মঙ্গলবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১১ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

ছোট-বড় গর্তে ঝুঁকিপূর্ণ চলাচল

লৌহজংয়ে হাড়িদিয়ার জরাজীর্ণ রাস্তা

মো. শওকত হোসেন, লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) থেকে | প্রকাশের সময় : ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:১০ এএম

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার হাড়িদিয়ার রাস্তাটি এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। দীর্ঘদিন রাস্তাটি সংস্কার না করায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা দিয়ে চলাচল করছে যানবাহনসহ এলাকার মানুষ। রাস্তাটি নির্মাণের পর থেকে প্রয়োজনীয় সংস্কারের অভাবে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। উপজেলার গাওদিয়া ইউনিয়ন ৩নং ওয়ার্ড বড়মোকাম বাজার, কোল্ডস্টোর মোড় থেকে হাড়িদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত। এই রাস্তার ১ কিলোমিটারের অধিকাংশ জায়গায় পিচ ওঠে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। ফলে প্রতিদিন চরম দুর্ভোগে পরছে মানুষ। গর্তের কারণে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ যান চলাচলে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। প্রতিনিয়ত ব্যটারি চালিত আটোরিকশার চাকা গর্তে পরে যাত্রীসহ দুর্ঘটনা ঘটছে। এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা দিয়ে গাঁওদিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে প্রতিদিন শতাধিক মা ও শিশু চিকিৎসা সেবা নিতে আসেন। এছাড়াও এ রাস্তা দিয়ে হাড়িদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, বাজার, ইউনিয়ন পরিষদ, ইউনিয়ন ভ‚মি, শামুরবাড়ি হাসপাতালসহ রাস্তাটি নদীর নিকটবর্তী যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম। প্রতিদিন প্রায় ৫ হাজারের ও বেশি মানুষ যাতায়াত করছে। এছাড়াও প্রতিনিয়ত এ রাস্তা দিয়ে শতশত রিকশা, ভ্যান, ইজিবাইক, ভডভডি, নসিমন, করিমন, মাহেন্দ্রা, সিএনজি ও কোম্পানির পিকআপ ভ্যানসহ বিভিন্ন রকমের মোটরযান চলাচল করে।
সরেজমিনে দেখা যায়, এ রাস্তাটিতে বড় বড় গর্ত থাকায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে অনেকেই আহত হচ্ছেন। দুর্ঘটনা এড়াতে কিছুদিন ধরে রাস্তায় বড় গর্তে লাল নিশানা টানিয়ে রাখা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ বিষয়টি আমলে নিচ্ছেন না। বেহাল রাস্তাটি অবিলম্বে সংস্কারের দাবি তুলেছেন স্থানীয় লোকজন। অহেলিত রাস্তাটি নিয়ে অটোরিকশা চালক শাহপরান জানান, রাস্তায় গাড়িতে যাত্রী নিয়ে সর্তক না হয়ে চললে যে কোনও মুহূর্তে বড় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। অনেক সময় বিপরীত পাশে আসা গাড়ি পাশ কাটিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার পাশে গর্তে চলে যায়।
রিকশা চালক মোতাহার জানান, পূর্ব বুরদিয়া থেকে হাড়িদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত এই রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালালে ঝাঁকুনিতে বুক ব্যথা করে। এ কারণে এই রাস্তায় গাড়ি নিয়ে আসিনা। রাস্তাটি খানাখন্দের কারণে ভোগান্তিতে পড়তে হয় যাত্রীদের। বিশেষ করে রিকশা চালকরা অনেক ঐ পথে যেতে চায় না। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি পরে ঢাকা থেকে আসা লোকজন। এই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারি যাত্রী মো. মোসলেন মিয়া বলেন, এই সড়কটির পিচ ওঠে বড় বড় গর্ত তৈরি হয়েছে, সংস্কার না করলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এছাড়া অটোরিকশা চলাচল করলে শরীর প্রচন্ড ব্যাথা লাগে। রাস্তাটিতে বড় বড় গর্তের কারণে রোগী ও গর্ভবর্তী মহিলাদের জন্য এই রাস্তাটি ব্যবহার করা অধিক ঝঁকিপূর্ণ। সড়কটি দ্রæত সংস্কার করা না হলে জনসাধারণের চলাচলেরও অনুপযোগী হয়ে পড়বে। তাই সড়কটি সংস্কারের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।
এবিষয়ে গাঁওদিয়া ৩নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য টিটু শিকদার জানান, এর আগে আমি নিজ খরচে বালুর বস্তা দিয়ে রাস্তাটি সংস্কার করে ছিলাম, এখন বৃষ্টির কারনে বস্তা সরে গিয়ে আবার গর্ত হয়েছে।
গাওদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. শহিদুল ইসলাম ফকির জানান, রাস্তায় গর্তের বিষয় আমার জানা নেই। তবে গর্ত হয়ে থাকলে পরিষদ থেকে লোক পাঠিয়ে মেরামত করার ব্যবস্থা করা হবে।
এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী সয়াইব বীন আজাদ জানান, পূর্ব বুরদিয়া থেকে বড়মোকাম বাজার পর্যন্ত রাস্তার ঢালাই কাজ বৃষ্টির জন্য বন্ধ আছে আসামি মাসে ঢালাই কাজ শুরু হবে। এবং বাকি অংশ বাজার থেকে হাড়িদিয়া পর্যন্ত পরবর্তি সময় সংস্কারের কাজ শুরু হবে। তবে গর্ত থাকলে ওখানে লোক পাঠিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন