রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত বিনোদনকেন্দ্র

নজির হোসেন নজু, সৈয়দপুর (নীলফামারী) থেকে | প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০২২, ১২:০২ এএম

কেউ এসেছেন বন্ধুবান্ধবদের সাথে আবার কেউ এসেছেন পরিবার পরিজন নিয়ে। এভাবে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে নানান বয়সী দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত নীলফামারীর সৈয়দপুরের বিনোদন পার্কগুলো। তিল ধারণের ঠাঁই নেই যেনো। মনে হয় এখানেই ঈদ আনন্দ উৎসব।
সরেজমিনে শহরের থিমপার্ক, রংধনুপার্ক ও পাতাকুঁড়ি পার্কে গিয়ে দেখা গিয়েছে এমনি চিত্র। আগত দর্শনার্থীরা বলছেন, করোনার কারণে গত ২ বছর স্বাস্থ্যঝুঁকির পাশাপাশি সরকারি বিধিনিষেধ থাকায় মন খুলে ঘুরা হয়নি। তাই এবার সকলকে নিয়েই বেরিয়ে পড়েছেন অনেকেই।
সৈয়দপুরে বেসরকারিভাবে গড়ে উঠেছে তিনটি বিনোদনপার্ক। এগুলো হচ্ছে রংধনুপার্ক, থিমপার্ক ও পাতাকুঁড়ি পার্ক। এসব বিনোদন পার্কে নারী-পুরুষ ও শিশুদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। সকাল থেকে রাত অবধি এসব পার্ক খোলা থাকায় চিত্তবিনোদনের চাহিদা মেটাচ্ছেন নানা বয়সি মানুষ। শহর ও আশপাশে এসব পার্ক গড়ে উঠায় সহজ যোগাযোগের কারণে সব শ্রেণির মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন পার্কগুলোতে। ঈদের আনন্দে কাটছে তাদের সারাদিন। শহরের থিমপার্কে ছোট ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে এসেছেন নজির হোসেন নজু তিনি বলেন, টিকিট কেটে গেটে ঢুকতেই অনেক সময় লেগেছে। প্রতিটি রাইডে খুব ভিড়। তবে অনেকদিন পর এমন ঘুরাঘুরিতে বেশ খুশি তিনি। শহরের ভেতরে ইসলামবাগ রসুলপুর এলাকায় ছোট্ট পরিসরে গড়ে উঠেছে থিম পার্ক।
পার্কে কথা হয় বদরগঞ্জের থেকে পার্কে ঘুরতে আসা রাজিয়া ও মিন্টু দম্পতির সাথে। তারা জানান, অনেক দিন ঘরবন্দি জীবন কেটেছে। এখন যেনো মুক্ত। তাই পরিবার পরিজন নিয়ে এসেছি পার্কে। খুবই ভালো লাগছে। আমাদের সন্তানরা অনেক আনন্দ পেয়েছে। বিশেষ করে সুইমিং পুলে খুব সময় ব্যয় করেছি আমরা।
সৈয়দপুর শহরের কুন্দল এলাকায় মহাসড়কের পাশে অনেক দ্বীপের মতো এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছে রংধনু পার্ক। শিশুদের মনোরঞ্জনের সেখানে যথেষ্ঠ ব্যবস্থা রয়েছে। কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হয়েছে পশুপাখিসহ নানা স্থাপনা। কিছু সময়ের জন্য অনেকে হারিয়ে যান সেখানে।
শহরের একটুখানি বাইরে সৈয়দপুর বাইপাস সড়কে গড়ে উঠেছে পাতাকুঁড়ি বিনোদন পার্ক। এখানে কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হয়েছে বাঘ, ভল্লুকসহ বিভিন্ন জীবজন্ত। আছে পুকুরে নৌকা ভ্রমনের সুযোগ। এই পার্কটি বেশ ভালোই চলছে বলে জানান পার্ক কর্তৃপক্ষ। সব মিলিয়ে সৈয়দপুরের তিনটি বিনোদন পার্ক দর্শকদের টানছে। করোনাকালে প্রায় ২ বছর বন্ধ থাকার পর এসব বিনোদন পার্ক চালু হওয়ায় পার্ক মালিক, কর্মচারী ও দর্শকদের মাঝে আশার সঞ্চার করেছে।
সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামীম হুসাইন জানান, স্থানীয় এসব বিনোদন পার্ক কিছুটা হলেও মানুষের চিত্ত বিনোদনের চাহিদা মেটাচ্ছে। সরকারি নিয়মনীতি অনুযায়ী ও নীতি নৈতিকতা মেনে পার্কগুলো চলছে কিনা তা তদারকি করছে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps