সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮, ২০ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

আগাম তৎপরতা আওয়ামী লীগ নেতাদের

প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মোহাম্মদ জসিমউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা উত্তর থেকে

আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলার সাতটি উপজেলায় আ.লীগের দলীয় সংসদ সদস্য এবং দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা আগাম তৎপরতা শুরু করে দিয়েছে। তারা আগের তুলনায় স্ব-স্ব নির্বাচনী এলাকায় সভা-সমাবেশসহ সমাজিক অনুষ্ঠানগুলোতে উপস্থিতি বাড়িয়ে দিয়েছে। শুক্রবার ও শনিবার সরকারি ছুটির দিন ছাড়াও তারা সপ্তাহে ৩/৪ দিন এলাকায় থাকছেন। এদিকে মামলা মাথায় নিয়েও গ্রেফতার আতঙ্কের মধ্যেও বিএনপি দলীয় সম্ভাব্য প্রার্থীদেরও এলাকায় ঘুরাঘুরি করতে দেখা যাচ্ছে। সরকারি দলের এমপিরা ছাড়াও আ.লীগ থেকে নবীন নেতাদের মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও নড়েচড়ে বসেছে। তারা আগামী নির্বাচনে দল থেকে মনোনয় চাইবেন বলে আগাম প্রচারণা চালাচ্ছেন। অনেক প্রবাসী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে জানান দিচ্ছেন নির্বাচন ঘনিয়ে আসলে তারা দেশে এসে আ.লীগ থেকে মনোনয়ন চাইবেন। দক্ষিণ কুরিয়া থেকে মফিজুল ইসলাম স্বপন সিকদার নামে একজন ফেইসবুকে ছবি সংবলিত স্ট্যাটাস দিয়ে আ.লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছেন। সম্প্রতি দলীয় সংসদ সদস্যদের আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ দেয়ার পর কুমিল্লা উত্তরের ৭টি উপজেলার ৫টি আসনে এমন তৎপরতা দেখা যাচ্ছে। এদিকে ৭টি উপজেলা আ.লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে অন্তর্কলহ রয়েছে। তারপরও তারা বসে নেই। এদিকে কুমিল্লা-১ আসনের প্রভাবশালী এমপি এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া দাউদকান্দি ও মেঘনা উপজেলায় এখন বেশি বেশি সময় দিচ্ছেন। তাঁর সুযোগ্য পুত্র দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেজর (অব.) মোহাম্মদ আলী সুমন মাসে ৩০ দিনই এলাকায় নেতাকর্মীদের সাথে থাকছেন। তিনি দাউদকান্দি ও মেঘনা উপজেলার প্রতিটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে আ.লীগের নেতাকর্মীসহ আমজনতার সাথে কুশল বিনিময় করছেন এবং তাদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। বাবার হাত ধরে রাজনীতিতে আসা মেজর সুমন এলাকায় বাবার দীর্ঘদিনের যুগান্তকারী উন্নয়ন ও আধুনিকায়নের ধারাবাহিকতা রক্ষাকল্পে দিন-রাত নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এদিকে মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভূঁইয়া ২০০৮ সালের নির্বাচনে কুমিল্লা ১ আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হয়ে তার নির্বাচনী এলাকাকে উন্নয়ন আর আধুনিকায়নের উচ্চ শিকড়ে পৌঁছানোর লক্ষ্যে একটি মাস্টার প্লান হাতে নেন। সে মতে তিনি গত সাড়ে সাত বছরে এখানে উন্নয়নের এক যুগান্তকারী সাফল্যও দেখিছেন। দাউদকান্দি ও মেঘনা উপজেলার তিন বছরের উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে। জেনারেল ভূঁইয়ার নেতৃত্বে তিন বছরে আড়াইশ’ কোটি টাকার উন্নয়ন শিরোনামে একটি পুস্তিকাও প্রকাশ করেছেন। বাকি সাড়ে চার বছরের উন্নয়ন নিয়েও আরেকটি পুস্তিকা প্রকাশের কাজ চলছে। কুমিল্লা-৩ আসন মুরাদনগর থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত এমপি এফবিসিসিআই-এর সাবেক সভাপতি ইউসুফ আবদুল্লা হারুন এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। এলাকায় তার ব্যক্তি ইমেজ ভালো। তিনি এলাকায়ই বেশি সময় দিচ্ছেন। অপরদিকে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ জাহাঙ্গীর আলম সরকার এখানকার ৭টি উপজেলার পাশাপাশি তার এলাকা মুরাদনগরে বেশি বেশি সময় দিচ্ছেন। স্থানীয় আ.লীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে তিনি মুরাদনগরের প্রতিটি গ্রামে গ্রামে চষে বেড়াচ্ছেন। এলাকার সুশীল সমাজসহ আমজনতার সাথে জাহাঙ্গীর আলম সরকারের রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক। এলাকার সর্বমহলে তার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে যথেষ্ট। মুরাদনগরসহ কুমিল্লা উত্তর জেলা আ.লীগের নেতাকর্মীদের নিবেদিতপ্রাণ জাহাঙ্গীর আলম সরকার। চান্দিনায় সাবেক ডেপুটি স্পিকার অধ্যাপক আলী আশ্রাফ এমপির নেতৃত্বে আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে নেতাকর্মীরা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি এলাকায় যুগান্তকারী উন্নয়ন করেছেন। তিতাস ও হোমনা উপজেলায় দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ সভা-সমাবেশসহ সমাজিক অনুষ্ঠানগুলোতে উপস্থিতি লক্ষনীয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন