ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৯ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

নেছারাবাদে নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা ১৮ ব্যক্তিকে কোয়ারেন্টিনে রাখতে গিয়ে স্থানীয়দের হামলা

নয়জনকে আসামী করে থানায় মামলা ঃ গ্রেফতার ১

নেছারাবাদ(পিরোজপুর)উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১০ এপ্রিল, ২০২০, ১:২৫ পিএম

নারায়ণগঞ্জ থেকে মালবাহী ট্রলারে করে নেছারাবাদে ফিরে আসা ১৮ ব্যক্তিকে কাটাপিটানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টারে কোয়ারেন্টাইনে রাখতে গিয়ে স্থানীয়দের হামলায় ৯জন জনকে আসামী করে থানায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার আসামী স্থানীয় চৌকিদার দীপেন্দ্র নাথ সরকারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে ওই আঠার ব্যক্তিকে কাটাপিটানিয়া হোম কোয়ারেন্টানে রাখতে না পেরে স্বরূপকাঠি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে রাখা হয়েছে। বৃহসপতিবার রাতভর ট্রলারে থাকার পরে শুক্রবার সকালে তাদেরকে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে কোয়ারেন্টাইন করা হয়। একইসাথে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে যাত্রী বহনের অপরাধে ওই ট্রলারটিকে আটক রাখা হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই ব্যাক্তিদের কাটাপিটানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টারে কোয়ারেন্টাইন করাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর হামলায় ইউপি চেয়ারম্যান,মেম্বার, পুলিশ, সাংবাদিকসহ ৬ জন আহত হয়। আহত সাংবাদিক গোলাম মোস্তফাসহ ৩ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। আহত সাংবাদিক গোলাম মোস্তফা বাদী হয়ে কাটাপিটানিয়া এলাকার ৯ জনকে আসামী করে বৃহস্পতিবার রাতেই থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

জানাগেছে, করোনা ভাইরাসের কারনে লকডাউন হওয়া নারায়নগঞ্জ শহর থেকে বলদিয়া ইউনিয়নসহ পাশর্^বর্তী এলাকার ১৮ জন লোক একটি মালবাহী ট্রলারে করে বৃহস্পতিবার রাজাবাড়ি এলাকায় আসেন। এলাকাবাসী তাদেরকে ওই গ্রামে উঠতে না দেওয়ায় জটিলতার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি জানতে পেরে ইউএনও সরকার আবদুল্লাহ আল মামুন বাবু নারায়নগঞ্জ থেকে আসা লোকদের কোনো একটি বিদ্যালয়ে কোয়ারেন্টাইনে রাখার জন্য বলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহীনকে নির্দেশ দেন। এসময় স্বরূপকাঠি থানার এস আই মো.তাজেলকেও ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। চেয়ারম্যান মো. শাহিন মিয়া ও উপ পরিদর্শক তাজেলসহ পুলিশের একটি দল ওই ট্রলারের লোক নিয়ে সংখ্যালঘু অধ্যুষিত কাটাপিটানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোয়ারেন্টাইনে রাখতে যায়। কাটাপিটানিয়া গ্রামে বাইরের লোক রাখতে গেলে স্থানীয়দের বাধার মুখে পড়েন তারা। এঘটনাকে কেন্দ্র করে ইউপি সদস্য সুখলাল ঢালী ও রনজিত বেপারীর নেতৃত্বে স্থানীয়রা বলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহিন মিয়াসহ পুলিশের উপর চড়াও হয়। এ সময় ওই এলাকার কয়েক‘শ মানুষ লাঠিসোটা নিয়ে চেয়ারম্যান ও পুলিশের উপর হামলা চালায়। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। হামলায় ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহীন, স্থানীয় সাংবাদিক গোলাম মোস্তফা ও এস আই তাজেল, এস আই আল মামুন, ইউপি সদস্য মো. সুমন ও চেয়ারম্যানের গাড়ীর চালক মাসুম বিল্লাহ আহত হন। এ বিষয় স্বরূপকাঠি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন বর্তমান সময়ে বাইরে থেকে লোক আসায় মানুষের মধ্যে ভীতি কাজ করে। সে কারনে নারায়নগঞ্জ ফেরতদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু বিষয়টি না বুঝেই ইউপি সদস্য সুখলাল ঢালী গ্রামের মানুষকে উত্তেজিত করে হামলার ঘটনা ঘটানো হয়েছে। এ বিষয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকার আবদুল্লাহ আল মামুন বাবু বলেন গত কয়দিনে ঢাকা ও নারায়নগঞ্জ থেকে প্রতিনিয়ত ট্রলারে করে লোক দেশের বাড়ীতে পালিয়ে আসছে বলে খবর পাচ্ছি। মানবিক কারনে এ লোকগুলোকে একটি নিরাপদ দুরত্বে কোয়ারেন্টাইনে রাখার চেষ্টা করছি। ট্রলারের ১৮ ব্যাক্তিকে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ট্রলারটি আটক রয়েছে রাখা হয়েছে বলে জানান ইউএনও।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন