রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৫ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

রফিকুলের ১২ হারুনের ৪ বছর কারাদন্ড

ডেসটিনির গ্রাহকদের চার হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের মামলার রায় ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

২৩০০ কোটি টাকা জরিমানা : ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের অর্থ ফিরিয়ে দিতে কমিটি গঠনের নির্দেশনা
ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির গ্রাহকদের চার হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় গ্রæপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনের ১২ বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে দুইশ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া গ্রæপের চেয়ারম্যান সাবেক সেনাপ্রধান হারুন-অর-রশিদের চার বছরের কারাদন্ডর আদেশ দেওয়া হয়েছে। কারাদন্ডর পাশাপাশি তাকে তিন কোটি ৫০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদন্ডর আদেশ দিয়েছেন আদালত। মামলার বাকি ৪৩ আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। গতকাল ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় ঘোষণা করেন। কারাদন্ডর পাশাপাশি তাদের মোট ২৩০০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া এ প্রতিষ্ঠানের যত সম্পত্তি ক্রোক ও ফ্রিজ করা হয়েছিল, তা রাষ্ট্রের অনুক‚লে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

একই সঙ্গে এ সম্পত্তি বিনিয়োগকারীদের নিকটে বণ্টনের জন্য ছয় সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটিতে সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতিকে প্রধান ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের রেজিস্ট্রারকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। এছাড়া কমিটিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব, সমবায় মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব, পুলিশের ডিআইজি ও চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টকে সদস্য করা হয়েছে। এ কমিটি ডেসটিনির সব সম্পত্তি সমন্বয় করবে এবং তা এ প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগকারীদের মাঝে বণ্টন করবে।

রায়ে ডেসটিনির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের দশ বছরের কারাদন্ড এবং ৫০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক বছরের কারাদন্ড; ডেসটিনির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোফরানুল হক, সাঈদ-উর-রহমান, পরিচালক মেজবাহ উদ্দিনের দশ বছরের কারাদন্ড, এক কোটি ৮০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে দুই বছর ছয় মাসের কারাদন্ড; সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেনের নয় বছরের কারাদন্ড, ৩০ কোটি টাকা জরিমানা, অনাদায়ে দুই বছরের কারাদন্ড; ইরফান আহমেদ, ফারাহ দীবা, জমশেদ আরা চৌধুরী, শেখ তৈয়বুর রহমান ও নেপাল চন্দ্র বিশ্বাসের আট বছরের কারাদন্ড, ৪০ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর কারাদন্ড; জাকির হোসেন, আজাদ রহমান, আকবর হোসেন সুমন ও সুমন আলী খানের নয় বছরের কারাদন্ড, ১২৫ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর ছয় মাস কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।

আবুল কালাম আজাদ, সাইফুল ইসলাম রুবেল, শিরীন আকতার, রফিকুল ইসলাম সরকার, মো. মজিবুর রহমান, লে. কর্নেল (অব.) মো. দিদারুল আলমের আট বছরের কারাদন্ড, ১২৫ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর ছয় মাস কারাদন্ড; ড. এম হায়দারুজ্জামানের ছয় বছরের কারাদন্ড, দশ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছর ছয় মাসের কারাদন্ড; মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীনের ছয় বছরের কারাদন্ড, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদন্ড, কাজী মো. ফজলুল করিমের পাঁচ বছরের কারাদন্ড, ৫০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদন্ড; মোল্লা আল আমীনের আট বছরের কারাদন্ড, ১০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ছয় মাসের কারাদন্ড; শফিউল ইসলামের সাত বছরের কারাদন্ড, দশ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছর ছয় মাসের কারাদÐ; জিয়াউল হক মোল্লা, খন্দকার কবিরুল ইসলাম, মো. ফিরোজ আলমের পাঁচ বছরের কারাদÐ, দশ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদÐ; ওমর ফারুকের পাঁচ বছরের কারাদÐ, ২৫ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদÐ; সুনীল বরণ কর্মকার ওরফে এসবি কর্মকারের আট বছরের কারাদÐ, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদÐ দিয়েছেন আদালত।

ফরিদ আকতারের আট বছরের কারাদÐ দুই কোটি ৫০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদÐ; এস সহিদুজ্জামান চয়নের আট বছরের কারাদÐ, ১৫ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদÐ; আবদুর রহমান তপন ও মো. শফিকুল হকের সাত বছরের কারাদÐ, এক কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদÐ; মেজর (অব.) সাকিবুজ্জামান খান ও জেসমিন আক্তার মিলনের পাঁচ বছরের কারাদÐ, এক কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদÐ; এসএম আহসানুল কবির, এএইচএম আতাউর রহমান রেজা আট বছরের কারাদÐ, দশ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদÐ; গোলাম কিবরিয়া মিল্টনের আট বছরের কারাদÐ, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদÐ; মো. আতিকুর রহমানের সাত বছরের কারাদÐ, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদÐ; খন্দকার বেনজীর আহমেদ, একেএম সফিউল্লাহ, শাহ আলম, মো. দেলোয়ার হোসেনের সাত বছরের কারাদÐ, এককোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদÐ দেওয়া হয়েছে।

মামলায় ডেসটিনির এমডি রফিকুল আমীনসহ মোট আসামি ৪৬ জন। তাদের মধ্যে জামিনে রয়েছেন লে. কর্নেল (অব.) মো. দিদারুল আলম, লে. জেনারেল (অব.) হারুন-অর-রশিদ, মিসেস জেসমিন আক্তার (মিলন), জিয়াউল হক মোল্লা ও সাইফুল ইসলাম রুবেল। কারাগারে আছেন এমডি রফিকুল আমীন ও ডেসটিনির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন। অন্য ৩৯ আসামি পলাতক।

অর্থ আত্মসাৎ ও অর্থপাচারের অভিযোগে দুদকের তৎকালীন উপ-পরিচালক মো. মোজাহার আলী সরদার ও সহকারী পরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলাম ২০১২ সালের ৩১ জুলাই রাজধানীর কলাবাগান থানায় মানি লন্ডারিং আইনে পৃথক দুটি মামলা করেছিলেন। ২০১৪ সালের ৪ মে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন মোজাহার আলী সরদার। এতে ডেসটিনির গ্রাহকদের চার হাজার ১১৯ কোটি ২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে পাচারের অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির মামলায় ৪৬ জন এবং ডেসটিনি ট্রি প্ল্যানটেশন লিমিটেডে দুর্নীতির মামলায় ১৯ জনকে আসামি করা হয়। দুই মামলায়ই আসামি হারুন-অর-রশিদ ও রফিকুল আমিন।

মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, ২০০৮ সাল থেকে মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ প্রজেক্টের নামে ডেসটিনি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করেছিল ১ হাজার ৯০১ কোটি টাকা। সেখান থেকে ১ হাজার ৮৬১ কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয় বলে দুদকের অনুসন্ধানে ধরা পড়ে। ওই অর্থ আত্মসাতের ফলে সাড়ে ৮ লাখ বিনিয়োগকারী ক্ষতির মুখে পড়েন।

ডেসটিনি ট্রি প্ল্যান্টেশন প্রজেক্টের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ২ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে ২ হাজার ২৫৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭৭ হাজার টাকা আত্মসাৎ করা হয়। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হন সাড়ে ১৭ লাখ বিনিয়োগকারী।

অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়, ডেসটিনি গ্রæপের নামে ২৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বেশ কয়েকটি ছিল নামসর্বস্ব। আসামিরা প্রথমে প্রজেক্টের টাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হিসাবে জমা করতেন। এরপর বিভিন্ন ব্যাংকের হিসাবে তা স্থানান্তর করা হতো। দুদক ৩৪টি ব্যাংকে এমন ৭২২টি হিসাবের সন্ধান পায়, যেগুলো পরে জব্দ করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
নাসির ১৩ মে, ২০২২, ১:৫৫ এএম says : 0
তাদের ফাসি হওয়া উচিত ছিল
Total Reply(0)
নাসির ১৩ মে, ২০২২, ১:৫৬ এএম says : 0
যারা অন্যের টাকা মেরে খায়। তাদেরকে কঠিন শাস্তি দিলে দেশে এমন অপরাধ আর হতো না
Total Reply(0)
মোঃ আতাউর রহমান সুজন ১৩ মে, ২০২২, ১০:০৯ এএম says : 0
· মানুষের টাকা ফেরত কবে দিবেন
Total Reply(0)
Jeffry Jeff ১৩ মে, ২০২২, ১০:১০ এএম says : 0
এদের কি হলো তাতে বিনিয়োগকারীদের কিছুই যায় আসে না তাদের টাকা ফেরত পাবার জন্য সরকার কি করছে সেটাই জরুরি।
Total Reply(0)
Himel Barua ১৩ মে, ২০২২, ১০:১০ এএম says : 0
মানুষের টাকার কি হবে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps