সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৩ মাঘ ১৪২৮, ১৩ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

চীন-মার্কিন শীতল যুদ্ধ, উভয়সঙ্কটে পড়েছে উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলো

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ নভেম্বর, ২০২১, ৮:১৫ পিএম | আপডেট : ৮:১৭ পিএম, ২৬ নভেম্বর, ২০২১

একটি সম্ভাব্য ইউএস-চীন স্নায়ুযুদ্ধ রোধ করা উপসাগরীয় আরব দেশগুলো, বিশেষ করে ওয়াশিংটনের প্রধান অংশীদার- সউদী আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের জন্য একটি শীর্ষ পররাষ্ট্রনীতি অগ্রাধিকার হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে৷ কিন্তু, সম্প্রতি সংযুক্ত আরব আমিরাতে নির্মিত একটি গোপন চীনা বন্দরের কথা প্রকাশ্যে আসার পরে দুই পরাশক্তির সাথে সম্পর্কের ভারসাম্য বজায় রাখা ছোট রাষ্ট্রগুলোর জন্য কঠিন হয়ে উঠছে।

ওয়াশিংটনের প্রতিবাদের কারণে আমিরাতের রাজধানী আবুধাবির কাছে চীনা স্থাপনাটির নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত জোর দিয়ে বলে যে, এটি নিছক একটি শিপিং পোর্ট ছিল। তবুও, এটি বোধগম্য যে মার্কিন কর্মকর্তারা সন্দেহ করেন যে, চীন উপসাগরে একটি সামরিক স্থাপণা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করতে পারে। উপসাগরীয় দেশগুলোর জন্য, তাদের প্রধান কৌশলগত অংশীদার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের সবচেয়ে বড় জ্বালানি গ্রাহক চীনের মধ্যে বেছে যে কোন একজনকে নিতে বাধ্য হওয়ার ভয় এখন ইরান এবং মুসলিম ব্রাদারহুড থেকে আল-কায়েদা পর্যন্ত গোষ্ঠীগুলোর হুমকির পাশাপাশি স্থান পেয়েছে। এই উদ্বেগগুলো বিশ্বব্যাপী শক্তির কেন্দ্রস্থলে ক্ষমতার অনিশ্চিত বাস্তবতা সম্পর্কে অনেক কিছু প্রকাশ করে।

এমনকি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মনোযোগ চীনের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতার দিকে স্থানান্তরিত হওয়ার পরেও, উপসাগরীয় ভূ-রাজনৈতিক কথোপকথনের একটি বড় অংশ রয়ে গেছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা যখন চীনের উত্থানকে মোকাবেলা করার জন্য ‘এশিয়ার পিভট’ এর পক্ষে কথা বলছিলেন, তখন তিনি পরোক্ষভাবে ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্য থেকে সম্পদের স্থানান্তরের পরামর্শ দিয়েছিলেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অধীনেও সেই আকাঙ্ক্ষা অব্যাহত রয়েছে। তবে উপসাগরীয় অঞ্চলে মার্কিন সামরিক সম্পদের কোনো বড় ধরনের স্থানান্তর হয়নি।

এর কারণ হল পূর্ব এশিয়ার প্রতি মার্কিন মনোযোগের একটি পিভট উপসাগর এবং এর শক্তি সংস্থানগুলোকে টেনে আনবে। চীনসহ পূর্ব ও দক্ষিণ এশিয়ার অধিকাংশ গতিশীল অর্থনীতি উপসাগর থেকে রপ্তানি করা জ্বালানির ওপর নির্ভরশীল। দুটি অঞ্চল অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িত। তবুও, ওয়াশিংটনের উপসাগরীয় আরব অংশীদারদের তাদের নিরাপত্তার প্রতি মার্কিন প্রতিশ্রুতি দুর্বল হওয়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ইরান যখন সউদী আরামকোর তেল স্থাপনায় হামলা চালায়, তখন ট্রাম্প প্রশাসন কোনো আমেরিকান নিহত হয়নি বলে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। কিন্তু হামলার পরে প্রায় এক সপ্তাহের জন্য সউদী উৎপাদন বন্ধ করে দেয় যা বিশ্বব্যাপী জ্বালানি বাজারকে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করে। অধিকন্তু, এটি নির্ভুল দিকনির্দেশনা এবং নির্ভুলতায় ইরানি দক্ষতার একটি উদ্বেগজনক যোগ্যতা প্রদর্শন করেছে।

ওয়াশিংটনের নির্ভরযোগ্যতা সম্পর্কে উপসাগরীয় আরবদের সন্দেহ এখান থেকে সূত্রপাত হলেও পুরোপুরি শুরু নয়। সুতরাং, কৌশলগত বৈচিত্র্যের বিস্তৃত প্যাটার্নের অংশ হিসাবে, সউদী আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত রাশিয়া এবং চীনের সাথে সম্পর্ককে মজবুত করছে। ইরান ও তুরস্ক সহ প্রতিদ্বন্দ্বীদের সাথে ক্রমবর্ধমান হারে উন্নতি করছে এবং সম্ভাব্য নতুন অংশীদার ইসরাইলের সাথেও যোগাযোগ করছে। আপাতত, এই দেশগুলোর বাইরেও তাদের নিরাপত্তা সমর্থন প্রয়োজন, এবং শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্রই এটি কার্যকরভাবে প্রদান করতে পারে। তাই তারা ওয়াশিংটনকে তাদের প্রধান কৌশলগত অংশীদার হিসেবে রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

কিন্তু অন্যান্য অপরিহার্যতাও আছে। উপসাগরীয় রাজ্যগুলোর জন্য ক্রমবর্ধমান স্থানীয় উপস্থিতি এবং একটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রাহক হিসাবে চীনকে হিসাবে রাখতে হবে। তাদের এটাও নিশ্চিত করতে হবে যে ইরান, যেটি বেইজিংয়ের সাথে একটি অংশীদারিত্ব মজবুত করছে, তারা যাতে ভবিষ্যতে চীনাদের সাথে একচেটিয়া সম্পর্ক গড়ে তুলতে না পারে। সউদী আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের জন্য ইরানকে বেইজিংয়ের একমাত্র উপসাগরীয় প্রতিনিধি হিসাবে দেখা মোটেও সুখকর বিষয় নয়। তাদেরকে চীনের শক্তিশালী বৈশ্বিক এবং আঞ্চলিক ভবিষ্যতের কথাও মাথায় রাখতে হবে।

চীনা বন্দর নির্মাণ নিয়ে সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহের প্রেক্ষিতে আমিরাতের জন্য বেইজিংয়ের সাথে নিছক বাণিজ্যের বাইরে গিয়ে, উষ্ণ এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার পাশাপাশি ওয়াশিংটনের সাথে ঘনিষ্ঠ কৌশলগত অংশীদারিত্বের ভারসাম্য বজায় রাখা অত্যন্ত কঠিন হতে চলেছে। চীনের সাথে তাদের সাম্প্রতিক সহযোগিতার মধ্যে রয়েছে প্রতিরক্ষা শিল্প, কোভিড ভ্যাকসিন উৎপাদন, বিশ্বব্যাপী বিনিয়োগ ও উন্নয়ন, সবুজ শক্তি এবং অন্যান্য উল্লেখযোগ্য বাণিজ্য। একই সময়ে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক থেকে চীনা যোগাযোগ সংস্থা হুয়াওয়ে টেকনোলজিসকে বাদ দেয়ার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতকে চাপ দিচ্ছে। তারা বলেছে যে, এটি পরিকল্পিত ২ হাজার ৩০০ কোটি ডলারের লকহিড মার্টিন এফ-৩৫ বিমান এবং ড্রোন ক্রয়ের ক্ষেত্রে একটি বাধা।

এটি প্রমাণ করে কেন উপসাগরীয় নেতারা প্রকাশ্যে একটি পূর্ণ-বিকশিত মার্কিন-চীন শীতল যুদ্ধের সম্ভাবনা নিয়ে উদ্বিগ্ন, যেখানে তারা এক বা অন্যটির পিছনে পূর্ণ সমর্থন দিতে বাধ্য হবে। সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকারের পররাষ্ট্র-নীতি কৌশলবিদ আনোয়ার গারগাশ ব্যাখ্যা করেছেন, ‘আমরা সবাই শীতল যুদ্ধের কারণে খুব চিন্তিত…কারণ যে কোন এক পক্ষ নির্বাচন করার ধারণাটি সমস্যাযুক্ত।’ এটি একটি কূটনৈতিক অবমূল্যায়ন। সূত্র: ব্লুমবার্গ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন