সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০, ২২ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

৪৫ সেন্ডের ভূমিকম্প পুরো বিশ্ববাসীর জন্য একটি বার্তা জুমার খুৎবাপূর্ব বয়ান

শামসুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:১৬ পিএম

সর্বশক্তিমান আল্লাহকে ভয় করুন। তিনি যেমন সকল কিছুর স্রষ্টা ঠিক তেমনি ধ্বংস করার ক্ষমতাও তারই হাতে। সমগ্র বিশ্ব ব্রহ্মান্ডের নিয়ন্ত্রণ তারই হাতে। তাঁকে অস্বিকার করার কোনই সুযোগ নেই। গতকাল রাজধানী মহাখালীস্থ মসজিদে গাউছুল আজমে জুম্মার পূর্ব বয়ানে খতিব মুফতি মাওলানা মাহবুবুর রহমান এসব কথা বলেন।

সম্প্রতি তুরস্ক ও সিরিয়ার ভূমিকম্পের উদ্বৃতি দিয়ে খতিব সাহেব বলেন, একটু খেয়াল করলে দেখবেন মাত্র ৪৫ সেকেন্ডের ভ‚মিকম্পে তুরস্ক ও সিরিয়ার দৃশ্যপট বিভাবে পাল্টে গেলো। এই ৪৫ সেকেন্ডে কত হাজার মানুষ গৃহহারা হয়েছে, কতশত শিশু মাতা-পিতা হারিয়ে ইয়াতিম হয়েছে, কত মানুষ প্রাণ হারিয়েছে, কত বিত্তবান ব্যবসায়ি বেকার হয়েছে। এটি পুরো বিশ্ববাসীর জন্য একটি বার্তা। তা হলো আল্লাহ সর্ব ক্ষমতার অধিকারী। আল্লাহর অনুগ্রহ ব্যতীত আমরা হাজারো চেষ্টা করলেও অর্জিত সম্পদ রক্ষণাবেক্ষন করতে পারবো না। চাইলেও আপনজনদের ধরে রাখতে পারবো না। তবু কেন এতো প্রতিযোগিতা? কেন এতো প্রতিহিংসা? কেনইবা লোভ, অহংকার, সম্পদের মোহ আমাদের কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে। আবার আমরা অনেকে তো ¯্রষ্টাকেই অস্বিকার করছি। দূর্বলদের উপর জুলুম করছি অকাতরে। আপনার আমার সম্পদ, শক্তি, ক্ষমতা আল্লাহ কেন দিয়েছেন একটু ভাবুন। অন্যথায় সকলকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হতে হবে। দুনিয়ায় দাম্ভিতকা দেখিয়ে কেহই পরিত্রাণ পায়নি। আল্লাহর সাথে প্রতিযোগীতার দুঃসাহ দেখাতে যাবেন না। সাময়িক আনন্দ, তৃপ্তি ও বিজয়ের জন্য চিরস্থায়ী দুঃখ ও পরাজয়কে বরণ করতে না হয় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। এক মুহুর্তের জন্য ভুলে যাবেন না আমাদের প্রত্যাবর্তন মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নিকটেই। অসীম ক্ষমতার অধিকারীর নিকট প্রত্যেক কৃতকর্মের জবাব দিতেই হবে। আমরা প্রতিদিন মানুষের মৃত্যু দেখি, দুর্ঘটনাসমূহ অবলোকন করি, দুঃসময়য়ের স্বাক্ষী হই, অথচ একবারও ভাবি না আমারও ঐ মানুষটির মত মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে হবে। দুর্ঘটনা, দুঃসময় আমার জীবনে আসতে কতক্ষণ।

খতিব পবিত্র কোরআনের আয়াত উল্লেখ করে বলেন, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেছেন, আকাশমন্ডলী ও পৃথিবীতে যা কিছু আছে সমস্তই আল্লাহর। বস্তুতঃ তোমাদের মনে যা আছে তা প্রকাশ কর অথবা গোপন রাখ, আল্লাহ তার হিসাব তোমাদের নিকট থেকে গ্রহণ করবেন। অতঃপর যাকে ইচ্ছা তিনি ক্ষমা করবেন এবং যাকে খুশী শাস্তি দেবেন। বস্তুতঃ আল্লাহ সর্ব বিষয়ে সর্বশক্তিমান (সূরা বাকারা ২৮৪)। আমারা ক্ষমতার দাপটে আজ নিজের অস্তিত্ত¡কে ভুলতে বসেছি। ভুলতে বসেছি দুনিয়াবি সাময়িক ক্ষমতা নির্ধারণ করেন মহান রাব্বুল আলামীন। আল্লাহ বলেন, হে মানব স¤প্রদায়! তিনি (আল্লাহ) ইচ্ছা করলে তোমাদেরকে অপসারিত করতে ও অপর (জাতি) কে আনয়ন করতে পারেন এবং আল্লাহ তা করতে সম্পূর্ণ সক্ষম (সূরা নিসা ১৩৩)। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন যুগে যুগে সীমালঙ্ঘনকারীদের ভয়াবহ শাস্তির সম্মুখিন করেছেন। আমাদের কৃতকর্মের কারণে যেন এমন কোন আজাব কিংবা গজব না আসে সেদিকে লক্ষ রাখা জরুরি। ভ‚মিকম্প, জলচ্ছাস, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, দাবানল, খড়া ও শীতের তীব্রতা থেকে আপনি আমি নিরাপদ তো? আজ লক্ষ করলে দেখা যায় সমাজে গুনাহের ছড়াছড়ি। সংস্কৃতির নামে অশ্লিলতা শিক্ষা দেয়া হয়। গান, বাজনা, নৃত্য দ্বারা পাঠ্যপুস্তক সন্নিবেশিত করা হয়। বেপর্দা, বেহায়াপনাকে সামাজিকভাবে স্বীকৃতি দেয়ার পাশাপাশি উৎসাহিত করা হয়। মাদকে সয়লাব সর্বত্র। যেনা, ব্যভিচার এখন মামুলি ব্যাপার। হত্যা, গুম, লুটপাট, জুলুম, নির্জাতনের সংবাদ যেন সাধারণ বিষয়। যুবসমাজ ইন্টারনেটের কালো থাবায় ইবাদাত থেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে রাখছে। এছাড়াও আরো কত গুনাহ্ তার হিসেব নেই। আল্লাহর গজব ও আজাবের জন্য যেন আমরা পুরো প্রস্তুত হয়ে আছি। সময় বেশী নেই প্রত্যাবর্তন করুন মহান ¯্রষ্টার দিকে। ভয় করুন তাঁর পক্ষ থেকে প্রেরিত ধ্বংসযজ্ঞকে। সকল প্রকার গুনাহ্ থেকে নিজেদের হেফাজত করুন। অন্যথায় পরিত্রাণের কোন উপায় নেই।
খতিব সাহেব তুরস্কের ভ‚মিকম্পে নিহতদের রূহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া করে সকলকে তাদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ জানান। চরমোনাই বার্ষিক মাহফিলে আজ জুমার খুৎবা পূর্ব বয়ানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম বলেন, বৃটিশরা এদেশের ওলামায়ে কেরামদের রাজনীতি থেকে দূরে রেখে গোলামীর জিঞ্জির পড়িয়ে দিয়েছে। রাজনীতি জায়েজ নেই এমন কথা মূলত ইয়াহুদী ও খ্রীষ্টানদের শেখানো বুলি। তিনি বলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ক্ষমতায় যাবার জন্য নয় ইসলামকে ক্ষমতায় নেবার জন্য কাজ করছে। আজ জুমার নামাজে অংশ নেন বরিশালের প্রশাসনিক, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গ।

মিরপুরের বাইতুল আমান কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মুফতি আবদুল্লাহ ফিরোজী আজ জুমার খুৎবা পূর্ব বয়ানে বলেন, বিশ্ব মানবতার মুক্তির দিশারী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র সীরাতের গুরুত্বপূর্ণ একটি অধ্যায় ইসরা ও মেরাজ। মুমিনের আবেগ, অনুভ‚তি, ভক্তি ও বিশ্বাসের সাথে মিশে আছে ইসরা ও মেরাজের সত্যতা। বিশুদ্ধ মতে ইসরা ও মেরাজ নবুওয়াতের ১১তম বছরের ২৬ রজব দিবাগত রাতে সংঘটিত হয়েছিল। নবীজির (সা.) বয়স তখন ৫১ বছর। ইসরা অর্থ নৈশভ্রমণ, রাত্রিকালীন ভ্রমণ। মেরাজ অর্থ সিঁড়ি, সোপান, ঊর্ধ্বলোকে গমন ইত্যাদি। মহাগ্রন্থ আল কোরআনে আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন, পবিত্র সেই সত্তা, যিনি নিজ বান্দাকে রাতের একটি অংশে ভ্রমণ করিয়েছেন মসজিদুল হারাম থেকে মসজিদুল আকসা পর্যন্ত, যার চারপাশকে আমি বরকতময় করেছি, যাতে তাকে আমার কুদরতের কিছু নিদর্শন দেখাই। নিশ্চয়ই তিনি সর্বশ্রোতা এবং সর্বদ্রষ্টা। (সূরা বনি ইসরাঈল: আয়াত নং-১)। বস্তুত ইসরা হচ্ছে, মক্কা মুকাররমা থেকে বাইতুল মুকাদ্দাস পর্যন্ত ভ্রমণকে যা রাতের একটি অংশে সংঘটিত হয়েছিল।
আর সেখান থেকে ঊর্ধ্বজগৎ পরিভ্রমণের বিস্তৃত অধ্যায়কে মেরাজ বলে। পবিত্র কোরআনে ইসরার কথা স্পষ্ট উল্লেখ থাকলেও মেরাজের কথা প্রচ্ছন্ন আকারে রয়েছে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন, অবশ্যই তিনি (হযরত মুহাম্মদ সা.) তাকে (জিবরাঈল আ.-কে) আরও একবার দেখেছেন, সিদরাতুল মুনতাহার কাছে। তার পাশেই রয়েছে জান্নাতুল মাওয়া। (সূরা নাজম: আয়াত নং- ১৩-১৫)। ইসরা ও মেরাজের ব্যাপারে কোরআনে সংক্ষেপে এতটুকুই বলা হয়েছে। বিস্তারিত বিবরণ বর্ণিত হয়েছে হাদীসের নির্ভরযোগ্য কিতাবগুলোতে। বিশেষ করে প্রায় ত্রিশজনের মতো নির্ভরযোগ্য সাহাবী থেকে মুতাওয়াতির সূত্রে মেরাজের ঘটনার সত্যতা ও বিবরণ বর্ণিত হয়েছে। ইসরা ও মেরাজ সংঘটিত হয়েছিল স্বশরীরে জাগ্রত অবস্থায়। এর প্রকৃষ্ট প্রমাণ হল কাফের, মুশরিক ও মুনাফিকদের অস্বীকৃতি ও অবিশ্বাস। যদি আধ্যাত্মিক বা রূহানী ভাবে কিংবা স্বপ্নযোগে হওয়ার কথা বলা হতো, তাহলে তাদের অবিশ্বাস করার কোনো কারণ ছিল না। এবং এটা নিয়ে তারা শোরগোল করতো না। মেরাজের রাতে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহ তায়ালাকে স্বচক্ষে দেখেছেন। হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল (সা.) ইরশাদ করেছেন, আমি আমার রব আল্লাহ তায়ালাকে দেখেছি। (মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-২৫৮০)।

খতিব আরও বলেন, মেরাজের ঘটনা থেকে আমাদের শিক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, মহান আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রাখা। শিরক থেকে বেঁচে থাকা। আল্লাহর সাথে বান্দার আবদিয়াত তথা দাসত্বের সম্পর্ক আরও মজবুত করা। নামাযের প্রতি যতœবান হওয়া। কেননা এটা মেরাজে লাভ করা উম্মতের জন্য নবীজীর (সা.) তোহফা। আল্লাহ তায়ালা ও বান্দার হকের প্রতি যতœবান হওয়া এবং গীবত, পরনিন্দা থেকে বেঁচে থাকা। মানুষের সম্ভমহানি না করা। কাউকে অপদস্থ ও লাঞ্ছিত না করা। কারণ এটা অনেক বড় কবীরা গুনাহ। জান্নাতের ব্যাপারে আগ্রহী এবং জাহান্নামের ব্যাপারে ভীত থাকা। হাউজে কাউসারের প্রত্যাশী হওয়া। সব ধরনের গুনাহ, বিশেষ করে মদ, যেনা ও অশ্লীলতা থেকে বেঁচে থাকা। যেই পবিত্র ও বরকতময় ভ‚মিতে নবীজী (সা.) এর ইসরা ঘটেছে সেই বাইতুল মুকাদ্দাস ও জেরুজালেম আজ বেদখল। সেখানে প্রতিনিয়ত আগ্রাসী ইহুদীদের হাতে প্রবাহিত হয় আমার মুসলমান ভাইয়ের রক্ত। বাইতুল মুকাদ্দাস দখলমুক্ত করার দৃঢ় প্রত্যয় ও নিয়ত রাখাও ইসরা ও মেরাজের গুরুত্বপূর্ণ একটি শিক্ষা। মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে আমল করার তৌফিক দান করেন, আমীন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Rabbul Islam Khan ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪২ পিএম says : 0
দিন যতই যাচ্ছে, ততই বিজ্ঞানের উৎকর্ষ সাধন হচ্ছে। মানুষ পৃথিবী ছাড়িয়ে আকাশ-মহাকাশে যাত্রা করছে। মানুষ তার উদ্ভাবনী শক্তির মাধ্যমে আকাশচুম্বী প্রাসাদ নির্মাণ করছে। বড় বড় দালান-কোঠা তৈরি করছে। ভোগ-বিলাসের বাহারি আয়োজনে মেতে উঠছে। কিন্তু মহান আল্লাহর শক্তি ও ক্ষমতার সামনে এসব যে কিছুই নয়, তারই একটি দৃষ্টান্ত হয়ে গেল তুরস্কে ঘটে যাওয়া স্মরণকালের ভয়াবহ ভূমিকম্পটি।
Total Reply(0)
Rabbul Islam Khan ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪২ পিএম says : 0
দিন যতই যাচ্ছে, ততই বিজ্ঞানের উৎকর্ষ সাধন হচ্ছে। মানুষ পৃথিবী ছাড়িয়ে আকাশ-মহাকাশে যাত্রা করছে। মানুষ তার উদ্ভাবনী শক্তির মাধ্যমে আকাশচুম্বী প্রাসাদ নির্মাণ করছে। বড় বড় দালান-কোঠা তৈরি করছে। ভোগ-বিলাসের বাহারি আয়োজনে মেতে উঠছে। কিন্তু মহান আল্লাহর শক্তি ও ক্ষমতার সামনে এসব যে কিছুই নয়, তারই একটি দৃষ্টান্ত হয়ে গেল তুরস্কে ঘটে যাওয়া স্মরণকালের ভয়াবহ ভূমিকম্পটি।
Total Reply(0)
Md Ali Azgor ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪৩ পিএম says : 0
নিমিষেই বিধ্বস্ত হয়ে গেল হাজারো আকাশচুম্বী প্রাসাদ। চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে গেল মানুষের অহংকার। ধ্বংসাবশের নিচে চাপা পড়ল হাজারো নারী-পুরুষ শিশু কিশোর। সবার আহাজারিতে আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠলো। নড়েচড়ে বসল পুরো পৃথিবী। সকলে সহযোগিতার হাত বাড়ালো। এখনো পুরো দমে চলছে উদ্ধারের কাজ। আমরা মনেপ্রাণে দোয়া করি আল্লাহপাক ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ও জাতিকে হেফাজত করুন। আমীন।
Total Reply(0)
মাওঃসাইফুল ইসলাম পারভেজ ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪৩ পিএম says : 0
কুরআন ও সুন্নাহর বর্ণনা থেকে বোঝা যায়, এগুলোর উদ্দেশ্য হল মানব জাতিকে সতর্ক করা, যাতে তারা অন্যায় ও পাপ কাজ বর্জন করে। নিজেদের শুধরে নেয়। আল্লাহর প্রতি ধাবিত হয়। আপন কৃতকর্মে অনুতপ্ত হয়ে তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে। আল্লাহর কাছে কাকুতি-মিনতি করে। এসব ছোটখাটো ঘটনা প্রত্যক্ষ করে মহাপ্রলয় কারী কেয়ামতের কথা স্মরণ করে।
Total Reply(0)
মাওঃসাইফুল ইসলাম পারভেজ ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪৩ পিএম says : 0
কুরআন ও সুন্নাহর বর্ণনা থেকে বোঝা যায়, এগুলোর উদ্দেশ্য হল মানব জাতিকে সতর্ক করা, যাতে তারা অন্যায় ও পাপ কাজ বর্জন করে। নিজেদের শুধরে নেয়। আল্লাহর প্রতি ধাবিত হয়। আপন কৃতকর্মে অনুতপ্ত হয়ে তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে। আল্লাহর কাছে কাকুতি-মিনতি করে। এসব ছোটখাটো ঘটনা প্রত্যক্ষ করে মহাপ্রলয় কারী কেয়ামতের কথা স্মরণ করে।
Total Reply(0)
জামাল কামাল ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪৩ পিএম says : 0
তারা কি আল্লাহর পাকড়াওয়ের ব্যাপারে নিশ্চিন্ত হয়ে গেছে? বস্তুত আল্লাহর পাকড়াও থেকে তারাই নিশ্চিন্ত হতে পারে, যাদের ধ্বংস ঘনিয়ে আসে। (সুরা আল আ'রাফ- ৯৯)
Total Reply(0)
তানবীর হাসান তনু ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৭:৪৪ পিএম says : 0
সমাজে যখন অন্যায়-পাপাচার, জুলুম নির্যাতন বেড়ে যায়। মানুষ বেপরোয়া হয়ে যায়। আল্লাহর সীমারেখা লঙ্ঘন করে। বান্দার হক নষ্ট করে। তখনই আল্লাহ তায়ালা ভূমিকম্পসহ প্রাকৃতিক বিভিন্ন দুর্যোগ দিয়ে থাকেন।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন