রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

যুক্তরাজ্যে পরীক্ষামূলক শুরু হয়েছে সপ্তাহে ৪ দিন কাজ, ৩ দিন ছুটি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ জুন, ২০২২, ৪:৪৯ পিএম

যুক্তরাজ্যের ৭০টি প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হয়েছে সপ্তাহে ৪ দিন কাজের নিয়ম। কর্মীরা তিন দিন থাকবেন ছুটিতে। ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সোমবার থেকে ৩ হাজার ৩০০ কর্মী এই নতুন নিয়ম অনুযায়ী কর্মক্ষেত্রে কাজ করতে শুরু করেছেন।
আপাতত ছয় মাস এই নিয়ম অনুযায়ী কর্মক্ষেত্রগুলো পরিচালিত হবে। এটি একটি পরীক্ষামূলক প্রকল্প। প্রকল্পটি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও বোস্টন কলেজের অংশীদারত্বের ভিত্তিতে কমিউনিটি ফোর ডে উইক গ্লোবাল ও ফোর ডে উইক ইউকে পরিচালনা করছে।
গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কর্মঘণ্টা কমে এলেও কর্মীদের বেতন কমানো হবে না। তাঁরা শতভাগ বেতনই পাবেন। তবে তাঁদের উৎপাদনশীলতা আগের মতোই রাখতে হবে।
অলাভজনক প্রতিষ্ঠান ফোর ডে উইক গ্লোবালের প্রধান নির্বাহী জো ও’কনর বলেছেন, ‘সপ্তাহে চার দিন কাজের রীতি যুক্তরাজ্যে আগেও ছিল। করোনা মহামারি থেকে বেরিয়ে আসার পর অনেক প্রতিষ্ঠান এ ধরনের কাজের রীতিকে স্বীকৃতি দিচ্ছে। এতে কর্মীদের জীবনমান উন্নত হবে এবং তাঁদের উৎপাদনশীলতা আরও বাড়বে।’
যেসব প্রতিষ্ঠান এ নিয়ম চালু করেছে, তাদের মধ্যে রয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কর্মক্ষেত্রের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান, আবাসন প্রতিষ্ঠান, বিউটি পারলার, নির্মাণ প্রতিষ্ঠান, খাদ্য ও পানীয় উৎপাদন কারখানা ও বিপণন প্রতিষ্ঠান।
বোস্টন কলেজের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক এবং এই প্রকল্পের প্রধান গবেষক জুলিয়েট স্কোর প্রকল্পটিকে ‘ঐতিহাসিক উদ্যোগ’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘কর্মীরা এই অতিরিক্ত ছুটির দিনগুলো কীভাবে কাটান তা আমরা পর্যবেক্ষণ করে দেখব। এতে তাঁদের মানসিক চাপ, ঘুম, কাজের উৎপাদনশীলতা, কাজে মনোযোগিতা ইত্যাদিতে পরিবর্তন আসে কি না, তা বিশ্লেষণ করে দেখা হবে।’
গবেষক জুলিয়েট আরও বলেন, ‘সপ্তাহে চার দিনের কাজের মডেলকে সাধারণত ‘‘তিন গুণ লভ্যাংশ নীতি’’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আমাদের গবেষণার উদ্দেশ্য কর্মীকে সহযোগিতা করা, প্রতিষ্ঠানের লভ্যাংশ বাড়ানোতে সহায়তা করা এবং জলবায়ু সহনীয় রাখা।’
প্ল্যাটেনস ফিশ অ্যান্ড চিপসের টিম লিডার ২৫ বছর বয়সী ওয়াট ওয়াটস বলেছেন, ‘যখন আমি প্রথম শুনলাম যে আমরা একই বেতনে কম ঘণ্টা কাজ করতে যাচ্ছি, তখন আমি মনে মনে খুশিই হলাম। সাধারণত আমি খুব ক্লান্ত থাকি। আশা করি বিশ্রামের জন্য অতিরিক্ত সময় ব্যয় করলে আমার কর্মক্ষমতা বাড়বে।’
চ্যারিটি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী অ্যাড সিগেল বলেছেন, ‘যুক্তরাজ্যে প্রথমবারের মতো যেসব ব্যাংক চার দিনের কাজের নিয়ম চালু করেছে, আমরা তাদের একটি। কর্মীবান্ধব এমন একটি সুযোগ চালু করতে পেরে আমরা গর্বিত।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন