ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ০৩ ভাদ্র ১৪২৬, ১৬ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ব্রিটেনের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিলেন জনসন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ জুলাই, ২০১৯, ৫:২১ পিএম

ওয়াশিংটনে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতের পদত্যাগের জন্য ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী বরিস জনসনকে দায়ী করা হচ্ছে৷ বলা হচ্ছে, ট্রাম্পের সঙ্গে সুসম্পর্কের সংকীর্ণ স্বার্থে তিনি রাষ্ট্রদূতকে ‘বাসের নীচে ফেলে দিয়েছেন’৷

রাষ্ট্রদূত বনাম প্রেসিডেন্টের সংঘাতের পরিণতি কী হতে পারে, তা নিয়ে শুরু থেকেই সংশয় ছিল৷ কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাষ্ট্রদূতের সমর্থনে এগিয়ে আসায় কিছুটা আশার আলো দেখা গিয়েছিল৷ সম্ভাব্য হবু প্রধানমন্ত্রী সেই সম্ভাবনায় পানি ঢেলে দিতে আর শেষরক্ষা হলো না৷ রাষ্ট্রদূতকে হাল ছেড়ে দিয়ে পদত্যাগ করতে হলো৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ওয়াশিংটনে ব্রিটেনের রাষ্ট্রদূত কিম ডারোক এই নাটকের প্রধান দুই চরিত্র৷ ডারোক নিজের দায়িত্ব পালন করে ওয়াশিংটনের পরিস্থিতি সম্পর্কে ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিয়মিত রিপোর্ট পাঠিয়ে গেছেন৷ তাতে তিনি ট্রাম্প ও তার প্রশাসন সম্পর্কে অনেক অপ্রিয় মন্তব্য করেছেন৷ বিষয়টি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় ট্রাম্প রোষে ফেটে পড়েন এবং ডারোক-এর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা ঘোষণা করেন৷ বিদায়ী ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট রাষ্ট্রদূত ডারোক-এর প্রতি আস্থা ও সমর্থন জানিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের সামনে জোরালো অবস্থান দেখান৷ প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে হান্ট এ ক্ষেত্রে ব্রিটেনের সার্বভৌমত্বকেই প্রাধান্য দেন৷

অন্যদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী বরিস জনসন মঙ্গলবারের টেলিভিশন বিতর্কে ডারোক-এর প্রতি আস্থা দেখাতে প্রস্তুত ছিলেন না৷ সম্ভাব্য পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর এমন আচরণে হতাশ হয়েই ডারোক সম্ভবত আর সময় নষ্ট না করে বুধবার পদত্যাগের ঘোষণা করেন৷ পদত্যাগপত্রে তিনি লেখেন, যে বর্তমান পরিস্থিতিতে তার পক্ষে দায়িত্ব পালন করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে৷

ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতের পদত্যাগ সম্পর্কে প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া হিসেবে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটিশ যুক্তরাজ্যের মধ্যে বন্ধন যে কোনো ব্যক্তির তুলনায় অনেক বড় এবং আমেরিকা এই সহযোগিতা এগিয়ে নিয়ে যেতে চায়৷

ব্রিটেনের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অ্যালান ডানকান বলেন, জনসন নিজের ব্যক্তিগত স্বার্থ রক্ষা করতে এই অসাধারণ কূটনীতিককে ‘বাসের নীচে ফেলে দিয়েছেন’৷ ডানকান মনে করেন, কিম ডারোক-এর প্রতি জনসনের অবজ্ঞা ও তার প্রতি সমর্থন না দেখানো অত্যন্ত ঘৃণ্য আচরণ৷

এমন এক সময়ে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকে ঘিরে অপ্রিয় এই ঘটনাটি ঘটলো, যখন অ্যামেরিকা ও ব্রিটেনের সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ এক পর্যায়ে প্রবেশ করতে পারে৷ ব্রেক্সিট কার্যকর হলে ট্রাম্প ব্রিটেনের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করতে আগ্রহী৷ বরিস জনসন প্রধানমন্ত্রী হলে তিনি লন্ডনে পছন্দের এক মানুষ পাবেন৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নে ব্রিটেনের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত হিসেবে ডারোক এমন এক চিত্রে বড়ই বেমানান ছিলেন৷

ট্রাম্প এর আগে ব্রেক্সিট আন্দোলনের অন্যতম প্রধান নেতা নাইজেল ফারাজ-কে ওয়াশিংটনে ব্রিটেনের রাষ্ট্রদূত হিসেবে চেয়েছিলেন৷ চলতি সপ্তাহে ফারাজ সেই সম্ভাবনা উড়িয়ে দিলেও ডারোক-এর পদত্যাগের পর তিনি এক টুইট বার্তায় লেখেন, এবার ওয়াশিংটনে এমন কাউকে রাষ্ট্রদূত করার সময় এসেছে, যিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকার বিপক্ষে এবং অ্যামেরিকার সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি করতে আগ্রহী৷ এমন প্রেক্ষাপটে ট্রাম্প-জনসন-ফারাজ অক্ষশক্তির সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷ সূত্র: ডয়েচ ভেলে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন