ঢাকা, সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬, ২৪ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

অভ্যন্তরীণ

বিরামপুর-ঢাকা মহাসড়কের করুণ দশা

কয়েকটি স্থান দুর্ঘটনার মরণফাঁদ!

বিরামপুর (দিনাজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

আষাঢ়ের ভারী বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত। প্রবল বর্ষণে বিরামপুর-ঢাকা মহাসড়কের ৪/৫টি স্থানে অল্প বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায়। বিপাকে পড়ে চালকরা।

বিরামপুর-ঢাকা মহাসড়কটির এমন করুণ দশায় বিপাকে পড়ে দূরপাল্লার যানবাহন ও যাত্রীসাধারণ। বতর্মানে পাকা রাস্তায় বিটুমিন নেই, যত্রতত্র রাস্তার দু’ধারে খোড়া। বর্ষার আগে ঠিকাদারের সময়মত কাজ না করার করণে ভাল রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিরামপুর টাটকাপুর আমবাগান মহাসড়ক থেকে ঘোড়াঘাট উপজেলা পর্যন্ত প্রায় ৩৬ কিমি রাস্তার বেহাল দশা। সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তাটি ডুবে যায়। সড়ক ডুবে যাওয়া ও দেবে যাওযার অন্যতম কারণ হিসাবে এ সমস্যাকে প্রকৌশলীদের ভাষায় বলা হয় রাটিং। বর্তমানে মহাসড়টিকে রাটিং নাই বললেই চলে।

বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় সড়ক গবেষণাগারের প্রকৌশলীদের মতে, পিচের জন্য পাথর-বিটুমিনের যে মিশ্রন তেরি করা হয় সেটি ঠিকমতো না হলে রাটিং বা সড়ক দেবে যেতে পারে। যানবাহন অভার-লোড অন্যতম কারণ হতে পারে।

এছাড়া রাস্তা মেরামতের সময় মাটির ধাপগুলি ঠিকমতো রোলিং না হলে রাটিং দেখা যেতে পারে বলেও অনেক প্রকৌশলীর মতামতে জানা যায়। বিরামপুর-ঢাকা মহাসড়কের ব্যস্ততম রাস্তাটি দিয়ে ১৩ উপজেলার হাজার হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র রাস্তায় থাকে সীমাহীন যানযট। বিশেষ করে বিরামপুর পৌর এলাকার মূল শহরের ভেতর দিয়ে মহাসড়টির ঘাটপাড়া নামক স্থানটিতে নিচু হবার কারণে সামান্য বৃষ্টির পানি হলেই তলিয়ে যায় রাস্তাটি, রেলগেট নামক স্থানে একই অবস্থা। চাঁদপুর পাম্প সংলগ্ন রাস্তা একই অবস্থ। উল্লিখিত স্থানে প্রতিদিন দুর্ঘটনা লেগে আছে।

ড্রাইভার ও যাত্রীদের অভিযোগ জানা যায়, বিরামপুর পল্লবী সংলগ্ন রাস্তাটি সামান্য পানিতে রাস্তাটি তলিয়ে যায়। যার কারণে এবং মূল রাস্তায় উঁচু একটি রাস্তা করার কারনে লোডগাড়ি মেইন রোডে উঠতে পারে না। এতে প্রতিদিন ৫/৭টি গড়ি উল্লিখিত স্থানে বিকল হয়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। যাত্রীদের পোহাতে হয় সীমাহিন ভোগান্তিতে।

এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপদ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী কামিনী কান্ত রায় জানান, বিরামপুর পৌর শহরের মহাসড়কের কিছু কিছু জায়গা নিচু হবার কারণে রাস্তাটি মেরামত করা হলেও বেশি দিন টেকেনা। মূল রাস্তাটি প্রায় সময় দেবে যায়। তিনি আরো জানান, বেলডাংগা হতে রেলগেট পর্যন্ত পৌর শহরের কিছু জায়গা স্থানীয়দের জটিলতার কারণে মহাসড়কের সম্প্রসারনে বরাদ্ধ বিভিন্ন কারনে আগে ফেরত গেছে। এখন রাস্তা স¤প্রসারনের টেন্ডার হয়েছে। রাস্তা মেরামত ও স¤প্রসারনের কাছ চলছে। কিছু দিনের মধ্যে এ সমস্যার সমাধান হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন