বুধবার, ৩১ মে ২০২৩, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১০ যিলক্বদ ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সরকার উদ্যোগ না নিলে সমাধান রাজপথেই

মিট দ্য ওকাব-এ মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২২, ১২:০১ এএম

নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে সরকার নিজেরা কোন উদ্যোগ না নিলে, দাবি না মানলে রাজপথেই সরকার পরিবর্তন করা হবে বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, বাংলাদেশে বেশিরভাগ সময় জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনের মধ্য দিয়ে পরিবর্তন হয়। আমরা অত্যন্ত আশাবাদী এবং আত্ম বিশ্বাসী যে, এবার জনগণের অকুন্ঠ সমর্থন নিয়ে আমরা সংগ্রামের মধ্য দিয়ে, আন্দোলনের মধ্য দিয়েই এই সরকারের পরিবর্তন আনতে পারব। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ওভারসিজ করসপন্ডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ওকাব) এর ‘মিট দ্য ওকাব’ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন সম্ভব নয় উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, নির্বাচন তখনই সম্ভব হবে যখন দেশে একটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার থাকবে। ওই সরকারের অধীনে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে সেই কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে। তারপর আগে কোনো নির্বাচন কমিশনের পক্ষেই সম্ভব নয়। আর বর্তমানে যিনি আছেন তিনি তো একেবারে হাল ছেড়ে দিয়েছেন মনে হয়। তিনি অলরেডি বলেই দিয়েছেন দলীয় সরকারের অধীনে খুব কঠিন হচ্ছে এবং এখানে যদি বিএনপি না আসে বা মূল বিরোধী দল যদি না আসে সেই নির্বাচন অর্থবহ হবে না। সেজন্য নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার এটাই হচ্ছে আমাদের দাবি।

নির্বাচনকালীন সরকারের জন্য সরকারকেই সংসদে আইন আনতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা ১৯৯৬ সালে নতুন সংসদ হওয়ার পরে সারারাত জেগে সংসদ আইন পাস করে পদত্যাগ করেছিলাম। সংসদ বাতিল করা হয়েছিল। সেই নির্বাচনে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ১১৬ টা আসনে বিরোধী দলে বসেছিলো। আমরা মেনে নিয়েছি। দ্যাট ইজ ডেমোক্রেসি। সেখানে আপত্তিটা কোথায় এই সরকারের?

‘ব্যাক ডোরে সংলাপ নেই উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ব্যাক ডোর বলে কোনো কথা নেই। আমাদের যা কিছু সব ফ্রন্ট ডোর। আমরা সবসময় সামনে থেকে প্রকাশ্যে একেবারে জনসভার মধ্য দিয়ে ঘোষণা দিচ্ছি যে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া বা নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া বিএনপিসহ অনেকগুলো রাজনৈতিক দল আছে তারা ইতোমধ্যে বলে দিয়েছে কোনো নির্বাচনে যাবে না। তাহলে কি কোনো সহিংসতায় যাচ্ছে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এটা নির্ভর করবে সরকারের ওপর। এই সরকার এখন ড্রাইভিং সিটে। প্রত্যেকবারই সরকারকেই উদ্যোগ নিতে হয় যেকোনো রাজনৈতিক সংকটের সমাধান কারার জন্য। তারা যদি কনফোনট্রেশন দেখতে না চায়, মারামারি কাটাকাটি দেখতে না চায় তাহলে সরকারকে অবশ্যই পদত্যাগ করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনের ব্যবস্থা করা দরকার।

আন্দোলনে জামায়াত ইসলামী অবস্থান কি হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা সব রাজনৈতিক দলের সাথে কথা বলছি একটা জাতীয় ঐক্য তৈরি করার জন্য। সেখানে এখন পর্যন্ত যতগুলো রাজনৈতিক দলের সাথে কথা বলেছি একটা বিষয় আমরা সবাই একমত হয়েছি যে, আমরা যুগপথ আন্দোলনে যাবো। সুতরাং এখানে এ বিষয়ে কোনো বিভ্রান্তির সুযোগ নেই।

সরকারের পরিবর্তে বিএনপি বিকল্প কিনা প্রশ্ন করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, অবশ্যই। বিএনপি সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল এবং বিএনপি তিনবার রাষ্ট্র পরিচালনা করেছে, আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সরকার পরিচালনা করেছে। তারও আগে বিএনপি দুইবার রাষ্ট্র পরিচালনা করেছে। বিএনপি হচ্ছে একমাত্র বিকল্প যা এই সমস্যার সমাধান করতে পারে।

আগামী নির্বাচনে বিএনপি গেলে তার নেতা কে হবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই দলের নেতৃত্ব তো নির্ধারিত হয়ে আছে। দেশনেত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া-তিনি আমাদের নেত্রী, তার অবর্তমানে আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান আমাদের নেতা। সুতরাং এখানে কোনো অস্পষ্টতা নেই।

যুগপথ আন্দোলন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ১৯৯০ সালে যে আন্দোলন হয়েছিলো -৫ দল, ৭ দল ও ৮ দল। সেখানে যুগপথ আন্দোলন হয়েছিলো। সেই মডেলে সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে কথা বলছি। সবাই যার যার অবস্থান থেকে তারা আন্দোলন শুরু করবে। আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আন্দোলনের ধারাই নিয়ে তারপরে কোনদিকে আন্দোলন যাবে। আমরা যখন জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাস্তায় নামবো, আন্দোলনই বলে দেবে আন্দোলনের ধারা কোন পথে যাবে।

দাবি না মানলে সংলাপও নয় উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, নির্দলীয় সরকারের রুপরেখার প্রশ্ন তখনই আসবে যখন সরকার আমাদের সঙ্গে নিরপেক্ষ সরকারের গঠনের বিষয়ে একমত হবেন, তখনই আসবে। তার আগে না। সরকার যদি বলে যে, নির্বাচনকালীন সরকার, নিরপেক্ষ সরকার, সহায়ক সরকার গঠন করা হবে-আমরা একমত তখন কিভাবে হবে সেটা নিয়ে আমরা চিন্তা করে দেখবো।

তাহলে কী আলোচনা সুযোগ আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, না আলোচনার পথ কোথায়? সরকার যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিষয়ে কথা বলতে চায় তখন আমরা সেটা দেখবো। তার আগে তো না। আগে তাদের (সরকর) তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিষয়ে একমত হতে হবে। তার আগে তো নয়, অন্যবিষয়ে তো নয়।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা সকল গণতান্ত্রিক দেশগুলোর কাছে একটাই প্রত্যাশা করি যে, বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার জন্য সবাই যার যার জায়গা থেকে তারা তাদের ভূমিকা রাখবে। তিনি ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের নিন্দা জানান।

মিট দ্যা প্রেসের অনুষ্ঠানে ওকাবের আহ্বায়ক বিবিসির সংবাদদাতা কাদির কল্লোল ও সদস্য সচিব জার্মান নিউজ এজেন্সি-ডিপিএ‘র সংবাদদাতা নজরুল ইসলাম মিঠুর সঞ্চালনায় এতে ওকাবের সিনিয়র সদস্য ফরিদ আহমেদ মূল মঞ্চে ছিলেন। মিট দ্যা ওকাব অনুষ্ঠান বিএনপির মিডিয়া সেলের জহির উদ্দিন স্বপন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি ও শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন