন লোকদের জন্য গৃহ নির্মাণ সামগ্রী ও নিহতদের পরিবার-পরিজন এবং ক্ষতিগ্রস্তদের উপযুক্ত পরিমাণ আর্থিক সাহায্য প্রদান করতে হবে। তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন, সমাজের বিত্তবান ও সংগঠনের নেতাকর্মীসহ সকলের প্রতি আহবান জানান। একই সাথে এই দুর্যোগ থেকে জনগণের জান-মালের হেফাজতের জন্য মহান আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার ও বেশি বেশি দু’আ দরুদ পড়ার  আহ্বান জানান।
মূর্তি নিয়ে নতুন করে চক্রান্ত বন্ধ না হলে কঠোর আন্দোলন: ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর উত্তর
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ ও সেক্রেটারী মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন এক বিবৃতিতে বলেছেন, মূর্তি অপসারণের একদিন পর সুপ্রিমকোর্টের এ্যানেক্স ভবনের সামনে পুন:স্থাপন করে নতুন চক্রান্ত শুরু হয়েছে। এই চক্রান্ত বন্ধ না হলে কঠোর আন্দোলন শুরু হবে। কতিপয় মূর্তিপ্রেমীদের জন্য বিরানব্বই ভাগ মুসলমানদের ঈমান ও বোধ বিশ্বাসে আঘাত করার পরিণাম ভাল হবে না। মসজিদের নগরীকে মূর্তির নগরী বানাতে দেয়া হবে না। কুলাঙ্গার মৃণাল হককে গ্রেফতার করলে মূর্তির আসল রহস্য বের হবে। মূর্তিপ্রেমীরা মুসলমান নয়, তারা ইসলামের দুশমন। তারা মুশরিক। মুশরিকদের বয়কট করতে হবে। মূর্তি সরাতে হবে। শুধু গ্রিক দেবীর মূর্তি নয়, এখন সকল মূর্তিই ধ্বংস করতে হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন