ঢাকা মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

মায়ের ‘ভুখ হরতাল’, শাস্তি চান কপিল-আজহার

ভারতীয় যুবাদের অসদাচরন

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১২:০২ এএম

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশের খেলোয়ারদের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। প্রতিবেশি দলটির লেগ স্পিনার রবি বিষ্ণয়ও এর বাইরে নন। তার এমন আচরণে অবাক তার বাবা-মা ও কোচ। ক্ষোভে-দু:খে খাওয়াই ছেড়ে দিয়েছেন তার মা। রাজনৈতিক ভাষায়-‘ভুখ হরতাল’।অন্যদিকে দলের খেলোয়াড়দের এমন কর্মকাÐে বিব্রত হয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক দুই অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন ও কপিল দেব। বোর্ডকে বলেছেন খেলোয়াড়দের শাস্তি দিতে।

মনে রাখার মতো যুব বিশ্বকাপ কাটল রবি বিষ্ণয়ের। ১৭ উইকেট নিয়ে হয়েছেন সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি। ফাইনালে ৪ উইকেট নিয়ে ভারতকে ফিরিয়েছেন ম্যাচে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। স্নায়ুক্ষয়ী লড়াইয়ে জিতেছে বাংলাদেশই। এর বাইরেও ফাইনালটা অন্য একটি কারণে মনে থাকবে বিষ্ণয়ের। অক্রিকেটীয় আচরণের জন্য। খেলা শেষে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের সঙ্গে জড়িয়েছেন হাতাহাতিতে। বোলিংয়ের সময় কথা বলেছেন বাজে ভাষায়। সে জন্য শাস্তিও হয়েছে। তবে বিষ্ণয়ের এমন আচরণে সবচেয়ে অবাক হয়েছেন তার বাবা মাঞ্জিলাল বিষ্ণয়। তার দাবি, পরিবারের সব সন্তানের মধ্যে রবি-ই সবচেয়ে শান্ত-শিষ্ট! তিনি বলেন, ‘বুঝতে পারছি না আমার ছেলের কী হয়েছে! আমার সন্তানদের মধ্যে রবি সবচেয়ে শান্ত-শিষ্টদের একজন। কিন্তু এ ঘটনায় কাল থেকে আমার স্ত্রী কিছু খায়নি।’

রবির বাবা যোধপুরে একটি সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক। ম্যাচের উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ে তিনি ছেলের ব্যাখ্যা শুনেছেন। এ নিয়ে মাঞ্জিলালের ভাষ্য, ‘তার কাছে ঘটনার ক্রমিক ব্যাখ্যা শুনেছি। সে নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে সতীর্থদের বাঁচাতে গিয়ে, যখন বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা তাদের ওপর আক্রমণ করে।’

অন্যদিকে এই ঘটনায় নিজেদের দেশের খেলোয়াড়দের আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে না পারার এই ব্যর্থতা পীড়া দিচ্ছে ভারতের দুই সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহার উদ্দিন ও কপিল দেবকে। দোষী খেলোয়াড়দের শাস্তি চেয়েছেন তারা।

খেলার মাঠে আগ্রাসন থাকবেই, কিন্তু সেটা যদি লাগাম ছাড়িয়ে যায়, তবে দৃষ্টিকটু লাগবে তো বটেই। আর এটাই বলতে চেয়েছেন ভারতের প্রথম বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল দেব, ‘আগ্রাসনকে আমি সব সময়ই স্বাগত জানাই, সন্দেহ নেই। তবে সেই আগ্রাসন নিয়ন্ত্রণ করা শিখতে হবে। প্রতিযোগিতায় নেমে শৃঙ্খলার সীমা অতিক্রম করলে চলবে না। ব্যক্তিগতভাবে আমার মনে হয় যেসব তরুণ ক্রিকেটার মাঠে এমন বাজে আচরণ করেছে, তা সত্যিই মেনে নেওয়া কষ্টকর। বোর্ডের উচিত এমন কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া, যা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। প্রতিপক্ষকে গালি দেওয়াকে ক্রিকেট বলে না।’

কপিল দেবের এই আক্ষেপই প্রতিধ্বনিত হয়েছে আরেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনের কণ্ঠে, ‘কীভাবে এমন করতে পারেন আপনি? প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে চাইলে দুর্দান্ত খেলুন। অস্ট্রেলিয়ানরা সেøজিং করলেও ব্যাটে-বলে আপনাকে অসহায় করে দেবে। আমাদের দারুণ কিছু পেসার ছিল যারা বাজে শব্দ কিংবা আচরণে বিশ্বাস করত না, তারা কেবল নিজেদের অনুপ্রাণিত করত এবং ব্যাটসম্যানকে ভড়কে দিত।’
কোচিং দলের সদস্যদেরও উচিত ছেলেদের শিক্ষা দেওয়া, মনে করেন আজহার, ‘আমি জানতে চাই কোচিং দলের সদস্যরা তরুণ এই ক্রিকেটারদের শেখানোর ব্যাপারে কী কী ভ‚মিকা পালন করেছেন। দেরি হওয়ার আগেই আইন করুন। খেলোয়াড়দের অবশ্যই আইন-কানুন মেনে চলতে হবে।’

 

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (9)
শূন্যের মাঝে স্বপন ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১২ এএম says : 0
বয়স বিবেচনা করে সবাই কে মাফ করা হোক
Total Reply(0)
Nile Projapati ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৬ এএম says : 0
রায়টা একপক্ষীয়, বেশি দোষ ছিল ভারতীয়দের আর তাদের শাস্তি কম দেওয়া হয়েছে, আইসিসি যে ভারতীয় দালাল তা আবার প্রমাণ করলো
Total Reply(1)
সাইফ ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১০:০৬ এএম says : 4
ভাই একটু ভুল হয়েগেছে এখানে, আসলে ভারতের দালাল নয় I CC এর অন্য অর্থ কি হয় I তে ইন্টারন্যাশনাল আবার I তে ইন্ডিয়াও হয়। সুতরাং............।।
Md Saddam ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৬ এএম says : 0
ক্রিকেট এবং স্লেজিং একটি অপরটির সাথে খুবই গনিষ্ঠভাবে জরিত,আন্তর্জাতিক হাইভোল্টেজ ক্রিকেট হোক, কিংবা পাড়ার ক্রিকেট, স্লেজিং ছাড়া খেলা জমেনা,কখনো কখনো সেটা যেমন হয়ে ওঠে হাস্যরসাত্মক, কখনো কখনো দারুণ কুৎসিত। কিন্তু খেলায় হেড়ে বিজয়ীদের পতাকা কেড়ে নেয়া খুবই ছোটলোকি কাজ।
Total Reply(0)
Muhammad Feroz ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৭ এএম says : 0
"বাংলাদেশের অভিষেক দাসকে আউট করার পর 'খারাপ ভাষা ব্যবহার, অশালীন ইঙ্গিত এবং অবজ্ঞাসূচক অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে প্রতিপক্ষকে বিবাদে উস্কানি' দেবার অভিযোগে ভিশনোইকে দুটি বাড়তি ডিমেরিট পয়েন্ট দিয়েছে আইসিসি।"
Total Reply(0)
Shameem Sikder ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৮ এএম says : 0
অপরাধ করল ভারতের খেলোয়াররা আর শাস্তি পেল বাংলাদেশের খেলোয়াররা। এক চোখবিশিষ্ট আই.... সি.... সি।
Total Reply(0)
Sanaur Rahman Khan ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৮ এএম says : 0
সেই সাথে বাংলাদেশের যুবারা এটাও শিক্ষা নিবে যে তাদের শুধু মাঠে জিতলেই হবে না সেই সাথে মাঠের বাইরেও ফেস করতে হবে প্রতিকূলতা।
Total Reply(0)
Jashim Chowdhury ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৮ এএম says : 0
আইসিসির একচোখ অন্ধ। খেলোয়াড়দের শাস্তি দিয়েছে, তা মেনে নিলাম। ভারতীয় খেলোয়াড়েরা আমাদের জাতীয় পতাকা কেড়ে নিতে চেয়েছিল এর জন্য কোন এ্যাকশন নিলো না। আইসিসি আমাদেরকে সবসময় একচোখে দেখে।
Total Reply(0)
Upoma Akter Mithila ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৯ এএম says : 0
পতাকা নিয়ে হাতাহাতি করল ইন্ডিয়ানরা আর শাস্তি পেল বাংলাদেশিরা.. দেশে বিচার কি উল্টা নাকি বুঝলাম না
Total Reply(0)
Saqlain A Shamol ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ১:১৯ এএম says : 0
বিজয় উল্লাস প্রকাশ করতেই পারে। তার মানে এই নয় যে, পতাকা ছিনিয়ে নেওয়া ভদ্র দেশের সভ্য আচরণ?????
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন