বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৫ বৈশাখ ১৪৩১, ০৮ শাওয়াল ১৪৪৫ হিজরী

সারা বাংলার খবর

ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে প্রশ্ন তুললেন হিরো আলম

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১০:০৮ এএম

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ‘হিরো আলম এখন জিরো হয়ে গেছে’ বলে মন্তব্য করেছেন। তার এই মন্তব্য ভুল বলে পাল্টা বক্তব্য দিয়েছেন বগুড়া-৪ আসনে উপ-নির্বাচনে হেরে যাওয়া আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম।

শনিবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টায় নিজ ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে এসে হিরো আলম এ বক্তব্য দিয়েছেন।

হিরো আলম বলেন, একটা বিষয়ে ওবায়দুল কাদের স্যার বলেছেন, হিরো আলম এখন জিরো হয়ে গেছে। এটা ভুল বলেছেন। হিরোকে কেউ কোনদিন জিরো বানাতে পারবে না। হিরো হিরোই থাকে। আমাকে জিরো কেউ বানাতে পারেনি, পারবেও না। এটা আপনি (ওবায়দুল কাদের) ভুল বলেছেন। হিরো আলমকে যারা জিরো বানাতে এসেছে, তারাই জিরো হয়েছে।

এর আগে, শনিবার বিকালে রাজধানীর কামরাঙ্গীর চরের সরকারি হাসপাতাল মাঠে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ফখরুল সাহেব বললেন, রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে হিরো আলমকে হারানো হয়েছে। হায়রে মায়া! হিরো আলমের জন্য এতো দরদ উঠল তার?

তিনি বলেছেন, তিনি (মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর) ভেবেছিলেন, হিরো আলম জিতে যাবে। কিন্তু হিরো আলম এখন জিরো হয়ে গেছে। হিরো আলমকে বিএনপি নির্বাচনে দাঁড় করিয়েছে। তারা সংসদকে ছোট করার জন্য হিরো আলমকে প্রার্থী করেছে। অবশেষে ফখরুলের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে।

একটি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত এই সংবাদটি নিজ ফেসবুক পেজে শেয়ারও করেছেন হিরো আলম। রাত ৮টায় সেই পেজে পরপর দুইটি স্ট্যাটাস দেন তিনি।

স্ট্যাটাসে হিরো আলম লিখেন, ওবায়দুল কাদের সাহেবের আমাকে নিয়ে ঘৃণ্য মন্তব্যের বক্তব্য নিয়ে কথা বলব। আজ রাত ৯টায় লাইভে আসব।

কথা মতো রাত ৯টা ২ মিনিটে লাইভে আসেন তিনি। লাইভে আলম বলেন, ‘আজকে দেখলাম আওয়ামী লীগের আমাদের নেতা ওবায়দুল কাদের স্যার আজকে হিরো আলম নিয়ে কিছু মন্তব্য করছেন। হিরো আলমকে নাকি বিএনপি দাঁড়িয়ে দিয়েছে (ভোটে দাঁড় করিয়েছে)। আপনারা শুনেছেন বক্তব্যের ভিতরে। আমার কথা আমাকে কেন বিএনপির দাঁড়িয়ে দেবে? তাহলে আমি বিএনপির সাইনবোর্ড নিয়ে ভোট করতাম। বিএনপির কোনো লোক ভোটের দিন আমার পাশে ছিল? ছিল না। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট করেছি। আমাকে কিন্তু বিএনপির ভোটে দাঁড় করিয়ে দেয়নি। আপনারা সবাই জানেন।’

তিনি বলেন, ‘আজকে বিএনপির ফখরুল ইসলাম স্যার উনি বলেছেন, ‘এই সরকার এখন অসহায় হয়ে গেছে। আমার কথা এই সরকার এখন হয়েছে কিনা আমি জানি না। আমি হিরো আলম যে অসহায় হয়েছি এই প্রশ্নের জবাব কে দেবে? আমার যে ভোট ভোটের ফলাফল কেড়ে নেওয়া হলো এই প্রশ্নের জবাব কে দেবে? আমি কার কাছে বিচার দেব?’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিচার চেয়ে হিরো আলম বলেন, ‘আমি যাদের কাছে বিচার দিতেছি তারাতো বিচারে কোনো ফলাফল দিতেছে না। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি বলব, সবার তো বিচার আপনি করেন, আমি আপনার কাছে বিচার দিলাম। আমার ভোট সুষ্ঠু মতো হলো, কিন্তু আমার ভোটের ফলাফল সুষ্ঠু দেওয়া হলো না কেন? তার আমি বিচার চাই।’

আলম বলেন, ‘হিরো আলম এখন বিএনপির কাঁধে ভর দিয়ে চলতেছে ওবায়দুল কাদের স্যার এটাও বলেছেন। হিরো আলম কারো ওপর ভর করে চলে না। আজকে এতদূর এসেছি কেউ সহযোগিতা করেনি। আমি নিজে পরিশ্রম, সংগ্রাম করে আমি আজকে হিরো আলম হয়েছি। আমি কার ওপরে ভর করি না।’

‘হিরো আলমকে প্ল্যান করে হারানো হয়েছে’ বলেও দাবি করেন তিনি।

হিরো আলম বলেন, ‘আরেকটা বিষয় ওবায়দুল কাদের স্যার বলেছেন, পার্লামেন্টকে ছোট করা হবে হিরো আলম যদি সংসদে যায়। আমার কথা আমি যদি পার্লামেন্টে গেলে ছোটই হয় তাহলে ভোটে যখন আমরা নমিনেশন পেপার কিনি, তখন আপনাদের কিন্তু এটা বলা উচিত ছিল- হিরো আলমের কাছে যেন মনোনয়নপত্র বিক্রি করা না হয়।’

আলম বলেন, ‘আপনার বলেছেন গণতান্ত্রিক দেশ সবাই নির্বাচন করতে পারবে। সবাই যদি নির্বাচন করতে পারে তাহলে আমি ভোটে দাঁড়ালে আপনাদের সংসদ ছোট হবে কেন? সংসদ তো ছোট হওয়ার কথা না। তাহলে আপনাদের আইন করা উচিত যার যোগ্যতা নাই সে পার্লামেন্টে যেতে পারবে না। যার লেখাপড়া নাই সেও যেতে পারবে না।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
M Nasir Shah ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১০:৪৩ এএম says : 0
রাজনীতি দেউলিয়াত্বের দ্বারপ্রান্তে। যখনই রাজনীতিবিদরা নীতি নৈতিকতা আদর্শ গনতন্ত্র বাকস্বাধীনতা থেকে সরে যায় ঠিক তখনই এই রকম আলোচনা সমালোচনার জম্ম হয়। হিরো কে জিরো।জিরো কে হিরো বানাতে পারেন রাজনীতিবিদরা কঠিন শব্দ ব‍্যবহার করতে হচ্ছে।ইতালিয়ান প্রবাদ একজন রাজনীতি থেকে একজন বেশ‍্যা নাকি অনেক সতি। আওয়ামীলীগ লক্ষ লক্ষ নেতা কর্মি দীর্ঘদিন ভোট দিতে পারছেনা। রাজনীতির কৌশলে হোক পর্দার অন্তরালে হোক। মাছের রাজা ইলিশের সহযোগিতায় হোক হচ্ছে। ভোটের উৎসবের জায়নাজা হয়েই গেছে। সরকার যাকে মনোনয়নপত্র দিচ্ছেন। সে হয়ে গেছেন। মনোনয়ন পাওয়ার সাথে সাথেই কোট পেন্ট সেলাই করে শুধু সফতের অপেক্ষায় থাকেন। এটি বাংলাদেশের গনতন্ত্র বর্তমান পরিস্থিতি। সরকার ক্ষমতা ছাড়ার সকল পথ বন্ধ করে দিয়ে ছেন। ছাড়ার সুযোগ নাই। বাঘের পিটে উটেছেন। বাংলাদেশের ভয়ানক রাজনীতি জঘন্যতম মৃত্যুর জন্যে কমবেশি দায়ী কিন্তু প্রদান বিরোধী দল কে নিতে হবে। বাংলাদেশের গনতন্ত্র দেশ রাজনীতি শূন্যতা থেকে ফিরিয়ে আনতে ঐক্যবদ্ধ রাজনীতর বিকল্প নেই। ধন্যবাদ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন