বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

ঈদ এ মিলাদুন্নবী

বসন্তের মেঘ

কাব্যানুবাদ : রূহুল আমীন খান

আল্লামা ইকবাল | প্রকাশের সময় : ২০ অক্টোবর, ২০২১, ১২:১৩ এএম


মুসলিমের হৃদয়ের মাঝ
মুহাম্মদ মুস্তফা করেন বিরাজ।
আমাদের মর্যাদা মহিমা গৌরব
সব তাঁর দৌলতে- উসিলায় সব।
তূরে সিনাই শুধু-ধূলিকণা নিবাসের তাঁর
তাঁর বসবাস গেহ পুণ্যতীর্থ খানায়ে কাবার।
অনন্ত সময় কাল- ক্ষণমাত্র তাঁর সময়ের
তাঁর অন্তঃসার থেকে
আয়ু প্রাপ্তি কাল প্রবাহের।

নিদ্রিত ছিলেন তিনি মিত্তিকায়
চাদরে তৃণের
চরণ-দলিত হলো মুকুট, শাহানশাহীÑ শাহ্ পারস্যের
অনুসারীদের দ্বারা তাঁর।
মোরাকেবা-মগ্ন থেকে নির্জনে গহ্বরে হেরার
প্রতিষ্ঠা করেন রাষ্ট্র, রাষ্ট্রীয় ফর্মান
সুদক্ষ শাসকবর্গ
কালোত্তীর্ণ আইন ও বিধান।
বিনিদ্র রজনী তাঁর কেটে গেছে ঢের
পারে যেন মুসলিমেরা
নিদ্রা যেতে তখ্তে পারস্যের।
রণক্ষেত্রে গলে যায় লৌহ তাঁর
তরবারিÑআঘাতে
চোখ থেকে ঝরে অশ্রু অবিরল
দাঁড়িয়ে সালাতে।

প্রার্থনা করেন তিনি আল্লা’র সাহায্য যখন
আমীন আমীন বলে সাথে তাঁর তরবারি তখন।
সেই সাথে সুপ্রাচীন কত রাজবংশ
হয়ে গেল বিনাশ বিধ্বংস।
তাঁর মহামঙ্গল উত্থানে
পূর্বতন স্বৈররাজ চলে গেল সমাপ্তির পানে।
দ্বীনের কুঞ্চিকা দ্বারা নবতর বিশ্ব ব্যবস্থার
উদঘাটন করিলেন দ্বার।

বিশ্বভূমে কোনো দিন তাঁহার মতন
জন্মে নাই আর কোনো জন।
ছিল নাকো উচ্চ-নীচ দৃষ্টিতে তাঁর
ভৃত্যদের সাথে তিনি বসিতেন এক বিছানায়
করিতেন একত্রে আহার।
কৌলিন্য আভিজাত্য জঞ্জাল মিথ্যার
তাঁর লেলিহান অগ্নি
করে দিল পুড়ে ছারখার।

আমরা নির্দেশ মেনে চলি সেই
সাকীয়ে মক্কার
আমাদের সাথে তাঁর সম্পর্ক
সুরা-পেয়ালার।
আমরা একটি গুচ্ছ গোলাপ পুষ্পের
সৌরভ অভিন্ন এক।
তিনি রূহ্Ñ তিনি আত্মা প্রাণ
একটি দেহের মতো দুনিয়ার কূল মুসলমান।

আমরা ছিলাম তাঁর অন্তরের রহস্য গোপন
যেন এক মধুর স্বপন।
সত্যদ্বীনসহ তিনি আসিলেন
ডাকিলেন, হলাম হাজির
শুরু হলো অভিযাত্রা নয়া জিন্দেগীর।

আমার এই শব্দ হীন বংশীতে
তাঁর প্রেম তুলে দিল সুর
আছাড়ি-পিছাড়ি পরে বক্ষে মোর
সে সুরের তরঙ্গ মধুর।
জানি নাকো সেই সুরকার
কোন সুর তুলিবেন
হৃদয়ের বংশীতে আমার।

কেঁদেছে বিশুষ্ক কাষ্ঠ প্রেমে তাঁর
বিচ্ছেদ ব্যথায়
গৌরব মহিমা তাঁর প্রকটিত
বিশ্বের মুসলিম সত্ত্বায়।
অসংখ্য সিনাই জাগে
তাঁর পূত পদধূলি সনে
জনম-পূর্বেই আমি
জাগ্রত ছিলাম তাঁর হৃদয়-দর্পণে।
আবির্ভাব আমার উষার
হৃদয়ের সূর্য থেকে তাঁর।
অশান্ত চঞ্চল মোর
বিরাম ও বিশ্রামের ক্ষণ
হাশর ময়দান থেকে উষ্ণতর
সায়াহ্নÑগোধূলি লগন।
তিনি বসন্তের মেঘ
আমি শুষ্ক আঙুর বাগান
তাঁর বরিষণে হয় সজীব সুষমাময়
আমার উদ্যান।

“হে মদীনা ভূমি
উভয় জাহান থেকে শ্রেষ্ঠতর মিষ্টতর তুমি
তোমার সুমনোহর মর্যাদা বেহদ
বিদ্যমান বক্ষে তব আমার পরম প্রেমাস্পদ”

কী বাখানি করেছেন আহা! মোল্লা জামী
বিস্ময় বিমুগ্ধ চিত আত্মহারা আমি।
যা ছিল অভাব ত্রুটি গদ্যে পদ্যে মোর রচনায়
লভেছি বিশুদ্ধি তার জামীর অমিয় কবিতায়।
প্রভু-বন্দনায় কাব্য তাঁর
অপূর্ব নৈপুণ্যে গাঁথা মনি মুক্তা হার।

“মুহাম্মদ মুখবন্ধ বিশ্ব গ্রন্থের
প্রভু তিনি, দাস তাঁর সব এ বিশ্বের।”
(আসরারে খুদী)

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন