বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪ আশ্বিন ১৪২৮, ২১ সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তির জন্য জম্মু ও কাশ্মীর বিতর্কের সমাধান অপরিহার্য : কুরেশী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ আগস্ট, ২০২১, ৭:৩৩ পিএম

২০১৯ সালের ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদের আলোকে জম্মু ও কাশ্মীরকে দেয়া বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করা হয়। ৫ আগস্ট ২০২১ দুই বছর পূর্তি। এ উপলক্ষে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মখদুম শাহ মাহমুদ কুরেশীর লেখা ‘দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তির জন্য জম্মু ও কাশ্মীর বিতর্কের সমাধান অপরিহার্য’ শিরোনামের প্রবন্ধটি পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে প্রেরিত হয়। এটি বাংলায় অনুবাদ করে ইনকিলাব পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।


ইমরান খানের নেতৃত্বে আমাদের সরকার ২০১৮ সালে ক্ষমতায় এসেছিল। তখন থেকেই আমাদের সরকার তার ভোটারদের কাছে নয়াপাকিস্তান গড়ার বার্তা পৌঁছে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পূরণে মনোনিবেশ করে। আমরা আঞ্চলিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য আমাদের যোগাযোগের অবকাঠামো ব্যবহার করে শিক্ষা, কর্মসংস্থান এবং উন্নত স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করতে চেয়েছি। আমরা জানতাম যে, এর জন্য একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ প্রয়োজন।

সেই প্রেক্ষিতে, নির্বাচনের কিছুক্ষণ পরে, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ঘোষণা করেছিলেন যে, ভারত যদি শান্তির জন্য একটি পদক্ষেপ নেয়, পাকিস্তান তবে দুটি পদক্ষেপ নেবে। তিনি আশা করেছিলেন যে, পাকিস্তান এবং ভারত একে অপরের সাথে মিলে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়াই করবে।

দুর্ভাগ্যবশত দেখা গেলো, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সরকারের শান্তিতে কোন আগ্রহ নেই। ভারতের ক্ষমতাসীন দল, ভারতীয় জনতা পার্টি জাতীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের (আরএসএস) বর্ণবাদী, বিদ্বেষপূর্ণ ও হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে, যার প্রতিষ্ঠাতা পিতা হিটলার এবং মুসোলিনির প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন।

বিজেপি সরকার পাকিস্তানের প্রতি কটাক্ষকে রাজনৈতিকভাবে পুঁজি করে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের-বিশেষ করে মুসলমানদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ও সহিংসতা উস্কে দেওয়ার জন্য সাফল্য অর্জন করেছে এবং প্রকৃতপক্ষে, ভারতের এমন প্রবণতা আমাদের দুই পারমাণবিক শক্তিধর দেশকে ফেব্রুয়ারী ২০১৯ এ এক ভয়াবহ যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে এসেছিল। পাকিস্তানের কারণে সেই রক্তক্ষয়ী ঘটনা ঘটেনি। এ জন্য ভারতকে ধন্যবাদ জানাতে পারলাম না। আমরা ভেবেছিলাম যে, যুদ্ধের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা মোদী সরকারকে হতাশ করবে। কিন্তু আরএসএসের আদর্শ ভারত সরকারের ডিএনএকে কতটা সংক্রমিত করেছে, তা আমরা বুঝতে পারিনি।

নয়াদিল্লি জম্মু ও কাশ্মীরের মূল বিরোধের পাশাপাশি আমাদের সম্পর্ককে বিঘ্নিত করে এমন অন্যান্য নানা বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য পাকিস্তানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে চলেছে। প্রধানমন্ত্রী মোদীকে দেখে মনে হচ্ছে,পাকিস্তানের শান্তির আকাঙ্ক্ষা একটি দুর্বলতা। ৫ আগস্ট, ২০১৯, ভারত কর্তৃক অবৈধভাবে অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীর (আইআইওজেকে)-এর সাথে ভারত সশস্ত্র অবরোধ ও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে। এরপর থেকে শিশুসহ হাজার হাজার কাশ্মীরি গ্রেফতার ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে। ৯১ বছর বয়সী আলী শাহ গিলানীর মতো জনপ্রিয় কাশ্মীরি নেতারা সবসময়ই ভারতীয় রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের শেষ প্রান্ত দেখতে চেয়েছিলেন। এবার ভারত সেইসব রাজনৈতিক নেতাদেরও রেহাই দেয়নি, যাদের মধ্যে তিনজন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, যাদেরকে সাধারণ কাশ্মীরিরা ভারতীয় দখলদারদের মধ্যে সক্রিয় হিসেবে দেখেছে।

৮ মিলিয়নেরও বেশি কাশ্মীরি আজ বিশ্বের সবচেয়ে বড় ওপেন-এয়ার কারাগার ক্যাম্পে বন্দী রয়েছে। ৯ লক্ষ ভারতীয় সামরিক ও আধা সামরিক বাহিনী তাদের উপর খড়গ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। কোন বিশ্বাসযোগ্য পর্যবেক্ষক বা মানবাধিকার সংগঠন তাদের সাথে দেখা করতে পারছে না, যেন পাছে তাদের আওয়াজ শোনা না যায়। ভারত মার্কিন সিনেটরদের কাশ্মীরে যেতে নিষেধ করেছে। একজন বর্তমান ব্রিটিশ সংসদ সদস্যকে আটক ও নির্বাসন দেয়া হয়েছে। কারণ, তিনি কাশ্মীরে ভারতীয় মানবাধিকার লঙ্ঘনের সমালোচনা করেছিলেন। আইআইওজেকে -তে ভারতের সামরিক অবরোধ ও লকডাউনের প্রথম বার্ষিকী গত বছরের ৫ আগস্ট থেকে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী ৩৯০ জন কাশ্মীরিকে হত্যা করেছে। শুধু ২০২১ সালেই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে প্রায় ৮৫ জন কাশ্মীরিকে হত্যা করা হয়েছে। ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী নিয়মিত কাশ্মীরি বিক্ষোভকারীদের হত্যা করার জন্য নাটকীয়ভাবে মুখোমুখি হয় এবং নারী ও শিশুদের বিরুদ্ধে পেলেট বন্দুক ব্যবহার করে, শত শত জনকে অন্ধ করে এবং অপহরণ করেছে।

পাকিস্তান যেমনটি সতর্ক করেছিল, ভারত সরকার কাশ্মীরের জনসংখ্যাতাত্ত্বিক পরিবর্তনকে প্রভাবিত করতে অবৈধ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিকভাবে বিতর্কিত অঞ্চলে অ-বাসিন্দাদের দ্বারা স্থানীয় জনসংখ্যার স্থানচ্যুতি আন্তর্জাতিক আইন এবং বিশেষ করে চতুর্থ জেনেভা কনভেনশনের লঙ্ঘন। কাশ্মীরি রাজনৈতিক পুরো নেতৃত্ব ভারত সরকারের বর্ণালী "স্থায়ী উপনিবেশ" তৈরির এই পদক্ষেপ প্রত্যাখ্যান করেছে। মোদির পদক্ষেপগুলো ভারত ও অঞ্চলকে একটি কানাগলিতে ফেলে দিয়েছে। কাশ্মীরিদের আত্মনিয়ন্ত্রণের সংগ্রামকে চূর্ণ করতে না পারার কারণে, ভারত তার দখলদারিত্বের বৈধতা প্রদানের জন্য কাশ্মীরি নেতৃত্বের মধ্য থেকে নতুন প্রজন্মের সহযোগীদের খুঁজছে। এদিকে, কাশ্মীরি মানুষের ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক এবং ভাষাগত পরিচয় মুছে ফেলার জন্য একটি নিয়মতান্ত্রিক অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এটিও ব্যর্থ হবে-যেমন কাশ্মীরিদের স্বাধীনতার দাবি বাতিল করার অন্য সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

ভারত সরকার তখন কি করবে? কাশ্মীরের স্বাধীনতা সংগ্রামকে ধূলিসাৎ করার জন্য কি "সীমান্ত সন্ত্রাসের" পরিচিত ছায়ামূর্তিকে পুনরুত্থিত করবে? বিজেপি সরকারকে কাঁপিয়ে দেয়া কেলেঙ্কারির ঘটনা(ভারতের গুপ্তচরবৃত্তির শিকার প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সাম্প্রতিক ঘটনা উদ্ঘাটন সহ) শেষ না হওয়ায় এই প্রবাহ থেকে দৃষ্টি সরানোর চেষ্টা, এটি কি পাকিস্তানের সাথে আরেকটি সংকট তৈরি করবে?

ভারত একটি একচ্ছত্র শক্তি হওয়ার আকাঙ্ক্ষা পোষণ করে। প্রকৃতপক্ষে, এর শক্তিশালী পৃষ্ঠপোষক রয়েছে, যারা ভারতকে একটি মহান শক্তি হতে সাহায্য করতে চায়। কিন্তু ভারত যখন তাদের গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ এবং মানবাধিকারকে উপহাস করে, তখন তারা অন্যদিকে তাকিয়ে থাকে। কাশ্মীরি জনগণের উপর অত্যাচার বন্ধের জন্য ভারতকে আহ্বান জানানো এবং কাশ্মীর বিরোধের শান্তিপূর্ণ সমাধানের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দায়িত্ব। ফেব্রুয়ারি থেকে নিয়ন্ত্রণরেখা জুড়ে একটি বিরতিহীন যুদ্ধবিরতি চললেও পরিস্থিতি এখনও উত্তাল। এবং আফগানিস্তানের পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি হওয়ায় কাশ্মীর নিয়ে নতুন করে আঞ্চলিক উত্তেজনা কারো স্বার্থে কাম্য নয়। শুধুমাত্র একটি সমাধান আছে। ভারতকে তার ৫ আগস্ট, ২০১৯ এর পদক্ষেপগুলো প্রত্যাহার করতে হবে এবং এই দীর্ঘদিনের বিরোধের সমাধানের জন্য পাকিস্তান এবং কাশ্মীরি জনগণের বৈধ প্রতিনিধিদের সাথে একটি ফলপ্রসূ সংলাপের পরিবেশ তৈরি করতে হবে।

বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্র অঞ্চলগুলোর মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ার মানুষ শান্তি, সমৃদ্ধি এবং তাদের সন্তানদের উন্নত ভবিষ্যতের জন্য আকাঙ্ক্ষিত। বাস্তবতার মুখোমুখি হতে ভারতের একগুঁয়েমের কাছে তাদের জিম্মি করা উচিত নয়। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রাসঙ্গিক প্রস্তাব এবং কাশ্মীরি জনগণের ইচ্ছা অনুযায়ী জম্মু -কাশ্মীর বিরোধের শান্তিপূর্ণ সমাধান ছাড়া দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তি আসতে পারে না।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন