শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১০ সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারে সতর্ক করেছিলেন বেগম মুজিব

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ আগস্ট, ২০২১, ১২:০০ এএম

ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে সমঝোতা করলে তার সামরিক বাহিনী সুবিধামত যে কোন সময়ে তাকে হত্যা করতে পারে বলে বঙ্গবন্ধুকে সতর্ক করে দিয়েছিলেন বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব। একাত্তরে ইয়াহিয়া খান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জুলফিকার আলী ভুট্রোর মধ্যে অনুষ্ঠিত বৈঠকের সময় বেগম মুজিব বঙ্গবন্ধুকে এ কথা বলে সতর্ক করেন। এর আগে একাত্তরের ৭ মার্চের ভাষণের আগে বঙ্গবন্ধুকে অনেকে অনেক রকম পরামর্শ দিলেও সঠিক পরামর্শটি দিয়েছিলেন তার সহধর্মিনীই। তিনি বঙ্গবন্ধুকে একটি কথাই বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধু যেন তার নিজের মনে যা আছে তাই ওই ভাষণে বলেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জামাতা এম. এ. ওয়াজেদ মিয়া, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা এবং সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের বর্ণনায় এই বিষয়গুলো উঠে এসেছে।
এম.এ.ওয়াজেদ মিয়া এ বিষয়ে তার ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ঘিরে কিছু ঘটনা ও বাংলাদেশ’ গ্রন্থে বলেন, ঐদিন দুপুরে বঙ্গবন্ধু কারো সঙ্গে কোন কথা না বলে গম্ভীরভাবে খাচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে শাশুড়ি বঙ্গবন্ধুকে বললেন, ‘এতদিন ধরে যে আলাপ আলোচনা করলে, তার ফলাফল কি হলো কিছুতো বলছো না। তবে, বলে রাখি, তুমি যদি ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে সমঝোতা কর, তবে, একদিন ইয়াহিয়া খানের সামরিক বাহিনী তাদের সুবিধামত যে কোন সময়ে তোমাকে হত্যা করবে, অন্যদিকে এদেশের জনগণও তোমার উপর ভীষণ ক্ষুব্ধ হবে।’

‘কথা শুনে বঙ্গবন্ধু রাগান্বিত হয়ে শাশুড়িকে বললেন, ‘আলোচনা এখনও চলছে। এই মুহূর্তে সব কিছু খুলে বলা সম্ভব না।’ এই পর্যায়ে শাশুড়ি রেগে গিয়ে নিজের খাবারে পানি ঢেলে দ্রæত উপরের তলায় চলে যান। তিনি না খেয়ে সারা দিন শুয়ে থাকলেন, কারো সঙ্গে কথাও বললেন না।

২০১৭ সালের ১৫ মার্চ রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত একটি সেমিনারে এদিন মা ফজিলাতুন্নেসা মুজিবের স্মৃতিচারণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রকাশ্য রাজনীতিতে কখনোই না এলেও তিনিই ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা।

সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ সেই সময়ে খ্যাতিমান ছাত্রনেতা। তিনি ৭ মার্চের সভাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, ‘৭ মার্চের আগে বঙ্গবন্ধুর বাড়ি গিয়েছিলাম। একজন তাকে বললেন জনগণ কিন্তু সম্পূর্ণ স্বাধীনতা ঘোষণা ছাড়া মানবে না। বঙ্গবন্ধু তাকে বললেন, তুমি তোমার কাজ কর। আমি তাদের নেতা, আমি তাদের পরিচালিত করবো, তারা আমাকে নয়।’

ইয়াহিয়া খানকে নিয়ে বেগম মুজিবের এ আশংকায়ে অমূলক ছিল না পরবর্তী সময়ে কিন্তু তা প্রমাণ হয়েছে। পাকিস্তানের সামরিক জান্তা ইয়াহিয়া যখন ভুট্টোর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন সেসময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ফাঁসি দেয়ার আবারও প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এর আগে পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায়ও বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার একটি পরিকল্পনা আঁটা হয়েছিল। বন্দিত্ব থেকে মুক্তি পাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু প্রখ্যাত সাংবাদিক ডেভিড ফ্রস্টকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেছিলেন। অধ্যাপক আবু সাইয়িদের বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড ফ্যাক্টস এন্ড ডকুমেন্টস’ গ্রন্থে সাক্ষাৎকারটি ছাপা হয়েছে।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ: রাজধানীর মিরপুর বাইশবাড়ী বাইতুল আহছান জামে মসজিদ কমিটি ও এলাকা বাসীর উদ্যাগে দুঃস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেছেন, করোনার এই দুঃসময়ে অসহায় মানুষের পাশে বিএনপি নেই। তারা শুধু সরকারের সমালোচনায় ব্যস্ত। করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ কোনো মানুষকে একমুঠো চাল দেয়নি বিএনপি নেতারা। তারা শুধু সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে। জনগণের প্রতি তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই বলেও চলে। করোনায় যুবলীগ সারাদেশে অসহায় মানুষের পাশে আছে। খাদ্য সামগ্রী, অক্সিজেন, অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে মানুষের পাশে থেকে যুবলীগ কাজ করছে বলে জানান তিনি। পশ্চিম কাজীপাড়া বাড়ী মালিক সমিতি’র সভাপতি আতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন পশ্চিম কাজীপাড়া বাড়ী মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক শওকত ইসলাম বুলবুল। বায়তুল আহছান জামে মসজিদের খতিব, মাওলানা মুফতি আনিসুর রহমানসহ প্রমুখ ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন