ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

বারহাট্টায় সেচের স্কিম নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা

প্রকাশের সময় : ২৮ জানুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

নেত্রকোনা জেলা সংবাদদাতা : চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে গভীর নলকূপ স্কিমের সেচের আওতাভূক্ত জমিতে নিয়ম বর্হিভূতভাবে অন্য একটি স্কিমের লোকজন জোরপূর্বক ঢুকে সেচ কাজ পরিচালনা করায় এ নিয়ে যে কোন সময় দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। জানা যায়, নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলার বাউসী ইউনিয়নের আথানগর গ্রামের মৃত আব্দুল হক ভূঁইয়ার পুত্র এরশাদুল হক ভূঁইয়া সরকারি বিধি মোতাবেক বারহাট্টা বিআরডিবি ও উপজেলা সেচ কমিটির অনুমোদন নিয়ে ১৯৮৭ সাল থেকে আথানগর মৌজায় স্কিমের আওতাভূক্ত জমিতে সেচ কার্য পরিচালনা করে আসছে। সম্প্রতি পার্শ¦বর্তী দেবীপুর গ্রামের মৃত মুসলেম উদ্দিনের পুত্র আব্দুছ ছাত্তার বারহাট্টা কৃষি অফিস থেকে নোয়াগাঁও মৌজার ছাড়পত্র নিয়ে সরকারি নিয়ম-নীতি না মেনে পল্লী বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগ নিয়ে দেবীপুর মৌজায় সেচ কাজ পরিচালনা না করে আথানগর মৌজায় এরশাদুল হক ভূঁইয়ার সেচ স্কিমের আওতাভূক্ত জমিতে ড্রেন ভেঙ্গে জোরপূর্বক সেচ কাজ পরিচালনা শুরু করে। বিষয়টি জানতে পেরে এরশাদুল হক ভূঁইয়ার ছোট ভাই গভীর নলকূপ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা আতিকুল হক ভূঁইয়া ও তার কাজের লোক সাদেক মিয়া বাধা দিতে গেলে আব্দুছ ছাত্তার গংরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়েতাদের উপর আক্রমণ করে। তারা কোন ক্রমে দৌড়ে পালিয়ে প্রাণে রক্ষা পায়। এ নিয়ে দুই স্কিমের লোকজনের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিয়ে যে কোন সময় দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। আথানগর গ্রামের সেচ স্কিম পরিচালক এরশাদুল হক ভূঁইয়া এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বারহাট্টা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও বিআরডিবি’র চেয়ারম্যানের বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বিআরডিবি’র চেয়ারম্যান শেখ ওয়ারেছ উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমি বারহাট্টা বিআরডিবি’র কর্মকর্তা শাহ্ সোহায়েব আহমেদকে সাথে নিয়ে সরেজমিনে স্কিম এলাকা পরিদর্শন করে দেখেছি। আব্দুছ ছাত্তার নিয়ম বর্হিভূতভাবে অন্যের এলাকায় জোরপূর্বক স্কিম পরিচালনা করছে। আমি ও বিআরডিবি কর্মকর্তা এ ব্যাপারে বারহাট্টা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবরে লিখিত প্রতিবেদন দাখিল করেছি। বারহাট্টা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মানিক আজাদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিএডিসি সেচ বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন