ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বিয়ের অজুহাতে বন্ধুদের নিয়ে ধর্ষণ : মৃত ভেবে খালে নিক্ষেপ

বিভিন্ন স্থানে শিশুসহ শিকার ৪

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ জুন, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

দুই মাস প্রেমের পর বিয়ে করার কথা বলে ডেকে নেওয়া হয় প্রেমিকাকে। পরে রাতভর চার বন্ধু মিলে ধর্ষণের পর চেতনাহীন তরুণী মৃত ভেবে খালে ফেলে দেওয়া হয়। গতকাল ময়মনসিংহের নান্দাইলে এ ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে সাভারে একটি মাদরাসার ৫ বছরের শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ওই মাদ্রাসার এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পুলিশ ঐ শিক্ষককে আটক করেছে। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে চকলেটের লোভ দেখিয়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। এ ঘটনায় যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়া রাবিতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ করেছে এক শিক্ষার্থী। ফেনীতে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের মামলায় ধর্ষকের যাবজ্জীবন দিয়েছে আদালত। আমাদের সংবাদদাতাদের পাঠানো তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদন

ময়মনসিংহ: দুই মাস প্রেমের পর বিয়ে করার কথা বলে ডেকে নেওয়া হয় প্রেমিকাকে। পরে রাতভর চার বন্ধু মিলে ধর্ষণের পর চেতনাহীন তরুণী মৃত ভেবে খালে ফেলে দেওয়া হয়। সেখান থেকে লোকজন উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার পর পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। তবে পুলিশ ধর্ষণকারীদের গ্রেফতার করতে পারেনি। গতকাল সোমবার রাতে এ ধরনের ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইলের রাজগাতি ইউনিয়নের কালিগঞ্জ বাজারে।

স্থানীয় লোকজন ও নির্যাতনের শিকার তরুণী জানায়, তার বাড়ি নান্দাইল উপজেলার উত্তর-প‚র্ব দিকের একটি ইউনিয়নে। সে ময়মনসিংহের একটি বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করে। গত দুই মাস ধরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিচয় হয় নান্দাইলের মুশলী ইউনিয়নের চংভেদেরা গ্রামের মো. মজনু মিয়ার ছেলে মো. শামীম মিয়ার (২৫) সাথে। সস্পর্কের এক পর্যায়ে শামীম তাকে কাছে পেতে মরিয়া হয়ে যায়। কিন্তু বিয়ের আগে তার সাথে যেতে অপারগতা প্রকাশ করে। এই অবস্থায় শামীম বিয়ের শর্তে রাজি হয়ে তাকে আনতে গত সোমবার ময়মনসিংহের মাসকান্দা এলাকায় যায়। সেখান থেকে তাকে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশায় করে রাত ১১টার দিকে নান্দাইলের কালিগঞ্জ বাজারের মার্কেটে নিয়ে যায়। সেখানের একটি দোকানে প্রবেশ করিয়ে আচমকা বাহির থেকে সাটার লাগিয়ে দেয়। এ সময় সে চিৎকার শুরু করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে অন্য আরো চারজনকে ভিতরে এনে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। দীর্ঘ নির্যাতনের পর এক পর্যায়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে সকালে দেখতে পায় সে বাজারের পাশে একটি সেতুর নিচে খালে পড়ে রয়েছে। এ সময় তার গোংড়ানিতে লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে কিছু দ‚রে কালিগঞ্জ-তাড়াইল সড়কের পাশে একটি ক্লাবের পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করান। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

এ বিষয়ে নান্দাইল থানার ওসি কামরুল ইসলাম মিয়া জানান, তরুণীকে উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযুক্তদের ধরতে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান ও মামলার প্রস্তুতি চলছে।

সাভার: সাভারে একটি মাদ্রাসার ৫বছরের শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ওই মাদ্রাসার এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পুলিশ শিক্ষক মাওলানা মো. ইদ্রিস আলীকে আটক করেছে। এর আগে সোমবার রাতে স্থানীয়রা ঘটনাটি জানতে পেরে ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে বেধড়ক মারধর করে। রাতেই পুলিশ তাকে আটক করে।

আটক মো. ইদ্রিস (৩৮) মাদারীপুর জেলার কালকিনি থানার কানাই সরদারের চরের আব্দুর রহমানের ছেলে। সে পৌর এলাকার আনন্দপুর মহল্লার তালীমুল কুরআন মাদরাসার শিক্ষক।

শিশুর বাবা জানান, প্রতিদিনের মতো আমার মেয়েকে তালীমুল কুরআন মাদ্রাসায় পড়াশোনা করার জন্য সোমবার সকালে দিয়ে আসি এবং বিকালে আনতে যাই। তখন মেয়ে কান্নাকাটি করে জানায় আমার মেয়েকে মাদরাসার শিক্ষক মো. ইদ্রিস উনার রুমে ডেকে নেয়। পরে তিনি আমার মেয়ের শরীরের বিভিন্ন স্থানে হাত বুলানো শুরু করে। আমার মেয়ে কান্না শুরু করলে ওই শিক্ষক মেয়েকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানো শুরু করে। এছাড়া তিনি মেয়েকে হুমকি দেন আমার মেয়ে যেন কারো নিকটে কিছু না বলে। পরে বিষয়টি এলাকার লোকজনকে জানাই। পরে স্থানীয়রা ওই শিক্ষকে মারধর করে।

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ জানান, এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দিয়েছে। পরে তাকে আটক করা হয়।

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ): নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় সোলেমান (৩৪) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের নাগেরবাগ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ভুলতা ফাড়ির ইনচার্জ শহিদুল আলম জানান, গত সোমবার রাত ১০ টার দিকে সোলেমান তিন বছরের এক শিশুকে চকলেট কিনে দেওয়া কথা বলে তার ঘরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এসময় ওই শিশুর ডাক চিৎকারে তার মা ও এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে সোলেমান পালিয়ে যাওয়া চেষ্টা চালায়। এ সময় এলাকায় সোলেমান আটক করে পুলিশের সোপর্দ করে। এ ঘটনায় ওই শিশুর মা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃতকে নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

রাবি: রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) সহকারী অধ্যাপক বিষ্ণুকুমার অধিকারীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানী ও মানসিকভাবে উত্যক্ত করার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুরে ওই ইনস্টিটিউটের এক ছাত্রী পরিচালক ড. আবুল হাসান চৌধুরীর নিকট লিখিত অভিযোগ দেন।

ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর অভিযোগপত্রে বলেন, আমি আমার বিভাগের শিক্ষক বিষ্ণুকুমার অধিকারীর দ্বারা বিভিন্নভাবে যৌন হয়রানী ও মানুষিকভাবে উত্ত্যক্তের শিকার হই। যার কারণে আমি মানসিকভাবে অনেক বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছি। আমি পড়াশুনা এবং অন্য কোনো কাজেই মনযোগ দিতে পারছি না। মেন্টাল ট্রমায় ভুগছি। কারণে অকারণে স্যার আমাকে তার অফিসে ডেকে বসিয়ে রাখেন, ফ্রি মাইন্ডের কথা বলে নানা রকম ইঙ্গিতপূর্ণ ও অশালীন কথাবার্তা বলেন, অন্য নারী শিক্ষকদের ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে অশালীন মন্তব্য করেন, শিক্ষক হওয়ার ক্ষমতা দেখাতেন। তিনি আমাকে প্রায়ই রাত ১১টার পর ফোন করে কথা বলেন।

এর আগে বিষ্ণুকুমার অধিকারীর বিরুদ্ধে ইনস্টিটিউটের সান্ধ্যকোর্সের একাধিক ছাত্রী হয়রানীর অভিযোগ তুললে তাকে কোর্স থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছিল বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী বলেন, মানসিকভাবে সহ্য করতে না পেরে অভিযোগ করেছি। আমি চাইনা ওই শিক্ষক আমার মতো কারো সঙ্গে এমন করুক। একই সঙ্গে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।

এদিকে ডাকযোগে অভিযোগপত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, প্রো-ভিসি, রেজিস্টার, জনসংযোগ প্রশাসক, প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা বরাবর পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

অভিযুক্ত বিষ্ণু কুমার অধিকারীর মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।
শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর মো. আবুল হাসান চৌধুরী ইনকিলাবকে বলেন, অভিযোগপত্র পেয়েছি। অভিযোগের সত্যতা পেলে বিশ^বিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

ফেনী: ফেনীর সোনাগাজীতে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৩) অপহরণ করে আটকে রেখে ধর্ষণের দায়ে একজনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এইক সঙ্গে তার পাঁচ লাখ টাকা অর্থদন্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়া এ মামলায় আরও চারজনের ১৪ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড ও এক লাখ টাকা করে অর্থদন্ড দিয়েছেন আদালত। অন্যদিকে অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় পাঁচজনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুরে ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন টাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ এ রায় প্রদান করেন। রায়ে জরিমানার অর্থ আইন মোতাবেক আদায় করে ভিকটিমকে প্রদান করার জন্য ফেনীর বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি হলেন- আবু বক্কর ছিদ্দিক ওরফে সাগর। ১৪ বছর করে সশ্রম কারাদন্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- জাহাঙ্গীর আলম, মেজবাহ উদ্দিন পলাশ, বায়েজিদ ফয়সাল ও রিয়াদ ওরফে রিয়াদ হোসেন। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- বিবি কাউছার, আবু নাছের সোহাগ, ইকবাল হোসেন সুমন, আলা উদ্দিন আলো এবং মো. মাসুদ। রায় ঘোষণার সময় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি সাগর ছাড়া অন্য সব আসামি আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

ফেনীর জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি হাফেজ আহাম্মদ জানান, আসামি আবু বক্কর ছিদ্দিক ওরফে সাগর আগে থেকেই স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীকে উত্যক্ত ও নানা কট‚ক্তি করত। ২০১৩ সালের ২৫ মে ওই ছাত্রী প্রাইভেট পড়ার জন্য বাড়ি থেকে স্কুলের দিকে যাচ্ছিল। সে সময় আসামি সাগরের নেতৃত্বে অন্য আসামিরা উপজেলার চর গণেশ চৌধুরী লেন রাস্তার মোড় থেকে তাকে টেনে-হেঁচড়ে একটি মাইক্রোবাসে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

ওই ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বেলায়েত হোসেন বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। ঘটনার তদন্ত শেষে সোনাগাজী থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) স্বপন কুমার বড়য়া ওই বছরের ১২ জুলাই সাগরসহ ১০ জন আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত এই রায় দেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Shipon Chowdary ২৬ জুন, ২০১৯, ১:২৭ এএম says : 0
ছেলেরা বিয়ের কথা বললেই কি সেলোয়ার-কামিজ খুলে দিতে হবে?
Total Reply(0)
Zakir Hossain ২৬ জুন, ২০১৯, ১:২৭ এএম says : 0
বাংলাদেশ এর আইন-আদালত এর এত অধপতন যে ভবিষ্যতে কোণ ভদ্র সম্প্রদায় দেশ থেকে চলে যাবে স্বেচ্ছায়
Total Reply(0)
Mizanur Rahman Akhond ২৬ জুন, ২০১৯, ১:৩১ এএম says : 1
এটা কি করে ধর্ষন হয়? সে-তো নিজের ইচ্ছায় এই কাজ করেছে।
Total Reply(0)
Md A KasHem ২৬ জুন, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
এই গল্প থেকে অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েরা শিক্ষা পেতে পারে লোভ মানুষকে কঠিন প্রতিদান দেয়। বিয়ের লোভে বাড়ি থেকে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যাওয়া উচিত নয়।
Total Reply(0)
ঝড়া পাতা ২৬ জুন, ২০১৯, ১:৩২ এএম says : 0
বিয়ের লোভ কি জিনিস আসলে একটা মিথ্যা শব্দ।মেয়েটার এতই যদি বিয়ের দরকার থাকত ত বাবা মাকে বলে বিয়ে করতে পারত
Total Reply(0)
Johir Rayhan ২৬ জুন, ২০১৯, ১:৩৩ এএম says : 1
বিয়ের লোব দেখিয়ে নিয়ে গেছে দোষ হয়ে গেল৷ কিন্তু মেয়েটা গেল কেন মেয়ের পরিবার কোথায় ছিল লোবে পাপ হয়েছে আর পাপে মৃত্যু ও হতে পারে৷ এতে শুধু ছেলেই দূষি নয় মেয়ের দোষই বেশী
Total Reply(1)
ismail ২৬ জুন, ২০১৯, ৫:৪০ পিএম says : 0
dorshoner shonga bodhlano dhorkar ami o eakmot but eakta meye k asha dekheye take nirash kora kotota jukti shongoto? are baki 3jon k keno add kora holo? apnara jara meyetar dosh dektachen tader k bolte chai apnar jonmo ki kono mayer pete hoyna? protteta meye e kaharo maa, bon shutorang nari jati k ijjot korte shikhen
Jyostna Begum ২৬ জুন, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 0
এত কিছুর পরও মেয়েরা কেন বুঝেনা? ছেলেদেরকে কেন এত বিশ্বাস করে? অল্প বয়সে এই লম্পট ছেলেদেরকে বিশ্বাস করে নিজেদের ইহকাল ও পরকালের ক্ষতি করছে? এসব ছেলেদের জীবনে প্রেম বলে কিছু নাই!! এরা কারও প্রেম এর অভিনয় করে শুধুই ধর্ষন করার জন্য। আর মেয়েরা তাদেরকে বিশ্বাস করে এবং তাদের পাতা সেই ফাঁদে পা দিয়ে নিজেদের সর্বনাস ডেকে আনে। তাই এখন থেকেই মেয়েদের সতর্ক হওয়া উচিত। পরিবার থেকে তাদেরকে এব্যাপারে সচেতন করতে হবে।
Total Reply(2)
MAHMUD ২৬ জুন, ২০১৯, ১১:৩৮ এএম says : 0
Dont know what do mean by this type of PREM, from my life experience I heard manifold mab told PREM Come from heaven but this type of PREM is fully prohibited in ISLAM. They are ignorant about this type PREM, they need only sex. Main point is required have proper ISLAMIC teach about this type of PREM in our society for them.
ismail ২৬ জুন, ২০১৯, ৫:৪৩ পিএম says : 0
you are right brother
Jamal Uddin Robel ২৬ জুন, ২০১৯, ৯:৪৫ এএম says : 0
দেশে ধর্ষণ মহামারি আকার ধারণ করেছে। এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন