ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

টু। কি। টা। কি

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ জুলাই, ২০২০, ১২:০১ এএম

কামড় দিয়ে নিষিদ্ধ, অর্থদন্ড
স্পোর্টস ডেস্ক : ফুটবলে কামড়ের প্রসঙ্গ উঠলেই চলে আসে লুই সুয়ারেজের নাম। কিন্তু উরুগুয়ে তারকা একাই এ দোষে দুষ্ট নন। গত মার্চে কামড় দিয়ে নিষিদ্ধ হন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কিয়েরন ও’হারা। তার প্রায় এক মাস আগে ফেব্রুয়ারিতে ফ্রান্সের পুর্বাঞ্চলে দ্বিতীয় বিভাগে এক ফুটবলার কামড় খেয়েছিলেন গোপনাঙ্গে!
সিরি ‘আ’ তে লিসের কাছে ২-১ গোলে হারে লাৎসিও। এই ম্যাচেরই যোগ করা সময়ে লিসের খেলোয়াড় গিউলিও দোনাত্তির বাঁ হাতে কামড় দেন প্যাট্রিস। ভিডিও সহকারি রেফারি (ভিএআর) তা ধরে ফেলার পর প্যাট্রিসকে লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করেন রেফারি।
প্যাট্রিস কোনোরকম আক্রমণের শিকার হননি। ফ্রিকিক ঠেকাতে নিজেদের রক্ষণ ঠিক করছিলেন দোনাত্তি। এমন পরিস্থিতিতে কোনোরকম প্ররোচণা ছাড়াই দোনাত্তির বাঁ হাতের কনুইয়ের ওপর কামড়ে দেন প্যাট্রিস। ২৭ বছর বয়সী এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডারকে ৪ ম্যাচ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ ছাড়াও ১০ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৯ লাখ ৫৬ হাজার টাকা) জরিমানা দিতে হবে প্যাট্রিসকে।
নিজের আচরণের জন্য ইনস্টাগ্রামে ক্ষমা চেয়েছেন প্যাট্রিস।

সাইকেলে চেপে ম্যাচে!
স্পোর্টস ডেস্ক : জেরার্ড পিকের কাজ মাঠে রক্ষণভাগ সামলানো। রেফারি, প্রতিদ্ব›দ্বী দল কিংবা খেলোয়াড়কেও খোঁচা মারতে জুড়ি নেই বার্সেলোনা তারকার। তবে মাঠের বাইরে পিকে ভালোই সচেতন। পরশুর ‘কাতালান ডার্বি’তে যেমন তিনি মাঠে গিয়েছিলেন সাইকেল চেপে।
করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে জনপরিহন চলাচল সীমিত রাখতে সাইকেলের ওপর গুরুত্ব দিয়েছে বার্সেলোনা শহরের প্রশাসন। সাইকেল ব্যবহারে উৎসাহিত করা হচ্ছে এবং মানুষ যেন নিরাপদে সাইকেল চালাতে পারে সে জন্য অতিরিক্ত ২১ কিলোমিটার রাস্তাও বানানো হয়েছে। পিকে সাইকেল চেপে মাঠে গিয়ে সবাইকে সচেতন রাখার দায়িত্ব পালন করেন।
টি-শার্ট, শর্টস ও বেজবল টুপি মাথায় ইলেকট্রিক সাইকেলে চেপে ক্যাম্প ন্যু তে আসেন পিকে। বার্সা ডিফেন্ডার এর আগে অনুশীলনে অনেকবার সাইকেল চেপে গিয়েছেন। বেশ ক’বার সন্তানকে স্কুলেও পৌঁছে দিয়েছেন দ্বি-চক্রযানে চাপিয়ে। কিন্তু সাইকেল চেপে ম্যাচ খেলতে গিয়ে চমকে দেন সবাইকে।

এবার বন্ধুত্বের মাশুল
স্পোর্টস ডেস্ক : রিয়াল মাদ্রিদে আসার পর থেকেই সময়টা ভালো যাচ্ছে না লুকা ইয়োভিচের। ২৫ ম্যাচে মাত্র ২ গোল করেছেন এ স্ট্রাইকার। করোনাভাইরাস মহামারির শুরুর পর একবার বিপদে পড়েছিলেন তিনি। লকডাউনের নিয়ম ভেঙে ‘করোনামুক্ত’ সনদ জোগাড় করে কোয়ারেন্টিন ভেঙে স্পেন ছেড়ে তিনি গিয়েছিলেন নিজ দেশ সার্বিয়ায়। তা-ও আবার বান্ধবীর জন্দমিন পালন করতে। কিন্তু ইয়োভিচ সেখান থেকে শিক্ষা নিয়েছেন তা বলা যাচ্ছে না।
বেলগ্রেড থেকে দু’দিন আগে মাদ্রিদে অবতরণ করেন ইয়োভিচের এক বন্ধু। ২২ বছর বয়সী রিয়াল স্ট্রাইকার সেই বন্ধুর সঙ্গে দেখা করেছেন। করোনা মহামারির মধ্যে খেলোয়াড়দের সঙ্গে বাইরের কারও দেখাশোনার বিষয়টি এমনিতেই সীমিত করে রেখেছে রিয়াল। এরপরও কারও দেখা করার দরকার পড়লে অতিথিকে সবার আগে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করাতে হবে। ইয়োভিচের সেই বন্ধু পরীক্ষায় পজিটিভ হন। এরপর সেই বন্ধুকে ইয়োভিচের থেকে আলাদা করা হয়। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ইয়োভিচকে সবার থেকে আলাদা থাকতে বলে দিয়েছে রিয়াল। ইয়োভিচ নিজেও স্বপ্রণোদিত হয়ে নিজের বাসায় কোয়ারেন্টিনে আছেন। যদিও তাঁকে পরীক্ষা করে অবশ্য করোনার অস্তিত্ত্ব পায়নি রিয়াল। তবু আরও কিছু পরীক্ষার জন্য তাঁকে সবার থেকে আলাদা থাকতে হবে। আজ রাতে তাই আলাভেসের সঙ্গে ম্যাচে দেখা যাবে না ইয়োভিচকে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন