রোববার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কোরআন খতমের মাধ্যমে বিয়ে

আনোয়ার জাহিদ, ফরিদপুর থেকে : | প্রকাশের সময় : ১৭ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০১ এএম

 ফরিদপুর সদর উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের বাঘারকান্দিতে গান-বাজনা বাদ দিয়ে এক ব্যাতিক্রমধর্মী ওয়াজ মাফিল ও পবিত্র কোরআন খতমের মধ্য দিয়ে গতকাল শনিবার তিন দিনব্যাপী এক বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ হয়েছে।
বর মোহম্মদ ইয়াসিন আল আরাফাত জানান, গান-বাজনা বাজিয়ে, ঢাক-ঢোল পিটিয়ে জাঁকজমকপূর্ণ বিয়ে -এটা আমাদের সমাজের খুবই সাধারণ চিত্র। কিন্তু মুসলিম বর-কনে হিসেবে একটা বিয়ের অনুষ্ঠান কেমন হবে -এটা নিয়ে আমরা ভাবি না। তবে এবার চিরাচরিত সে নিয়ম ভেঙে গান-বাজনার পরিবর্তে আমার বিয়েতে পবিত্র কোরআন খতমের আয়োজন করছি।
এই বিষয়টিতে প্রশংসায় ভাসছেন ফরিদপুর সদর উপজেলার বাসিন্দা মোহাম্মাদ ইয়াসিন আল আরাফাত। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ার পরে সবাই ব্যতিক্রমী এ আয়োজনের জন্য তাকে শুভ কামনা জানিয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার থেকে গতকাল পর্যন্ত তার বিয়ের বিয়ে অনুষ্ঠান চলে। বিয়ের আগের দিন পর্যন্ত হলুদ সন্ধ্যার বদলে কোরআন খতমের আয়োজন করেন তিনি। মোহাম্মাদ ইয়াসিন আল আরাফাত উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের বাঘারকান্দী গ্রামের আলহাজ ওবাইদুর রহমানের পুত্র। গত শুক্রবার তার বিয়ে অনুষ্ঠিত হলে ওই বাড়িতে এলাকার ধর্মপ্রাণ মানুষের সরব উপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মত। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে বাঘারকান্দী মহিলা মাদরাসার মাঠে স্থানীয় হাফেজরা প্রায় তিনঘণ্টা পবিত্র কোরআনে কারিম তিলাওয়াত করেন। এরপর বিয়ে উপলক্ষে গত শুক্রবার ওয়াজ মাহফিলও অনুষ্ঠিত হয়।
ব্যতিক্রমী এ আয়োজনের ব্যাপারে মোহাম্মাদ ইয়াসিন আল আরাফাত বলেন, মুসলিম হলেও আমাদের বিয়ে ইসলাম মেনে হয় না। অপসংস্কৃতি রোধে এবং আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার উদ্দেশে আমি এই আয়োজন করেছি। আমি বিশ্বাস করি, বিয়েতে যদি ইসলামি রীতিনীতি পরিপালিত হয় তাহলে ভবিষ্যত দাম্পত্য জীবনও সুখের হবে। আমি সবার কাছে দোয়া চাই এবং সবাইকে ইসলামি আদর্শ মেনে বিয়ে করার আহবান জানাই।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন