বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সাবেক প্রেমিকার বিরুদ্ধে স্পার্ম চুরির অভিযোগে পুলিশের দ্বারস্থ ৬১ বছরের ব্যক্তি!

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০২২, ১:৪৮ পিএম

সোনা, সম্পত্তি নয়, এক মহিলা স্পার্ম চুরি করেছে বলে অভিযোগ তুললেন তুরস্কের এক ব্যবসায়ী। তার এই অভিযোগ শুনে রীতিমতো অবাক পুলিশও। এই ঘটনায় রীতিমতো হইচই পড়েছে। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, পুরো ঘটনার সূত্রপাত হয় একটি চুক্তিকে কেন্দ্র করে। একটি বিত্তবান ব্যবসায়ী সেবাতাপ সেন্সারি নামক এক মহিলার সঙ্গে চুক্তি করেন। চুক্তিতে বলা হয়, তিনি ওই ব্যক্তির এক সন্তানের মা হবেন।

২০০০ সালে বছর ৪৫ এর সেনসারি ৬১ বছরের ওই ব্যবসায়ীর প্রেমে পড়েন। ওই ব্যক্তির পুরো নাম প্রকাশ্যে আসেনি। জানা গিয়েছে, তারা একে অপরের প্রেমে পড়েন। ওই ব্যক্তির কোনও পুত্র সন্তান ছিল না। এরপরেই তার সন্তান ধারণের জন্য রাজি হন ওই মহিলা। এরপরেই ২০১৫ সালে ৬১ বছরের ওই ব্যক্তির শুক্রানু নিয়ে সাইপ্রাসে যান সেনসারি। কারণ তুরস্কে কোনও যুগল বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ না হলে তাদের ইন ভিট্রো ফার্টিলাইজেশন আইন বিরোধী। জানা গিয়েছে, এই ঘটনার ৯ মাস পর জমজ সন্তানের জন্ম দেন মহিলা। ৬১ বছরের ওই ব্যক্তি জানিয়েছিলেন, যদি তিনি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন তাহলেই তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবেন।

কিন্তু, তার সন্তানদের মা হওয়ার পর ওই ব্যক্তি বিয়ে করতে অস্বীকার করেন। এমনকী, ওই মহিলার বিরুদ্ধে তিনি নিয়মিত অত্যাচার করতেন বলেও অভিযোগ। এরপরেই প্রতারণার অভিযোগ তুলে আদালতের দ্বারস্থ হন ওই মহিলা। ব্যবসায়ীর থেকে দাবি করেন ক্ষতিপূরণ। সেনসারির অভিযোগ, একাধিকবার তাকে নিগ্রহের শিকার হতে হয়েছে। তাকে ওই ব্যক্তি জানিয়েছিলেন, যদি তাদের পুত্র সন্তান হয়, সেক্ষেত্রে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবেন। তা তিনি রাখেননি। পাশাপাশি আর কোনও অত্যাচার তিনি সহ্য করবেন না তা স্পষ্ট জানিয়ে দেন ওই ব্যক্তি।

এদিকে ওই যমজ সন্তান ব্যবসায়ীর কিনা তা জানার জন্য ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দেয় আদালত। কিন্তু, তিনি সাফ জানিয়ে দেন, তার স্পার্ম চুরি গিয়েছে। এই ঘটনার তদন্তের প্রয়োজন রয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি। কিন্তু, আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, স্পার্ম চুরি সম্ভব নয়। যদি তার ডিএনএ-র সঙ্গে ওই দুই শিশুর ডিএনএ মিলে যায় তাহলে ওই ব্যক্তি স্বেচ্ছায় স্পার্ম দিয়েছেন বলেই ধরা হবে। যদিও এই মামলা এখনও বিচারাধীন। সূত্র: নিউইয়র্ক পোস্ট।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন