ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

অভ্যন্তরীণ

আতঙ্কে নিরীহ জয়নাল আবেদীন

মামলা প্রত্যাহার না করায় হত্যার হুমকি

স্টাফ রিপোর্টার, নরসিংদী থেকে | প্রকাশের সময় : ১৭ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

এসিড নিক্ষেপ করে ঝলসে দেওয়ার পর এবার খুন করার হুমকি দিচ্ছে জয়নাল আবেদীনকে। এসিড মামলার আসামিদের ভয়ে জয়নাল আবেদীন এখন সার্বক্ষণিক আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠার মধ্যে দিনাতিপাত করছে। সম্ভাব্য হামলার আশঙ্কায় জয়নাল আবেদীন কোন কাজ করতে পারছে না। আসামিদের হাত থেকে বাঁচার জন্য গতকাল মনোহরদী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছে জয়নাল আবেদীন।
মনোহরদী উপজেলার উরুলিয়া গ্রামের মৃত বাশির উদ্দিনের পুত্র এই জয়নাল আবেদীন সিএনজি চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। লেবাননে নেয়ার কথা বলে একই গ্রামের তাজুল ইসলাম, হানিফা, আক্কাস আলী, জুয়েল মিয়া, শামসুদ্দিন গংরা তার কাছ থেকে চার লাখ টাকা নেয়। কিন্তু লেবাননে জয়নাল আবেদীন কোন কাজ পাইনি। উপরন্তু বিভিন্ন শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়ে সেখান থেকে ফিরে আসে।
এ ব্যাপারে বড় চাপা ইউপি চেয়ারম্যান মধ্যস্থতায় বিবাদীদের ওপর তিন লাখ টাকা জয়নাল আবদীনকে ফিরিয়ে দেয়ার রায় হয়। রায়ের পর আক্কাস আলী, জয়নাল আবেদীনকে নগদ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করে আর কোন টাকা দেয়নি। এই ঘটনা নিয়ে উভয় পক্ষে দ্ব›দ্ব-কলহ সৃষ্টি হলে জয়নাল আবদীন ও তার স্ত্রী দু’জনে মিলে ঘটনাটি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানাতে যায়। ২০১৬ সালের ২৪ নভেম্বর রাতে চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে নিজ বাড়ি ফেরার পথে রাত সাড়ে নয়টায় আসামিরা তাদের পথরোধ করে এসিড নিক্ষেপ করে গাছের সাথে বেঁধে রাখে। এ সময় তার স্ত্রীর আর্তচিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে জয়নাল আবেদিনকে উদ্ধার করে মনোহরদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করে। এই ঘটনায় মনোহরদী থানা পুলিশ মামলা না নেয়ায় জয়নাল আবদীন নরসিংদীর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করে। বিজ্ঞ বিচারক গণতন্ত্রের জন্য নরসিংদী সিআইডিকে দায়িত্ব দেন। দীর্ঘ দু’বছর পর সিআইডি পুলিশ এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। এতে ঘটনা প্রমাণিত হলে আসামিরা জয়নালের উপর মারাত্মকভাবে ক্ষিপ্ত হয়। তারা বিভিন্নভাবে মামলা তুলে নেওয়ার জন্যে জয়নালকে চাপ দিয়ে থাকে। জয়নাল কোনক্রমেই মামলা তুলে নিতে রাজি না হওয়ায় আসামীরা এখন জয়নালকে হত্যা করাসহ বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করার হুমকি দিচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন