শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

পাইকগাছায় বিধবাকে গণধর্ষণ, পুলিশের ত্বরিত পদক্ষেপে গ্রেফতার ৪ ধর্ষক

খুলনা ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৬ অক্টোবর, ২০২১, ৩:৪৮ পিএম

খুলনার পাইকগাছা উপজেলায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক বিধবাকে (৩৫) গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশের তড়িৎ পদক্ষেপে সকল আসামি গ্রেফতার হওয়ায় জনমনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কমকতা (ওসি) মো. এজাজ শফী জানান, গত ২৮ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ২ টার দিকে উপজেলার কালুয়া (দক্ষিণপাড়া) গ্রামের মৃত নিরোধ ঢালীর স্ত্রী রূপসী ঢালীকে মারপিট ও ভয়ভীতি দেখিয়ে ৪ ব্যক্তি তারই বাড়িতে গণধর্ষণ করে। এসময় তারা রূপসী ঢালীর বাড়ি থেকে মোবাইল ফোন, নগদ অর্থসহ ১ লাখ ৪৮ হাজার টাকার মালামাল নিয়ে যায়। পরদিন রূপসী ঢালী অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করে পাইকগাছা থানায় মামলা করেন, মামলা নং ২৬। পুলিশ তাকে উন্নত চিকিৎসা ও পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। পরীক্ষায় গণধর্ষণের প্রমান পাওয়া গেছে।

গণধর্ষণের ঘটনাটি এলাকায় একটি স্পর্শকাতর বিষয়ে পরিণত হয়। যা নিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের আশংকা ছিল। অন্যদিকে অভিযুক্তরা অজ্ঞাত হওয়ায় পুলিশকে ক্লু উদ্ধারে অনেকটাই বেগ পেতে হয়।

খুলনা জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহবুব হাসান এর নির্দেশনা ও বিশেষ ছক এবং সার্কেল এএসপি সাইফুল ইসলামের তত্বাবধায়নে পাইকগাছা থানার ওসি মো. এজাজ শফী ঘটনার গুরুত্ব বিবেচনায় নিজেই মামলাটির দায়িত্ব নেন। থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে এসআই তাকবীর হোসাইন, এসআই অভিজিত বিশ্বাস, এসআই সুকান্ত কর্মকার, কং মাইনুল ও কং তৌফিককে নিয়ে একটি টিম গঠন করা হয়। আধুনিক প্রযুক্তি ও কৌশলের সহায়তায় মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে আজ বুধবার ভোর রাত পযন্ত অভিযান চালিয়ে পাইকগাছা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে শেখ জিয়াদ আলীর ছেলে শেখ অহিদুল ইসলাম ওরফে অহিদ (২৮) ও মৃত ইউসুফ ঢালীর ছেলে ফেরদৌস ঢালী (৫১) এবং পার্শ্ববর্তী কয়রা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে মৃত অহিদ আলীর ছেলে রাকিবুল ইসলাম ওরফে ওরাকা (২৮), শেখ খলিলুর রহমানের ছেলে শেখ মোনায়েম হোসেনকে (২৪) গ্রেফতার করা হয়।
ওসি এজাজ শফী আরো জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। তারা আন্ত:জেলা ডাকাত দলের সদস্য। পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তারা গণধর্ষণ ও ডাকাতির কথা স্বীকার করেছে। শেখ অহিদুল ইসলামের স্বীকারোক্তিতে কয়রায় ভাগবা খাল থেকে ভোরে রূপসী ঢালীর লুন্ঠিত মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বুধবার তারা পাইকগাছার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট পলাশ কুমার দালালের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের সহযোগীদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে।

এদিকে, স্থানীয়রা জানিয়েছেন, পুলিশ তড়িৎ পদক্ষেপ না নিলে এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি বিনষ্টের আশংকা ছিল। সাধারণ মানুষের মাঝে গণধর্ষণের ঘটনায় আতংকের সৃষ্টি হয়েছিল। আসামিদের গ্রেফতারের পর এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
Ariful Islam ৬ অক্টোবর, ২০২১, ৯:১১ পিএম says : 0
তিব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
Total Reply(0)
Mohammad Nuruzzaman ৮ অক্টোবর, ২০২১, ১১:৩২ এএম says : 0
অদের পাসি চাই
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন