ঢাকা, মঙ্গলবার , ২১ জানুয়ারী ২০২০, ০৭ মাঘ ১৪২৬, ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

সবজি চাষে লাভবান আদমদীঘির কৃষক

আদমদীঘি (বগুড়া) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

বগুড়ার আদমদীঘিতে ধানের চেয়ে সবজি চাষ করে কৃষকরা বেশি লাভবান হচ্ছে। বাজারে ধানের ন্যায্যমূল্য না পেলেও কৃষকরা মুলা, ছিম, বেগুন, পালংসহ বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি চাষ করে বেশি লাভবান হচ্ছে। এলাকায় মুলা, বেগুন ছিম, পোটল, ফুলকপি, পাতাকপির ব্যাপক চাষ হয়েছে। উপজেলার হাট-বাজারে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে পাইকারী ক্রেতারা এসব মালামাল কিনে যানবাহনে করে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাচ্ছে। এতে করে তাদের উৎপাদিত সবজির ভালো দাম পাচ্ছেন বলে কৃষকরা জানিয়েছেন। উপজেলার বশিপুর খয়রাবাজ, খাগর কুড়ি, অন্তাহার, দুর্গাপুর, বাগবাড়ি, ছাতিয়ানগ্রাম, আমইল, সাগরপুর, কালাগাড়ি, কোমারপুর, কালাইকুড়ি, সালগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় সবজি চাষ হয়েছে। প্রথমদিকে বাজারে প্রতি কেজি মুলা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, ছিম ৮০ টাকা, একটা ফুলকপি ৩০ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বর্তমান মুলা, বেগুন, ছিম কেজি প্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকা কমলেও ফুলকপি ও পাতাকপি আগের দামে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও পালং, কলমি, লাল, সবুজ ও সরিষার শাক বেশ চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। ফলে বাজারে সবজির ভালো দাম পেয়ে চাষিরা খুশি।

উপজেলার খয়রাবাজ এলাকার মুলা ও বেগুন চাষি উজ্জল হোসেন জানান, ১ বিঘা জমিতে মুলা ও ১৬ শতক জমিতে বেগুন চাষ করে ৫০ হাজার টাকার মুলা ও বেগুন বিক্রি করেন এবং আরও ১০-২০ হাজার টাকার মুলা বেগুন বিক্রি হবে।

ছাতিয়ানগ্রামের আশরাফুল ইসলাম বলেন, ২০ শতক জমিতে মুলা ও ১০ শতক জমিতে পালং শাক চাষ করে ৩০ হাজার টাকার মুলা ও পালং শাক বিক্রির পরও জমিতে বিক্রির জন্য আরো মুলা ও পালং শাক রয়েছে। চলতি শীত মৌসুমে সবজি চাষ করে ভালো দাম পাওয়ায় এলাকায় সবজি চাষ বাড়ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন