ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

আমানতের টাকা না পেয়ে কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিলো ক্ষুব্ধ গ্রাহক

প্রকাশের সময় : ২২ জুলাই, ২০১৬, ১২:০০ এএম

আদমদীঘি (বগুড়া) উপজেলা সংবাদদাতা
বগুড়ার সান্তাহারে আমানতের টাকা না পেয়ে শত শত গ্রাহক আপ্রকাশি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ নামে একটি ঋণদান ও আমানত সংগ্রহ সংস্থার কার্যালয়ও তার অপর ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান হোটেল স্টার বন্ধ করে দিয়েছে। গত বুধবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় কার্যালয় থেকে মালামাল খোয়া যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে বলেও জানা গাছে। জানা যায়, ২০০২ সালে সান্তাহার শহরের সুনাম ধন্য হোটেল ব্যবসায়ী  ওসমান গনির ছেলে এস এম জুয়েল আপ্রকাশি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ নামের একটি ঋণদান ও আমানত সংগ্রহ  কার্যালয় খোলে এবং আমানত সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু করে। প্রতি লাখ টাকা আমানতের  গ্রাহকদের ২ হাজার  টাকা করে মুনাফা প্রদান করে আসছিল সংস্থাটি। অধিক মুনাফার আশায় এলাকার শিক্ষিত বেকার যুবক ও ছোটখাটো ব্যবসায়ীসহ কয়েক হাজার নারী-পুরুষ হুমড়ি খেয়ে পরে। কয়েক বছরে গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় আড়াই হাজার। আমানতের টাকার পরিমাণ প্রায় ৬০ কোটি টাকা। সংস্থার মালিক আমানত গ্রাহকের টাকা দিয়ে ঢাকায় একটি ফ্লাট, বাগানবাড়ী, নওগা-সান্তাহার বাইপাস সড়কের তুলসি গঙ্গা ব্রীজের নিকট বাগানবাড়িসহ বেশ কিছু মূল্যবান জমি ক্রয় করেছেন। একপর্যায়ে গত জানুয়ারী মাস থেকে গ্রাহকদের মুনাফার লাভে দুই হাজার টাকা দেওয়া বন্ধ করে দিয়ে গ্রাহকদের  সাথে টালবাহানা করতে থাকে। এমনকি আসল টাকাও ফেরত না দিয়ে ঘুরাতে থাকে। বুধবার দুপুরে প্রথমে আপ্রকাশির ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান শহরের স্টেশন রোডের হোটেল স্টারের সামনে শত শত গ্রাহক সমবেত হতে থাকে। একপর্যায়ে বিক্ষিপ্ত গ্রাহকরা ওই হোটেলে এবং মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের আপ্রকাশি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ নামে সংস্থার কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে উত্তেজিত হলে সংবাদ পেয়ে  পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী আমানতকারীরা প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে আপ্রকাশি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সংস্থার মালিক এস এম জুয়েলের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন