ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

পাবনায় ধর্ষণের পর মাদ্রাসা ছাত্রী হত্যার বিচার চেয়ে পিতা-মাতার সংবাদ সম্মেলন

পাবনা থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০১৯, ৯:৪৩ পিএম

পাবনায় ধর্ষণের পর মাদ্রাসা ছাত্রী মেয়েকে হত্যা । বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করলেন অসহায় দরিদ্র পিতা-মাতা। 

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয় দীর্ঘ ২৫ দিনেও মামলার আসামী ধর্ষককে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অপর দিকে মামলা তুলে নিতে আসামী পক্ষের লোকজন বাদীকে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের দাবী, আসামীকে গ্রেফতারের জন্য তৎপরতা চলছে।
শনিবার পাবনা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জানানো হয়, চাটমোহর উপজেলার ঝপঝবিয়া গ্রামের ময়েজ উদ্দিন মোল্লার কন্যা শরৎগঞ্জ রইজ উদ্দিন দাখিল মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী আমেনা খাতুন ওরফে মায়মুনা র্দীঘদিন ধরে একই এলাকার শাহাদত হোসেনের স্ত্রী জহুরা খাতুনের কাছে আরবী পড়তো। গত ৬ জুন সকালে প্রতিদিনের মতো আমেনা খাতুন আরবী পড়তে যায় জহুরা খাতুনের কাছে। এ সময় বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে জহুরা খাতুনের স্বামী শাহাদত হোসেন আমেনা খাতুনকে জোড় করে ধর্ষন করে এবং এ কথা কাউকে না বলার জন্য ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। পরে বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয় প্রভাবশালীরা মিমাংসার আশ্বাস দেয়। কিন্তু পর দিন দুপুরে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে শাহাদত তাদের বাড়িতে ঢুকে আবারও আমেনা খাতুনকে জোর করে ধর্ষণ করে। বিকেলে বাড়ি ফিরে তার মাতা তারা খাতুন আমেনা খাতুনকে ঘরের ডাবের সাথে ঝুলন্ত মৃত অবস্থায় দেখতে পান। সংবাদ সন্মেলনে নিহতের পিতা-মাতা দাবী করেন, তার মেয়েকে শাহাদত গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যার পর লাশ ঘরের বাঁশের ডাবের সাথে ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নিহতের মা তারা খাতুন বাদী হয়ে শাহাদত হোসেনকে একমাত্র আসামী করে চাটমোহর থানায় মামলা দায়ের করেন। কিন্তু আসামী শাহাদত প্রভাবশালী হওয়ায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। সম্মেলনে তার পিতা-মাতা কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন,‘ আমরা গরীব বলে কি কোন বিচার পাবো না? মামলা তুলে নিতে আসামী পক্ষের লোকজন হুমকী দিচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।
সংবাদ সন্মেলনে নিহত মাদ্রাসা ছাত্রী আমেনা খাতুন ওরফে মায়মুনার পিতা-মাতা ও স্বজনেরা উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সামছুল হকের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সাংবাদিকরা তাঁর মোবাইল বন্ধ পান । তবে, চাটমোহর থানার ওসি আহসান হাবিবব জানান, আসামীকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশী তৎপরতা চলছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন