শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯, ১২ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

অভ্যন্তরীণ

কাজ না থাকায় বেকার ১ হাজার শ্রমিকের মানবেতর জীবন

মধ্যপাড়া কঠিনশীলা প্রকল্পে ৫ মাস উৎপাদন বন্ধ

প্রকাশের সময় : ২ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মো. আবু শহীদ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) থেকে : দিনাজপুরের মধ্যপাড়া কঠিনশীলা প্রকল্পে উৎপাদন সরঞ্জাম না থাকায় গত ৫ মাস থেকে বন্ধ হয়ে আছে পাথর উৎপাদন। খনিতে কাজ না থাকায় বেকার হয়ে পড়েছেন খনির ১হাজার শ্রমিক। ৫ মাস থেকে কাজ না থাকায় বেতন ভাতা না পেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে এখন তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অপরদিকে উৎপাদন বন্ধ থাকায় সরকারকে গুনতে হচ্ছে কোটি কোটি টাকার লোকসান। মধ্যপাড়া খনি সূত্রে জানা যায়, উৎপাদন যন্ত্রাংশ না থাকায় গত ২০১৫ সালে ২২ সেপ্টেম্বর থেকে উৎপাদন বন্ধ করে দেয় খনিটির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রাস্ট্র কনসোডিয়াম(এঞঈ)। খনিতে কাজ না থাকায় সেপ্টেম্বরের বেতন দিয়েই ৩ শিফ্টে কর্মরত ১ হাজার শ্রমিককে অনির্দিষ্টকালের জন্য ছুটি দেয়া হয়। এর পর ৫ মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত উৎপাদন যন্ত্রাংশ খনিতে না পৌঁছার কারণে পুনরায় উৎপাদন কাজ শুরু করতে পারছে না জিটিসি। ফলে জিটিসির আওতায় থাকা শ্রমিকেরা এখন বেতনভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অনেক শ্রমিক অভিযোগ করে বলেন, পুনরায় কাজ শুরু হবে বলে তারা অন্য কোনো কাজে যোগ দিতে পারছেন না। কিন্তু খনিটির কাজ শুরু না হওয়ার কারণে শ্রমিদের পরিবারগুলো এখন অচল হয়ে পড়েছে। জানা গেছে, মধ্যপাড়া কঠিনশীলা প্রকল্পটি লোকসানের হাত থেকে রক্ষার জন্য ২০১২ সালে সেপ্টেম্বর মাসে খনিটির রক্ষণাবেক্ষণ ও উৎপাদনের জন্য চুক্তি হয় জার্মানীয়া ট্রাস্ট্র কনসোডিয়াম জি.টি.সি কোম্পানির সাথে। জিটিসি চুক্তি অনুযায়ী ২০১৪ সালের শুরুতেই খনিটির উৎপাদনসহ সার্বিক দায়ীত্ব বুঝে নেয় এবং ২০১৪ সালে ৩ শিফটে উৎপাদন শুরু করে। এতে খনিটির প্রতিদিনের পাথর উৎপাদন ১হাজার মেঃটন থেকে সাড়ে ৪ হাজার মেঃ টনে উন্নীত হয়। কিন্তু উৎপাদনের যন্ত্রাংশ মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড সময়মতো সরবরাহ করতে না পারায় ২০১৫ সালের ২২ সেপ্টেম্বর খনিটির উৎপাদন একেবারে বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় জিটিস। এর ৫মাস অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত খনিতে উৎপাদন যন্ত্রাংশ এসে পৌঁছায়নি। এ বিষয়ে মুঠো ফোনে খনির মাইনিং ও অপারেশন মহাব্যবস্থাপক মীর আব্দুল হান্নানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই মাইনিং এর যন্ত্রাংশ বিদেশ থেকে খরিদের জন্য এলসি করা হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যেই যন্ত্রাংশ এসে পৌঁছাবে। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন আগামী মার্চ মাসের শুরু থেকেই খনিটি পুনরায় পুরোদমে উৎপাদনে যাবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন