ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

রাজশাহীতে মানববন্ধন

রাজশাহী ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ এএম

 উত্তরবঙ্গে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সেবা সংস্থা ‘নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানী’র (নেসকো) আওতায় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ ও ভ‚তুড়ে বিল অনিয়ম বন্ধের দাবিতে গতকাল সকালে নেসকো প্রধান কার্যালয়ের সামনে রাজশাহীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ।
কর্মসূচি থেকে অবিলম্বে নেসকোর ভৌতিক বিল আদায় বন্ধ, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিত ও দুর্নীতি, অনিয়ম ও হয়রানী বন্ধেরও দাবি জানানো হয়। একই কর্মসূচি থেকে আজ বুধবার বিদ্যুৎ ও জ্বালানী মন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। স্মারকলিপির অনুলিপি প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠানোর হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়। কর্মসূচি থেকে অবিলম্বে ভ‚তুড়ে বিলের ভোগান্তি বন্ধ, গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে নেসকো কার্যালয় ঘেরাও করার হুশিয়ারি দেওয়া হয়।
রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামাত খান, সাংঠনিক সম্পাদক দেবাশিষ প্রমাণিক দেবু, ডা. আবদুল মান্নান প্রমুখ, রাজশাহী চেম্বারের সাবেক পরিচালক হারুনার রশিদ, ন্যাপ নেতা মুস্তাফিজুর রহমান খান আলম, বিএফইউজে সহ-সভাপতি মামুন-অর-রশিদ, আইনজীবী নেতা এন্তাজুল হক বাবু, বাপা, রাজশাহীর সহসভাপতি সেলিনা বেগম, মুক্তিযোদ্ধা রবিউল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা হাকিম আতাউর রহমান, আলতাব হোসেন, আবদুল মতিন, বজলুর রহমান, সেভ দি ন্যাচার চেয়ারম্যান মিজানুর রজমান, উন্নয়ন কর্মী সুব্রত পাল, ওয়েব সভাপতি আঞ্জুমান আরা লিপি, শিক্ষক আলাউদ্দিন আল আজাদ, পবা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সুফিয়া হাসান, কেএম যুবায়েদ হোসেন জিতু, জাহিদ হাসান ও মো. তারেক প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, বিদ্যুৎ সরবরাহ এখনো নিরবিচ্ছিন্ন না হলেও নেসকোর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের ইশারায় করোনাকালে নেসকোর ভোগান্তি চরমে উঠেছে। মিটার রিডিং না দেখে অফিস থেকে মনগড়া বিদ্যুতের বিল করার জন্য হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে গ্রাহকদের। এতে কারো কারো ১০ গুণ পর্যন্ত বিদ্যুতের বিল দেখানো হয়েছে।
বক্তারা বলেন, প্রতিনিয়ত ভৌতিক বিলের ঘটনা ঘটলেও কোনো সুরাহা হচ্ছে না। গ্রাহকরা একের পর অভিযোগ দিয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না। নগরীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও বিল করা হয়েছে কয়েকগুণ। এরই মধ্যে ডিজিটাল প্রিপেইড মিটার স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে যা গ্রাহকসেবায় আরো হয়রানীর মুখে পড়বে হলে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।
বক্তারা বলেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই গ্রাহকদের বিদ্যুতের বিল বেশি করা হচ্ছে। বিদ্যুৎ বিল দেয়া হলেও মিটার রিডিং দেখা হচ্ছে না। অফিসে বসে মনগড়াভাবে তৈরি করা বিদ্যুৎ বিল গ্রাহকদের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে।
বক্তারা বলেন, সবচেয়ে বাজে সেবা সংস্থা নেসকো প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দুর্নীতি ও ভুলে ভরা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। তারা বলেন, বিদ্যুৎ বিল কমবেশি হতে পারে। কিন্তু এতো কমবেশি মেনে নেয়ার মত না। বক্তারা বলেন, অফিস থেকেই মনগড়াভাবে বিল দেয়া হচ্ছে।
মানববন্ধন থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, বর্তমান সরকার বিদ্যুৎ খাতে উন্নয়নে ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত করেছেন। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পরিসেবা পৌঁছানোর জন্য নিরলসভাবে কাজ করছেন সরকার। গ্রামেও বিদ্যুৎ সুবিধা ভোগ করছেন। তবে উত্তরবঙ্গে নেসকো যেভাবে দুর্নীতি ও অনিয়মে পরিণত হয়ে বিদ্যুৎখাত নিয়ে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে এসে অসন্তোষ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সরকারের সুদূর প্রসারী উদ্যাগ মøান করে দিচ্ছে নেসকো।
রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামাত খান বলেন, ইতোমধ্যে স্মার্ট প্রি-পেইড মিটার লাগানো শুরু হয়েছে। তবে ভেন্ডিং মেশিনের ব্যবস্থা না করে গ্রাহকের ওপর যেন চাপিয়ে দেয়া না হয় সে ব্যাপারে নেসকো কর্তৃপক্ষের প্রতি সতর্ক থাকার আহŸান জানান।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন