সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০, ২২ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইমরান খানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা বহাল

পাকিস্তানের টিভিতে বক্তব্য প্রচার নিষিদ্ধ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ মার্চ, ২০২৩, ১২:০০ এএম

ইসলামাবাদের একটি জেলা ও দায়রা আদালত গতকাল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) চেয়ারম্যান ইমরান খানের তোশাখানা মামলায় তার জন্য জারি করা অ-জামিনযোগ্য পরোয়ানা বাতিল করার অনুরোধ খারিজ করে দিয়েছে, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর গ্রেফতারি পরোয়ানা বহাল রেখেছে। এদিকে, পাকিস্তানের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বক্তৃতা বা মন্তব্য প্রচার নিষিদ্ধ করেছে দেশটির মিডিয়া নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ পিইএমআরএ।

আগের দিন এ মামলার রায় সংরক্ষণ করেন আদালত। অতিরিক্ত দায়রা জজ জাফর ইকবালের আদালতে ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে আইনজীবী কায়সার ইমাম, ব্যারিস্টার গোহর ও আলী বুখারি আবেদন করেন। শুনানির সময়, ইমাম বলেছিলেন যে, একটি ব্যক্তিগত অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করা ‘কিছু পরিমাণে প্রতিরোধ করা হয়েছে’ তাই, আদালতের উচিত ইমরানের গ্রেফতারি পরোয়ানা বাতিল করা। বিচারপতি ইকবাল তার মন্তব্যে বহাল রেখেছিলেন যে, ২৮ ফেব্রুয়ারি সকালে ইমরানের আইনজীবীরা বলেছিলেন যে, তিনি আদালতে আসবেন না। সাবেক ক্ষমতাসীন দল ইমরানের বিরুদ্ধে জারি করা গ্রেফতারি পরোয়ানা বাতিল করতে ইসলামাবাদ হাইকোর্টে (আইএইচসি) যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দায়রা আদালতের বিস্তারিত সিদ্ধান্ত পাওয়ার পর পিটিআইয়ের আইনজীবীরা হাইকোর্টে আবেদন করবেন।

২৮ ফেব্রুয়ারি, পিটিআই চেয়ারম্যান, তার দলের সমর্থকদের সাথে ইসলামাবাদের বিচারিক কমপ্লেক্সে পৌঁছেছিলেন তার বিরুদ্ধে নিষিদ্ধ তহবিল এবং সন্ত্রাসবাদের অভিযোগের মুখোমুখি হওয়ার জন্য আদালতে হাজির হওয়ার জন্য। এটি দায়রা আদালতের উল্লেখ করা প্রাসঙ্গিক, যেখানে পিটিআই প্রধানকে তোশাখানা রেফারেন্স এবং খুনের চেষ্টার মামলায় হাজির হতে হয়েছিল, এটি এফ-৮ কাচেহরিতে অবস্থিত, যা বিচারিক কমপ্লেক্স থেকে আধা ঘন্টার দূরত্বে অবস্থিত। তোষাখানা রেফারেন্সের শুনানি চলাকালে ইমরানের আইনজীবী বিচারককে আরও ৫ দিন শুনানি পিছিয়ে দেয়ার আবেদন করেছিলেন। আইনজীবী যুক্তি দিয়েছিলেন যে, তিনি ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রীকে আদালতে হাজির করতে পারেননি। তবে, তিনি যোগ করেছিলেন যে, তার মক্কেল যদি সময়মতো বিচারিক কমপ্লেক্স ত্যাগ করতে সক্ষম হন তবে তিনি আদালতে হাজির হবেন। বিচারক ইকবাল জামিন অযোগ্য পরোয়ানা জারি করে ৭ মার্চ (আগামীকাল) পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করেন।

অপরদিকে রোববার ইসলামাবাদ পুলিশের একটি দল ইমরান খানকে গ্রেফতার করে আদালতের পরোয়ানা বাস্তবায়ন করতে তার লাহোরের জামান পার্কের বাসায় যায়। তবে পিটিআই প্রধানকে গ্রেফতার না করে খালি হাতে ফিরে আসে পুলিশ। বলা হচ্ছে, গ্রেফতার এড়াতে কৌশলের আশ্রয় নিয়েছেন ইমরান খান। পরবর্তীতে ইমরান খান ইসলামাবাদের দায়রা আদালতে আবেদন করেন। এতে বলা হয়, যদি তার অ্যারেস্ট ওয়ারেন্ট প্রত্যাহার করা হয়, তাহলে তিনি এই মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থন করার জন্য একটি ন্যায্য সুযোগ পাবেন।

এদিকে, পাকিস্তানের মিডিয়া নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ পিইএমআরএ এক বিবৃতিতে বলেছে, ইমরান খান রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ করছেন এবং ঘৃণাসূচক বক্তব্য ছড়াচ্ছেন। ফলে তার বক্তৃতা বা মন্তব্য চিভিতে প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ইমরান খান দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে তাকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে আদালতে তোলার অভিযোগ আনার পর এ পদক্ষেপের কথা জানা গেল।

গত বছর পার্লামেন্টের এক ভোটে ক্ষমতাচ্যুত হবার পর থেকে ইমরান খানের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা দায়ের করা হয়। এগুলোর মধ্যে তার রাজনৈতিক দলের জন্য অবৈধ অর্থ সংগ্রহ এবং রাষ্ট্রীয় কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সহিংসতার উস্কানি দেবার অভিযোগও রয়েছে। গত বছর একটি বিক্ষোভ সমাবেশে গুলিবর্ষণের ঘটনায় ইমরান খান আহত হন। তার আইনজীবীরা এর আগে স্বাস্থ্যগত ও নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে খানের সশরীরে আদালতে হাজির হওয়া ঠেকানোর চেষ্টা করেছিলেন, তবে আদালতে এসব আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন গত বছর ইমরান খানকে সরকারি পদে থাকার অযোগ্য ঘোষণা করে। তার বিরুদ্ধে বিদেশি নেতাদের কাছ থেকে পাওয়া উপহারসামগ্রী এবং সেগুলো বিক্রি করে পাওয়া অর্থের কথা সঠিকভাবে না জানানোর অভিযোগ আনা হয়। এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ইমরান খান আদালতে মামলা করেছেন। ইমরান খানের সমর্থকরা এর আগেও তাকে গ্রেফতার করা হলে দেশব্যাপি বিক্ষোভ শুরু করার কথা বলেছেন। সূত্র : ট্রিবিউন, বিবিসি নিউজ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন