ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ভারতে অন্তঃসত্ত্বা হাতির ভয়াবহ মৃত্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড়

আবদুল মোমিন | প্রকাশের সময় : ৪ জুন, ২০২০, ৩:৩৭ পিএম

ভারতের কেরালা রাজ্যে একটি অন্তঃসত্ত্বা হাতিকে আনারসের মধ্যে বারুদ ভরে খেতে দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করায় নেট দুনিয়ায় প্রতিবাদের ঝড় বইছে। নির্মম এই বর্বরতায় কাঁদছে মানুষ। এই ঘটনায় শুধু ভারত নয় ক্ষোভে ফেটে পড়েছে বিশ্বের বিবেকবানরা। নৃশংসতার প্রতিবাদে তোলপাড় চলছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

উত্তর কেরালার মালাপ্পুরমের বন বিভাগের কর্মকর্তা মোহন কৃষ্ণন ওই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তার ফেসবুক ওয়ালে জানান, পানিতে দাঁড়িয়ে আছে একটি হাতি। হাতিটি ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা। খাবারের সন্ধানে জঙ্গল থেকে বেরিয়ে কাছের একটি গ্রামে এসেছিল। তাকে আনারস খেতে দেয় স্থানীয় বাসিন্দারা। কিন্তু ওই আনারসটি ছিল বারুদে ভরা। মুখের ভেতর বারুদের বিস্ফোরণ হওয়ার পর পানিতে ছুটে যায় ওই হাতি। যন্ত্রণার উপশম পেতে হাতিটি স্থানীয় ভেলিয়ার নদীর পানিতে দাঁড়িয়ে থাকে। মাঝ নদীতে দাঁড়িয়ে থেকেই একসময় মারা যায়।

তিনি জানান, ও (হাতিটি) সবাইকে বিশ্বাস করেছিল। আনারসটি খাওয়ার পরে যখন তার মুখের ভেতর সেটার বিস্ফোরণ হলো তখন ও নিশ্চয়ই শিউরে উঠেছিল। বিস্ফোরণটি এত ব্যাপক ছিল যে, হাতিটির জিভ ও মুখ ভয়ঙ্করভাবে আঘাত পায়। যন্ত্রণায় হাতিটি গ্রামের পথে ছুটতে থাকে। এই চরম যন্ত্রণার মধ্যেও সে কোনো বাড়ি ভাঙেনি, কারো ক্ষতি করেনি।

ফেইসবুকে শামিম চৌধুরী লিখেছেন, ‘‘পৃথিবীতে মানুষের চেয়ে কোন নিষ্ঠুর প্রাণী আর নেই।মানুষ জঘন্য হিংস্র কাজ করে নিজের স্বার্থের জন্য বা অনেক সময় অকারণে। যে কোন পশু পাখি এমন কিছু করে বাঁচতে, ক্ষুধার্ত হলে না হয় তারা সাধারণত কারো ক্ষতি বা আক্রমণ করে না।’’

নেবুলা মোরশেদ লিখেছেন, ‘‘সালমান খানের হরিন শিকার করার জন্য জেলে যেতে হয়েছিলো, কাজেই এদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হোক।’’

মেঘলা রায় লিখেছেন, ‘‘এদের বিচার হওয়া উচিৎ। এমন শাস্তি হওয়া উচিৎ যাতে কেউ নিরীহ প্রাণীদের সাথে এমন বর্বর কাজ না করতে পারে।’’

অরন্য ইমতিয়াজ লিখেছেন, ‘‘যদিও বর্বর হত্যাকান্ড, কতোটা যন্ত্রণা ভোগ করেছে তিনদিন তা শুধু সেই জানে। তবে নিউজ পড়ে মনে হলো এটা অনিচ্ছাকৃত হত্যা।’’

তাজি তানিশা লিখেছেন, ‘‘স্টোরিটা পড়ে আমি কিছুক্ষণ কান্না করলাম।আমরা মানুষের খাতা থেকে নিজেদের নাম দিন দিন মুছে ফেলছি।’’

মো. জামাল লিখেছেন, ‘‘যে দেশে গো-মাংস খাওয়ার কারণে মানুষ পিটিয়ে মারা হয়, সে দেশে হাতি হত্যা তো সামান্য ব্যাপার।’’

সায়াণ চৌধুরী আকাশ লিখেছেন, ‘‘বেদনাদায়ক। তবে এই ব্যাপারে কতগুলো মানুষ বেশ লাফাচ্ছে। মানবতা উপচে পড়ছে একেবারে। সিরিয়ায় যখন হাজার হাজার গর্ভবতী নারীকে হত্যা করা হয়, তখন কোথায় যায় মানবতা? নাকি একটি পশুর চেয়ে হাজারো মানুষের মূল্য অনেক কম?... একটা ক্ষুধার্থ কুকুরকে যে লাটিপেটা করেন, তখন কোথায় থাকে আপনার মানবতা? রাস্তার ধারে অসহায় মানুষগুলো যদি সাহায্য চাই, তখন যে চড় মারেন, ভিক্ষুককে গালাগাল করেন। তখন কোথায় থাকে আপনার মানবতা?’’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
elu mia ৪ জুন, ২০২০, ৭:৪৩ পিএম says : 0
সায়াণ চৌধুরী আকাশ নামক লোকটা ঠিক বলেছে।অই কালপ্রিট গুলারে খুজে বের করে শাস্তি দেয়া উচিত।
Total Reply(0)
Md Akbor hussain ৪ জুন, ২০২০, ৮:২৮ পিএম says : 0
ওই বিবেকহীন মানুষদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেয়া উচিৎ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন