মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯, ১৫ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ইসলাম

আমল কবুলের কয়েকটি শর্ত-৩

মাওলানা শিব্বীর আহমদ | প্রকাশের সময় : ২৫ নভেম্বর, ২০২২, ১২:৫৭ এএম

একটি আমল বাহ্যত যত সুন্দরই হোক, তা যদি শরীয়ত সমর্থিত না হয়, তবে তা কখনোই আল্লাহর দরবারে গৃহীত হতে পারে না। শরিয়ত পরিপন্থী কোনো আমল যদি চূড়ান্ত ইখলাস ও নিয়তের বিশুদ্ধতার সঙ্গে করা হয়, আল্লাহর কাছে তা গ্রহণযোগ্য নয়। এমন আমল হতে পারে দুই ধরনের। এক. যেখানে সরাসরি শরীয়তের বিরুদ্ধাচরণ করা হয়, স্পষ্ট কোনো পাপ বা নাফরমানিতে যদি কেউ জড়িয়ে পড়ে, এগুলো যে প্রত্যাখ্যাত, এটা নিয়ে কারো কোনো সংশয় থাকার কথা নয়। উদাহরণস্বরূপ এখানে কুফর-শিরকও এ ধরনের পাপের কথা বলা যায়।

দুই. যেখানে মূল কাজটি শরীয়ত সমর্থিত হলেও অবস্থা ও পরিবেশের সঙ্গে মিলে তা শরীয়তের দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ হয়ে পড়ে। যেমন, মৃত কারো স্মরণে মোমবাতি প্রজ্বলন। ঘরের অন্ধকার দূর করার জন্যে যে কেউ মোমবাতি জ্বালাতেই পারে। মোমবাতি জ্বালানো কোনো দূষণীয় কাজ নয়। কিন্তু অন্ধকার দূর করার পরিবর্তে মোমবাতি জ্বালিয়ে যখন মৃত কাউকে স্মরণ করার রেওয়াজ পালিত হয় তখন তা অবশ্যই পরিত্যাজ্য। যেসব রেওয়াজের শরয়ী ভিত্তি নেই, সেসব ক্ষেত্রে একই কথা।

আবার শরীয়তের কোনো নির্দেশনা ও ভিত্তি ছাড়াই যদি কেউ কোনো কাজকে সওয়াবের কাজ মনে করে এবং তা পালন করে, তবে তাও পরিত্যাজ্য। এমনকি একটি বৈধ কাজকে যখন কোনোরূপ দলিল-প্রমাণ ছাড়াই বিশেষ আমল হিসেবে উপস্থাপন করা হয় তখন এ ভিত্তিহীনতার কারণে সে বৈধ কাজটিও অবৈধ হয়ে যায়। মৃতব্যক্তির জন্যে ইসালে সওয়াব একটি প্রমাণিত বিষয়।

এটি কেবল বৈধই নয়, শরীয়তের দৃষ্টিতে তা কাক্সিক্ষতও। কিন্তু এ ইসালে সওয়াবের জন্যে যখন কোনো দিনক্ষণ নির্ধারিত করে নেয়া হয়, শরীয়তের নির্দেশনা অগ্রাহ্য করে কোরআন খতম আর দুআ-দরূদের আয়োজন করা হয়, ‘মেজবানি’র আয়োজন করা হয়, এগুলো তখন আর বৈধ থাকে না। এসব কাজকে আমরা বিদআত বলে থাকি। রাসূলে কারীম (সা.) বলেছেন, যে কেউ আমাদের দ্বীনে এমন কিছু যোগ করে, যা এতে ছিল না, সেসবই প্রত্যাখ্যাত। (সহীহ বুখারী : ২৬৯৭)।

মোটকথা, যেকোনো আমল আল্লাহ পাকের দরবারে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে চাইলে এ তিনটি বিষয় অপরিহার্য, নিয়তের বিশুদ্ধতা, আমলের বিশুদ্ধতা এবং কর্মপদ্ধতির বিশুদ্ধতা। পার্থিব দৃষ্টিকোণ থেকেও কোনো কাজের গ্রহণযোগ্যতার জন্যে সে কাজের শুদ্ধতা এবং এর শুদ্ধ কর্মপদ্ধতি অনিবার্য। এর কোনো একটি ছুটে গেলে কাক্সিক্ষত ফল হাসিল করা যায় না। আর আল্লাহ তা’আলা যেহেতু অন্তর্যামী, তিনি আমাদের মনের কোণে লুকায়িত ভাবনাটুকুও জানেন, সঙ্গত কারণেই তাঁর দরবারে গৃহীত হওয়ার জন্যে নিয়তের শুদ্ধতা অনিবার্য।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন