ঢাকা, বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

বগুড়ায় অবৈধ অর্থ উপার্জনের অভিযোগে দুদকের মামলা

ম্যানেজের সব চেষ্টাই ভন্ডুল

প্রকাশের সময় : ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মহসিন রাজু, বগুড়া থেকে
সরকারি বিভিন্ন সংস্থার একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা এবং সরকারি দলের কারো কারো পিছনে মোটা অংকের অর্থ বিনিয়োগ করেও পার পেলেন না বগুড়ার জামাত পল্লী হিসেবে চিহ্নিত জামিল নগরের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা জহুরুল ইসলাম কামাল ওরফে কামাল উকিল। তার বিরুদ্ধে অবৈধ অর্থ উপার্জনের অভিযোগে মামলা করলোই দুদক। সম্প্রতি বগুড়া সদর থানায় দুদকের মামলা সূত্রে জানা যায়, সাবেক ছাত্রশিবির নেতা ও পরে জামায়াতের স্থানীয় ওয়ার্ড সভাপতি অ্যাড. জহুরুল ইসলাম কামাল ওরফে কামাল জামায়াতের সাংগঠনিক শক্তি ও অর্থকে কাজে লাগিয়ে ‘বগুড়া কেন্দ্রীয় শিল্প সমবায় সমিতির চেয়ারম্যান পদে থাকা কালীন বৈধ ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূতভাবে ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা আয় ও ভোগ দখল করেন। দুর্নীতী দমন কমিশনের জিজ্ঞাসাবাদের জবাবে তিনি উপরোক্ত পরিমাণের অর্থের উৎস সম্পর্কে যে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করেন, দুদকের নিবিড় তদন্তে উক্ত পরিমাণে অর্থের উৎস মিথ্যা বলে প্রমাণ হলে বগুড়া দুদকের উপ-পরিচালক আনোয়ারুল হক বাদী হয়ে সম্প্রতি বগুড়া সদর থানায় তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। দুদক সূত্রে আর ও জানা যায়, এর আগেও শিল্প সমবায় সমিতির দেড় কোটি টাকা অবৈধভাবে উত্তোলন ও আত্মসাৎ করায় তার বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় দায়েরকৃত মামলাটি তদন্তাধীন রয়েছে। খুব শীঘ্রই ওই মামলাটির চার্জশিট দেয়া হবে বলে  দুদক সুত্রে জানা গেছে। উল্লেখ্য, গত ৪ দলীয় জোট সরকারের সময়ে সরকারের প্রভাব বিস্তার করে, কয়েকজন জামায়াত-শিবির নেতা সরকারি আজিজুল হক কলেজের সামনের দক্ষিণাংশের পরিত্যক্ত, খাস এবং সমবায় শিল্প সমিতির প্রায় ২০ বিঘা জমি ভূমিদস্যুতার কৌশলে দখল নিয়ে ওই এলাকার পূর্বতন নাম বদল করে জামায়াত পল্লীতে রূপান্তর করে । পরবর্তীতে  ‘এক এগার এবং আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে কিছু আওয়ামী লীগ  শ্রমিক লীগকে ভূমি দস্যুতার লভ্যাংশের টোপ দিয়ে গা’ বাঁচানোর চেষ্টা করলে ও ভূমিদস্যু চক্রের মূল হোতা জহুরুল ইসলাম কামাল উকিলের বিরুদ্ধে পর পর দুটি অর্থ জালিয়াতির মামলা করলে বেকায়দায় পড়ে যায়, জামায়াত সাইনবোর্ডে পরিচালিত ভূমিদস্যু চক্রটি। অন্য একটি সূত্রে জানা গেছে, জামিলনগর সংলগ্ন জামিল হাউজিং চত্বরে অবৈধ অর্থে নির্মিত জহুরুল উকিলের ১০ তলা আলিশান বাড়িটি কথিত বিক্রি দলিলের নামে দুদকের চোখ ফাঁকি দিয়ে  ৫ কোটি টাকা আত্মসাতের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন