ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

সংস্কারহীন গোয়ালাবাজার-সৈয়দপুর সড়ক

দুই উপজেলাবাসীর চরম দুর্ভোগ

বালাগঞ্জ (সিলেট) থেকে আবুল কালাম আজাদ | প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০১৯, ১২:১০ এএম

সিলেটের ওসমানীনগরের গোয়ালাবাজার থেকে পাশবর্তী জগন্নাথপুর উপজেলার সাথে সংযোগ স্থাপনকারী ‘গোয়ালাবাজার-সৈয়দপুর সড়ক’র ভগ্নদশার কারণে দীর্ঘদিন ধরে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন দুই উপজেলার লাখ লাখ মানুষ। যোগাযোগ ব্যবস্থা খারাপ হওয়ার কারণে ব্যবসায়রা লোকসান দিচ্ছেন। দীর্ঘ প্রায় দশ বছর পর জগন্নাথপুর অংশের সাড়ে ১১ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার কাজ শুরু হলেও তা চলছে মন্তর গতিতে। অপরদিকে ওসমানীনগর সীমানার সাড়ে ৭ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারহীন অবস্থায় পড়ে আছে।

জানা যায়, প্রবাসী অধ্যুষিত ওসমানীনগর ও জগন্নাথপুর উপজেলার মধ্যে যোগাযোগের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ‘গোয়ালাবাজার-সৈয়দপুর সড়ক’। জগন্নাথপুর এলাকাবাসীকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের সাথে সংযোগস্থাপন করে দিয়েছে এই সড়ক। ১৯ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ওসমানীনগর সীমানায় সাড়ে ৭ কিলোমিটার এবং জগন্নাথপুর অংশে সাড়ে ১১ কিলোমিটার সড়ক রয়েছে।

আইনি জটিলতার কারণে প্রায় দশ বছর সংস্কারহীন পড়ে থাকে সড়করে জগন্নাথপুর অংশ। যার কারণে সড়কে অসংখ্য বড় বড় খানাখন্দ সৃষ্টি হয়ে যানবাহন চলাচলের প্রায় অনুপযোগি হয়ে পড়ে। চলতি বছরের শুরুতে সড়কের সংস্কার কাজ শুরু হলেও তা মন্তর গতিতে চলছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

অপরদিকে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে সড়কের ওসমানীনগরের অংশ সংস্কার কাজ হলে সংস্কারের বছর খানেক পর ভেঙে যেতে শুরু করে। গোয়ালাবাজার থেকে উমরপুর পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার সড়কে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য খানাখন্দ। সংস্কারের অভাবে এসব খানাখন্দ দিন বড় গর্তের আকার ধারণ করছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহনগুলো। এমন অবস্থায় এই সড়কে চলতে গিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে দুই উপজেলার বাসিন্দাদের। সড়কের ভগ্নদশার কারণে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে বাধ্য হচ্ছে অটোরিকশা চালকদের। অতিরিক্ত ভাড়া ও দুর্ভোগের কারণে অনেকে বাধ্য হয়ে এই সড়ক ব্যবহার ছেড়ে দিয়েছেন।

অটোরিকশা চালক আব্দুল খালেক বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কের অবস্থা খারাপ। পেটের দায়ে এই সড়ক দিয়ে গাড়ি চালাই অত্যন্ত ঝুকি নিয়ে। সড়কের জগন্নাথপুর অংশে কাজ চললেও ওসমানীনগর অংশে অসংখ্য খানাখন্দের ওপর দিয়ে চলতে গিয়ে ভয় হয়।

ওসমানীনগরের ব্যবসায়িক প্রাণকেন্দ্র গোয়ালাবাজারে রয়েছে সহ¯্রাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এই বাজার থেকে প্রতিবছর কোটি টাকার বেশি রাজস্ব পেয়ে থাকে সরকার। জগন্নাথপুর এলাকার অনেক মানুষ এই বাজার থেকেই তাদের প্রয়োজনীয় কেনাকাটা করে থাকেন। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে সড়কের ভগ্নদশার কারণে অনেকেই এই বাজার ছেড়ে দিয়েছেন। যার কারণে বিগত কয়েক বছর ধরে টানা লোকসানের হিসেব কষতে হচ্ছে ব্যবসায়িদের। এমন বক্তব্য বাজারের অধিকাংশ ব্যবসায়ির।

গেগায়ালাবাজার বডুক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পরিমল দেব বলেন, গোয়ালাবাজার সৈয়দপুর সড়কের দুরবস্থার কারণে গোয়ালাবাজারের ব্যবসায়ীরা দীর্ঘদিন ধরে লোকসানে রয়েছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী গোলাম সারওয়ার বলেন, আইনি জটিলতা কাটিয়ে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সড়কের কাজ শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ৫০ শতাংশ কাজ শেষে হয়েছে এবং আগষ্ট মাসের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করা হবে।
ওসমানীনগর উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী মোঃ আবু সাঈদ বলেন, সড়কের ওসমানীনগর অংশের সংস্কার কাজের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন