ঢাকা, রোববার ২১ জুলাই ২০১৯, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

যুদ্ধ নয় আলোচনা

সদিচ্ছায় অভিনন্দনকে মুক্তির ঘোষণা ইমরান খানের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:১০ এএম

পরমাণু শক্তিধর পাকিস্তান ও ভারত পরস্পরের ভূখন্ডে বিমান হামলা চালানোর পর শান্তির স্বপক্ষে আওয়াজ উঠেছে বিশ্বব্যাপী। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, চীনসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা যুদ্ধের পথে না গিয়ে আলোচনার টেবিলে বসার আহ্বান জানিয়েছে। এই পথটিকেই সঠিক এবং ইতিবাচক মেনে আটক ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে আজ শুক্রবার মুক্তি দেয়া হবে বলে ঘোষণা করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আজ পাকিস্তানের নিযুক্ত ভারতীয় হাই-কমিশনারের কাছে আটক অভিনন্দনকে হস্তান্তর করা হবে। ইমরান খান বলেছেন, আমরা যে শান্তি চাই এর প্রমাণ হিসেবেই তাকে মুক্তি দেয়া হচ্ছে। তবে তিনি একথাও স্মরণ করিয়ে দিতে ভোলেননি যে, উত্তেজনা কমানোর উপায় হিসেবে ঘোষিত এই পদক্ষেপকে ভারতের পক্ষ থেকে দুর্বলতা ভাবা উচিত হবে না। অভিনন্দনের মুক্তির ঘোষণাকে ‘সুনাম তৈরিতে এক ধাপ এগোলো পাকিস্তান’ বলে স্বাগত জানিয়েছে ভারত। চলমান উত্তেজনার মাঝে গুরুত্বপূর্ণ বার্তা নিয়ে সউদী পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবেইর আজ পাকিস্তান আসছেন। রাশিয়া জানিয়েছে, বিবদমান পক্ষ সম্মত হলে তারা দেশ দু’টির মধ্যে মধ্যস্থতা করতে রাজি আছে। শান্তিতে নোবেলজয়ী পাকিস্তানি কিশোরী মালালা ইউসুফজাইও ইমরান খান ও নরেন্দ্র মোদির মধ্যে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ভারত ও পাকিস্তান থেকে ‘যথোপযুুক্ত’ সংবাদ মিলছে এবং আশা করছি যুদ্ধের ইতি ঘটবে। ভারত-পাকিস্তানের চলমান উত্তেজনায় এবার সৌহার্দ্যের বার্তা দিলেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেট তারকা ওয়াসিম আকরাম। বুধবার টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে ভারতের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান তোমাদের শত্রু নয়’। আটক ভারতীয় পাইলটকে মুক্তি দিতে ইসলামাবাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টোর মেয়ে পাকিস্তানি লেখিকা ফাতিমা ভুট্টো। এদিকে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার এখনো ইতি ঘটেনি। ভারত সীমান্তে তারা যেমন যুদ্ধকালে স্থানীয় লোকদের আশ্রয়ের জন্য ১৪ হাজার বাঙ্কার খনন করছে, তেমনি পাকিস্তান সীমান্ত জুড়ে জারি করা হয়েছে হাই অ্যালার্ট। এর আগেই পাকিস্তানের আকাশসীমা আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের জন্য বন্ধ করে দেয়ায় বিশ্বজুড়ে বিমানজট সৃষ্টি হয়েছে, বিড়ম্বনায় পড়েছেন লাখ লাখ বিমানযাত্রী।
উত্তেজনা প্রশমনে শান্তির ইঙ্গিত হিসেবে আটক ভারতীয় পাইলটকে মুক্তি দেয়ার ঘোষণার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ‘উত্তেজনা কমানোর এই পদক্ষেপকে দুর্বলতা হিসেবে বিবেচনা করা উচিত হবে না।’
গতকাল পাকিস্তানের পার্লামেন্টের যৌথ অধিবেশনে ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে শুক্রবার ফেরতের ঘোষণা দেয়ার পর এ মন্তব্য করেন তিনি। পাক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব সঙ্কটই আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা উচিত। কারতারপুর করিডোর খোলা সত্তে¡ও আমরা ভারতের কোনো সাড়া পাইনি। ‘পুলওয়ামা হামলার ৩০ মিনিটের মধ্যে আমাদের ওপর দায় চাপানো হল। আমি বলছি না যে, ভারতের কোনো বিষয়ে পাকিস্তানের ভূমিকা আছে, তবে আমি তাদের তথ্য-প্রমাণ শেয়ার করার আহ্বান জানিয়েছিলাম।’
পাকিস্তানের গণমাধ্যমের প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘ভারতের গণমাধ্যম যুদ্ধের হিস্টিরিয়া তৈরি করেছে। আমাদের গণমাধ্যম একাত্মতা দেখিয়েছে এবং দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করেছে।’ ইমরান খান বলেন, আমরা বুঝতে পারছিলাম যে, তারা (ভারত) কিছু করবে। কিন্তু আমাদের অভিযান চালানোর উদ্দেশ্য ছিল শক্তি প্রদর্শন এবং আমরা সেটি করেছি।
‘আমরা ভারতের কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটাতে চাইনি। সেজন্য দায়িত্বশীল উপায়ে কাজ করতে চেয়েছিলাম। আমি আগেই বলেছি, ভারত যদি কিছু করে, তাহলে আমরা তার জবাব দেব।’ তিনি বলেন, ভারত জাতিসংঘের আইন লঙ্ঘন করেছে। তারা আক্রমণ চালানোর দু’দিন পর আজ আমাদের কাছে কিছু নথি দিয়েছে।
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভুল হিসেবের ফলে অনেক দেশ ধ্বংস হয়েছে। যুদ্ধ কোনো সমাধান নয়। ভারত যদি কোনো পদক্ষেপ নেয়, তাহলে আমাদের প্রতিশোধ নিতে হবে। কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, এক দিক থেকে কাশ্মীরি নেতারা বিচ্ছিন্ন হতে চাননি। কিন্তু ভারতের নৃশংসতার কারণে আজ তারা সবাই স্বাধীনতা চান।
কাশ্মীরের সব ঘটনার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করার এই প্রবণতা কত দিন পর্যন্ত চলবে, প্রশ্ন ইমরান খানের। তিনি বলেন, কাশ্মীর ইস্যু অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে দেয়া উচিত নয়। নতুবা পাকিস্তান প্রতিশোধ নেবে।
শান্তির আবহ সৃষ্টির মাঝে গতকালও সীমান্তরেখা বরাবর দু’পক্ষের মধ্যে গুলি বিনিময়ের খবর পাওয়া গেছে। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। এরই মাঝে ভারত সীমান্তে ১৪ হাজার বাঙ্কার খনন করছে বলে জানা গেছে। দু’দেশের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হলে স্থানীয় অধিবাসীদের যাতে সেগুলোতে আশ্রয় দেয়া যায় সে লক্ষ্যেই এসব বাঙ্কার খনন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।
সউদী আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ বার্তা নিয়ে আজ শুক্রবার পাকিস্তান সফরে আসছেন সউদী আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবেইর। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি বলেছেন, বুধবার দিবাগত রাতে সউদী আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আমি কথা বলেছি। তিনি পাকিস্তান সফরের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তার এ ইচ্ছাকে আমি স্বাগত জানিয়েছি।
বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে ফেরালে যদি ভারত-পাক উত্তেজনা প্রশমিত হয়, তাতে আপত্তি নেই পাকিস্তানের। এ ব্যাপারে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা বলতে চান ইমরান খান। যে কোনো রকম ইতিবাচক পদক্ষেপেই প্রস্তুত তারা। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চলতে থাকা উত্তেজনা কমবে। আসবে আরও কিছু ভাল খবর । ভিয়েতনামের হ্যানয়-এ একটি সাংবাদিক বৈঠকে এই মন্তব্য করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।
একই সঙ্গে ট্রাম্পের মন্তব্য, ‘ভারত এবং পাকিস্তান এই উত্তেজনা বাড়িয়েই যাচ্ছিল আর আমরা ওদের থামাতে নানাভাবে চেষ্টা চালাচ্ছিলাম। মধ্যস্থতা করে কীভাবে ওদের থামানো যায় সেই চেষ্টাই করছিলাম আমরা।’
গত ১৪ ফেব্রুয়ারি জম্মু ও কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জইশ জঙ্গিদের আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলায় ৪৪ জন ভারতীয় জওয়ান মারা যাওয়ার পর থেকেই দুই দেশের মধ্যে শুরু হয় উত্তেজনা। মঙ্গলবার ভারত-পাক আন্তর্জাতিক সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে ঢুকে ভারতের মিরাজ যুদ্ধবিমান বোমাবর্ষণ করায় চরমে ওঠে উত্তেজনা। সেই উত্তেজনায় রাশ টানতে দুই দেশকেই সংযত হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছিল আন্তর্জাতিক দুনিয়া। আমেরিকা, চীন থেকে শুরু করে ইউরোপিয় ইউনিয়ন, সবারই বক্তব্য ছিল’ যুদ্ধবিমান নয়, আলোচনার রাস্তায় বসে ঝামেলা মিটিয়ে নিক ভারত ও পাকিস্তান।
এদিকে পাকিস্তানের বালাকোটে মঙ্গলবারের বিমান অভিযানে জঙ্গি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ধ্বংস হয়ে অন্তত ৩০০ জঙ্গি নিহত হওয়ার দাবি করেছিল ভারত। তবে পাকিস্তানের পাশাপাশি নামী আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলিও কার্যত সে দাবি স্বীকার করছে না। ইসলামাবাদ থেকে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের এক দল সাংবাদিককে বুধবার বালাকোটের ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হয়।
দুই পশ্চিমা নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস’-এর প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন, বালাকোটে যেখানে ভারতীয় বিমান বোমা ফেলেছে, সেখানে হয়তো জঙ্গি ঘাঁটি ছিল। কিন্তু ২০০৫-এ ভয়ঙ্কর ভূমিকম্পের পরে বিদেশি ত্রাণ সংস্থাগুলি ওই অঞ্চলে যাতায়াত শুরু করে। ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়েই জঙ্গিরা বালাকোটের এই এলাকা ছেড়ে অন্য কোথাও সরে যায়। সুতরাং ভারতীয় বোমায় ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশ কম বলে তাদের ধারণা।
যেভাবে ধরা হয় ভারতীয় পাইলটকে : পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বাসিন্দা ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ রাজ্জাক চৌধুরী পাইলটকে কীভাবে ধরা হয় তার বর্ণনা দেন। বুধবার সকালে দুটি যুদ্ধবিমানের লড়াইয়ের শব্দ শোনেন তিনি। একসময় তিনি দেখেন দুটি বিমানেই আগুন লেগে গিয়েছে। এর মধ্যে একটি বিমান দ্রুত নিচে নামতে থাকে। পরে সেটি রাজ্জাকের বাড়ির কিছু দূরে গিয়ে বিধ্বস্ত হয়। এ সময় তিনি প্যারাসুট নিয়ে একজনকে নামতে দেখেন। নিচে নেমে আসলে পাইলটটি দ্রুত একটি পুকুরে ঝাঁপ দেন। এ সময় তাকে ধরার জন্য স্থানীয় কয়েকজন তরুণ ছুটে যান।
প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ওই পাইলটের কাছে তখন পিস্তল ছিল। তিনি পিস্তলটি দিয়ে শূন্যে কয়েকটি গুলি করেন। এতে করে তরুণরা পাথর হাতে তুলে নেন। পাইলটকে অস্ত্র ফেলে দিতে বলেন তারা। কিন্তু তিনি তা করেননি। এসময় তারা পাইলটের পায়ে আঘাত করেন। উপায় না পেয়ে পাইলট তাকে মেরে না ফেলার আহ্বান জানান। এ সময় পাকিস্তানের সেনারা চলে আসে। পাইলটকে আটক করে তাদের হেফাজতে নিয়ে যায়। পরে তাকে সেনাবাহিনীর গাড়িতে তুলে ভিমবার এলাকায় সেনা ক্যাম্পে নেওয়া হয়।
ভারতীয় পাইলট বলেন, পাকিস্তানি সেনারা আমাকে বিমান বিধ্বস্তের স্থান থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। এরপর তারা আমাকে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। আমি পাকিস্তানি সেনাদের ব্যবহারে মুগ্ধ। ভারতেরও উচিত এমন পথ অনুসরণ করা।
যিনি ভারতীয় যুদ্ধবিমানকে ভূপাতিত করেন : পাকিস্তানের স্কোয়াড্রন লিডার হাসান সিদ্দিকী গুলি করে ভারতের ওই যুদ্ধবিমানকে ভূপাতিত করেন। তিনি করাচীর পাইলট। সফলভাবে অভিযান পরিচালনা করায় পাকিস্তানে তিনি ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছেন। সূত্র : ডন, টাইমস অব ইন্ডিয়া, দ্য গার্ডিয়ান, আল-জাজিরা, আরব নিউজ ও এনডিটিভি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (22)
নাস্তিক মুক্ত বাংলা চাই ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৮ এএম says : 0
ভারত--যুদ্ধ পাকিস্তান --- না ভারত---যুদ্ধ যুদ্ধ যুদ্ধ পাকিস্তান --ঠাস ঠাস ঠাস==ভারতের ২ টি বিমান শেষ, একটি হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, একজন সেনা আটক,ভারতীয় বিমান বাহিনীর আত্মহত্যা। যুদ্ধ? ভারত--না
Total Reply(0)
Rifat Hossin ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
গরুর বাচ্চা আর মুসলমানের বাচ্চার মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে এরা মানবিক আর ওরা পাশবিক,, কারন ওদের মা গরু,, ওরা যদি এই পাইলোটকে পাইতো তাইলে বুনো উল্লাস করতো,, মানবিকতা মোটেও দেখাইতো না
Total Reply(0)
প্রবাসী রাজকুমার রববানী ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০৩ এএম says : 0
ভারতের হিন্দুদের না মেরে ওদের সমস্ত গরুগুলোকে মেরে ফেলতে হবে। গরুর মূত না পেয়ে এমনিতেই ছটফট করতে করতে মইরা যাইব।
Total Reply(0)
Mitol Ahmed ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
আসুন জেনে নিই বাংলাদেশ এর মানুষ কেনো পাকিস্তান কে সাপোর্ট করে... ১৯৭১ সালে পাকিস্তানিরা বাংলাদেশ এর ৩০ লক্ষ মানুষ কে মেরেছিলো এখন প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম বদলেছে ....আপনি এখন যদি কোন বাংলাদেশী মানুষকে প্রশ্ন করেন আপনি পাকিস্তান কে দেখতে পারেন...???তখন সেই মানুষটির উত্তর আসবে না কিন্তু যখন তাকে প্রশ্ন করবেন আপনি ভারত বা পাকিস্তান কাকে দেখতে পারেন, তখন তার উত্তর আসবে পাকিস্তান....সুতরাং শুধুমাত্র ভারত নামটা আসলেই বাংলাদেশীরা পাকিস্তান কে সাপোর্ট করে এখন কথা হচ্ছে এমনটা কেনো ..... আসুন টপিক ধরে বুঝিয়ে দি = যুদ্ধ শেষে ২৭০০ কোটি টাকার অস্ত্র-সরঞ্জাম লুট করেছিলো ভারতীয় সেনাবাহিনী? ( অমৃতবাজার দৈনিক-১২ মে ১৯৭৪) =৭৪ সালের চুক্তি সত্বেও ভারত তিন বিঘা করিডোর হস্তান্তর করেনি বাংলাদেশকে ! = ভাই ৭৫ থেকে বাংলাদেশকে পানির নায্য হিস্যা দেয়নি। পদ্মা শুকিয়ে আজ বাথরুমের টাংকি ! বছরে ২০০ কোটি টাকার ফসল উৎপাদন বন্ধ ! = ভাই, খড়া মৌসুমে তারা বাধ দিয়ে পানি আটকে রাখে, আর ভরা মৌসুমে বাধ ছেড়ে দিয়ে বাংলাদেশকে ভাসিয়ে দেয়! = শুল্ক জটিলতা সৃষ্টিকরে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার বানিজ্য ঘাটতি তৈরী করেছে ! =প্রতিবাদের পরেও টিপাইমুখে বাধ দিচ্ছে! সিলেটের ১৬ জেলা মরুভূমি হয়ে যাবে ! = হিন্দি চ্যানেল প্রচার করতে ৩০০০থেকে ৪৫০০ কোটি টাকা ভারতকে দেয়া হয়। কিন্তু বাংলাদেশী চ্যানেল ভারতে নট অ্যালাউড! = ভাই, গত ৪৪ বছরে ৬১হাজার বাঙ্গালীকে সীমান্তে হত্যা করেছে !! =আমাদের বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবন! সেই সুন্দরবনকে ধ্বংসের জন্য তারা উঠেপড়ে লেগেছে! = আপনার গর্বের জায়গা ‘ক্রিকেট’ নিয়েও ষড়যন্ত্র শুরু করেছে, কেমন ছোটলোক! = আশ্চর্য ভাই, সাংস্কৃতিক আগ্রাসন, অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে নির্লজ্জ হস্তক্ষেপ, মাথার উপর দাদাগিরি সহ নানাভাবে বাংলাদেশ আজ ধর্ষিত ভারতের কাছে ! = এই যে আমাদের গর্বের সেনাবাহিনী, তাদেরকে নিয়েও তারা কত ষড়যন্ত্র করছে, বিডিআর বিদ্রোহ থেকে আরো কত কী! = যুদ্ধ করেছে হাজার হাজার বাংলাদেশী মুক্তিযোদ্ধা কিন্তু আজও ভারতীয়রা বলে আসছে তারা ১৯৭১ সালে যুদ্ধ করেছে এবং বাংলাদেশ কে স্বাধীন করে দিয়েছে = ভারত ৪২ বছর ধরে স্বাধীনতায় সহযোগিতার নামে বাংলাদেশ শোষণ করছে ! =ফেলানিকে মনে হয় ভুলে গেছেন আপনারা?? =এই তো কয়দিন আগে বাংলাদেশী জার্নালিস্টদের বলেছে... ”বাংলাদেশী পাসপোর্ট? নট এলাউড! কিউ কি আপ বাংলাদেশকা সিটিজেন হ্যায় !" একরকম গলা ধাক্কাদিয়ে হোটেল থেকে বের করে দিয়েছে আপনার বন্ধুরা! = বাংলাদেশ মিয়ানমার এর মধ্যে রোহিঙ্গা টপিক নিয়ে ভারত সরাসরি মিয়ানমার কে সাপোর্ট করেছিলো কিছু ছাগল আছে,ভারতের বিরুদ্ধে কিছু বললেই এরা রাজাকার আখ্যা দিয়ে পাকিস্তান চলে যেতে বলে,,ওরা ভুলে যায় যে,আমি সত্য কথা বলছি আর সে নিজেই ভারতের দালালী করছে,,ভারতের দালাল। ভারত বিরোধিতা-ই হোক দেশপ্রেম পরিশেষে বলতে চাই ভারত পাকিস্তান প্রশ্নে পাকিস্তানের প্রতি আমার পূর্ন সমর্থন রইল!
Total Reply(0)
Mahfuz Islam ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
ইমরান খানের জুতার সমান যোগ্যতাও মোদির নেই, ইমরান খান যখন অক্সফোর্ড এ শিক্ষকতা করত মোদি তখন গুজরাটের কোন রেল স্টেশনে বসে বলছিল" এ ভাইয়া চায়ে লেল চায়ে, গরমা গরম চায়ে, ২ রুপিয়া ২ রুপয়া, এ সাব চায়ে লেল না "
Total Reply(0)
Anwar Hossain ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
May Allah help you. Dear PM Imran Khan.
Total Reply(0)
Md Sami ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০৫ এএম says : 0
সেটা কৌশল " কারণ মুদি সেই ইস্যু দিয়ে " আগামী নির্বাচনে জিততে চাই "! তাই পাকিস্তান মুদি কে সেই সুযোগ দিবে না "!!
Total Reply(0)
Md Shamim Hossain Sayed ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০৫ এএম says : 0
A very good decision. By this way he shows his awareness of Peace, and what about Modi - He just pushed his nation in war to fulfil his dirty tricks. Shame of him
Total Reply(0)
Mohammed Kowaj Ali khan ১ মার্চ, ২০১৯, ৯:৪১ এএম says : 0
হযরত আলী (রাঃ) যুদ্ধের ময়দানে অবিশ্বাসীকে ধরে ফেলেছিলেন এবং হযরত আলী (রাঃ) খঞ্জর বের করেছিলেন অবিশ্বাসীকে শেষ করার জন্য, তখন সেই অবিশ্বাসী হযরত আলী (রাঃ) মুখের উপর থুথু নিক্ষেপ করেন, তখন হজরত আলী (রাঃ) অবিশ্বাসীকে না মেরে খঞ্জর রেখে দেন। তখনই অবিশ্বাসী প্রশ্ন করেন হযরত আলী (রাঃ) খঞ্জর কেন রেখে দিলেন। অবিশ্বাসীকে না মেরে। হযরত আলী(রাঃ) বলিলেন যখন অবিশ্বাসী হযরত আলী (রাঃ) উপর থুথু নিক্ষেপ করিয়াছিলেন তখন হযরত আলী (রাঃ) খুবই রাগাম্বিত হইয়াছিলেন তাই তিনি অবিশ্বাসীকে মারেন নাই। তখন মারিবেন যখন রাগ কমে যাবে। এই কথা শুনে সংগে সংগে অবিশ্বাসী মুসলমান হইয়া যান। কারণ ইসলাম এতই সুন্দর। দেখ পাকিস্তানের এখনকার ব্যবহার কত উন্নত। ওহে মুদিরা জীবন থাকিতে সত্যের পথে আসো। ইসলাম গ্রহণ করিয়া জীবন করো স্বার্থক। কাশ্মীরে বন্ধ করো হত্যা, জুলুম,। দাও কাশ্মীরের স্বাধীনতা। ইনশাআল্লাহ।
Total Reply(0)
MD. ALAMIN ১ মার্চ, ২০১৯, ১০:০০ এএম says : 0
Imram is the Great
Total Reply(0)
Musa Bappi ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৮ এএম says : 0
পার্থক্য অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি গ্রাজুয়েট পাকিস্তানের ইমরান খান আর চা বিক্রিতা ইন্ডিয়ার নরেন্দ্র মুদি।
Total Reply(0)
এস দেওয়ান ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৫ এএম says : 0
আপাতত জৈশ-এ মুহাম্মদ সংগঠনের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপই এক মাত্র সমাধান । অন্যথায় কোনো লাভ হবে বলে মনে হয় না ।
Total Reply(0)
Sheikh Arifin ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৭ এএম says : 0
ভারত যেকোন ক্ষেত্রেই পরাজিত হলে আমি সহ বাংলাদেশের অনেকের কাছে ঈদের আনন্দ মনে হয়।100% সত্যি কথা।
Total Reply(0)
Shimu Talukder ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
মুক্তি পাওয়ার পর ঐ পাইলটই হোক শান্তির দুত।উপমহাদেশের একজন সাধারন নাগরিক হিসাবে এটাই আমার প্রত্যাশা।যুদ্ধের ধ্বংসলীলা উপমহাদেশের নাগরিকরা দেখতে চায় না।
Total Reply(0)
Ali Akbar ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৪ এএম says : 0
ধন্যবাদ তোমায় ইমরান খান ! স্যালুট তোমাকে সত্যিই তুমি মুসলমানদের গর্ব !
Total Reply(0)
Al Amin Ebrahim ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৫ এএম says : 0
যুদ্ধ হচ্ছে পাকিস্তান আর ভারতের।আমাদের দেশের নাগরিকদের উচিৎ ছিল নিরপেক্ষ থাকা অথবা ৭১ সালের কথা বিবেচনায় নিয়ে ভারতের পক্ষে থাকা। কিন্তু আজ যত গুলো ফেসবুক পেইজে চোখে পরছে,তার সব গুলোতেই ছিল ভারতীয় বিমান ধংসের নিউজে বাংলাদেশীদের উল্লাস এবং উচ্ছাস। কেন এমনটি হয়েছে? এত এত ভারত বিদ্বেষ কেন বাংলাদেশে তা দিল্লী কি কোনদিন অনুসন্ধান করতে চেয়েছে? এর কারন হিসাবে সাংবাদিক নুরুল কবির বলেছিলেন, - স্বাধীনতার পর থেকে ভারত কোনদিন বাংলাদেশের জনগনের সাথে বন্ধুত্ব করতে চায় নাই।ভারত বন্ধুত্ব করেছে আওয়ামীলীগের সাথে। তাই ভারতের যে কোন পরাজয় বাংলাদেশের মানুষ ঈদের আনন্দ নিয়ে উপভোগ করে।
Total Reply(0)
Mahi Miazi ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৫ এএম says : 0
বেটা সিংহের বাচ্চা সিংহ এগিয়ে চল মহান মনিবের উপর ভরসা করে।
Total Reply(0)
Tuhin Hossain ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৮ এএম says : 0
ধন্যবাদ ওজিরে আজম ইমরান খান .... এটাই একজন মুসলিম বীরের অন্যতম বৈশিষ্ট & একজন যোগ্য রাষ্ট্রনায়কের মত কাজ। শুভ কামনা রইলো আপনাদের জন্য।
Total Reply(0)
Mohammed Miraj ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৯ এএম says : 0
ইমরান খানকে আল্লাহ রহমত করছে বিদায়, ভারতীয় পাইলট মুক্তি পাচ্ছে তানা হলে ঐ পাইলটে মাথা পাকিস্তান রাখতো বডি ভারত পাঠাইত
Total Reply(0)
Saiful Islam ১ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৯ এএম says : 0
চা বিক্রয়তার মোদী ইমরান খানের কাছে রাজনৈতিক শিক্ষা নেওয়া খুব জরুরি। কারণ খান হামলার আগে পরে একই কথাবার্তা বলে আসছে সংলাপের মাধ্যমে কাশ্মীর ইস্যু সমাধান সম্ভব।
Total Reply(0)
Kamran Uddin Rayhan ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০০ এএম says : 0
বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান দেশ, সেহেতু সীমান্তের ওপারে মুসলিমদের উপর এমন নির্যাতন ভারত বিদ্বেষীতার অন্যতম কারণ। ✔ বাংলাদেশের অভন্তরীন রাজনীতি, আর্থসামাজিক ইস্যুতে ভারত সরকার খুব বেশি হস্তক্ষেপ করে থাকে, যা স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের তরুন সমাজ ভালো ভাবে নিতে পাড়ে না। ১৯৭১ সালে আমরা সবাই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি, ৫% মানুষ ছাড়া। কারন পাকিস্তান আমাদের সাথে অন্যায় করছিলো তখন। রাজনৈতিক ইস‍্যু ছিল,ধর্মীয় ইস‍্যু নয়। কিন্ত এখন কেন ভারত কে ঘৃণা করি? কারন তারা অন্যায় করছে নিরীহ কাশ্মীরার সাথে। ১৯৬২ সালে একটা গনভোটের কথা ছিল, কাশ্মীরের স্বাধীনতা নিয়ে। ভারত প্রথমে রাজি হলে ও, পরে তারা সরে যায়। সুত্রঃ BBC বাংলা। পৃথিবীতে পাকিস্তান ছাড়া আর কেউ নেই, যে কাশ্মীরার পক্ষে কথা বলে। পাকিস্তান অনেক বার বলেছে, কাশ্মীর কে আলাদা দেশ হিসেবে দেওয়ার জন্য। এতে পাকিস্তান ও রাজি। England ও কাশ্মীকে আলাদা দেশ হিসেবে ভাগ করেছিল। এখন পাকিস্তান লড়াই করে নিরীহ কাশ্মীরার জন্য। তাই পাকিস্তানের পক্ষে বললে ভারতের বিরুদ্ধে যায়। যেমন ফিলিস্তিনের পক্ষে বললে ইসরাইলের বিরুদ্ধে যায়। ২।ইমরান খানের গতকালের ভিডিওবার্তাটি দেখেছি, খুবই বিনয় এবং নম্রতার সাথে কথা বলেছেন, অন্যদিকে মোদীর ভিডিওবার্তাটিও দেখেছি, উগ্র, অসভ্য, সন্ত্রাসীর মতো তিনি ভাষণ দিয়েছেন! মুসলমানদের প্রথম ভুমিকা এমনই হইয়ে থাকে,কখনো তারা অরাজকতা চায় না,কিন্তু বেইমানদের উচিত জবাবে, সমান সমানের প্রয়োজন হয় না, ২০ কুটি, ১২০ কুটির সাথে মোকাবেলায় সদা প্রস্তুত, ধন্যবাদ ইমরান খানকে এমন একটি বার্তা দেওয়ার জন্য। ভারত আক্রমণ করলে সেটা হয় জঙ্গি অভিযান, আর পাকিস্তান প্রতিরোধ করলে সেটা হয়ে যায় জঙ্গি হামলা?? মিডিয়া আর কত মুসলমানদের নির্যাতন করলে দালালি ছাড়বে? সারা বিশ্বি আজ মুসলমানদের নির্যাতন করা হচ্ছে, অথচ তোমাদের কোন মাথা ব্যাথা নেই। কোথায় মুসলমানরা প্রতিরোধ করলো এই খবর নিয়ে জঙ্গি জঙ্গি নাটক খেলো? ভারত পাকিস্তান উভয়েরই উচিত কাশ্মীরের স্বাধীনতা প্রশ্নে গণভোট করা। কাশ্মীরের দুই অঞ্চল মিলে আলাদা একটা স্বাধীন রাষ্ট্র গঠিত হলেই কেবল এই অঞ্চলে রক্তপাত বন্ধ হবে। নো পাকিস্তান, নো ইন্ডিয়ান আমি #কান্মীরের স্বাধীনতা চাই❤️ #FREEKASHMIR সবাই আওয়াজ তুলুন
Total Reply(0)
J Ahmed ১ মার্চ, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
ইহায় বীরত্বের পরিচয়। বিপদ গ্রস্ত সৈনিকের বা লোকের প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়া প্রতিটি মানুষের মহানুভবতার পরিচয়।তার কাছ থেকে কোন রকমের প্রতিশোধ নিওনা। একজন মানবের জান বাঁচিয়ে দিলে,সমগ্র মানবের জান যেন তুমি বাঁচি দিলে। ইসলামে তাহা অনুমোদন করে।ইহাতে বীরত্বের প্রমান। ২০১৯.....
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন