বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০৯ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইউক্রেনের প্রতি সমর্থন কমছে ইউরোপীয়দের

পুতিনের সাথে কথা বলতে প্রস্তুত বাইডেন পশ্চিমা সমর্থনে আলোচনা প্রত্যাখ্যান করছে কিয়েভ, জার্মান চ্যান্সেলরকে পুতিন ষ কিয়েভের বেশিরভাগ লক্ষ্য তার পশ্চিমা প্রভুদের দ্বারা নির্ধারিত :

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

ইউরোপীয়রা ইউক্রেনকে আর অস্ত্র সরবরাহে সমর্থন দিতে আগ্রহী নয়। ২৭টি ইউরোপীয় দেশের ১৩ হাজার নাগরিকদের মধ্যে বার্টেলসম্যান ফাউন্ডেশনের করা একটি মতামত জরিপ থেকে এ তথ্য জানা গিয়েছে। ‘অধিকাংশ ইউরোপীয়রা এখনও ইউক্রেনের ইইউতে যোগদানের পক্ষে। শরণার্থী গ্রহণের জন্য তাদের প্রস্তুতি অনেক বেশি। তবে, সমস্ত ইইউ দেশে অস্ত্র সরবরাহের অনুমোদনকারী লোকের সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে,’ সমীক্ষার লেখকরা বলেছেন।
জরিপকৃত জার্মান নাগরিকদের প্রায় ৫৭ শতাংশ মার্চ মাসে ইউক্রেনে সামরিক সহায়তা সমর্থন করেছিল। সেপ্টেম্বরে যখন জনমত জরিপ করা হয়েছিল, তখন এই সংখ্যাটি ৪৮ শতাংশে নেমে আসে। ফ্রান্সে, এ সংখ্যা ছিল মার্চে ৬৭ শতাংশ এবং সেপ্টেম্বরে ৫৪ শতাংশ, যখন স্পেনে অনুমোদনের হার ৬৬ শতাংশ থেকে ৫৭ শতাংশে নেমে গেছে।

পোল্যান্ড ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহের জন্য সর্বোচ্চ স্তরের সমর্থন দেখায় (৭৬ শতাংশ), যেখানে ইতালীয়রা সবচেয়ে কম উৎসাহী (৩৬ শতাংশ)। সামগ্রিকভাবে, অর্ধেক ইউরোপীয়রা সামরিক সহায়তাকে প্রয়োজনীয় বলে মনে করে, যা মার্চের তুলনায় ছয় শতাংশ পয়েন্ট কম। মার্চ মাসে ইউরোপীয়দের মধ্যে ৭৪ শতাংশ মানুষ ব্যায়বৃদ্ধি সত্ত্বেও রাশিয়া থেকে জ্বালানি কেনার বিপক্ষে কথা বলেছেন। তবে সেপ্টেম্বর সেই সংখ্যা কমে ৬৭ শতাংশে নেমে এসেছে।

পুতিনের সাথে কথা বলতে প্রস্তুত বাইডেন : মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, তিনি রাশিয়ার নেতা ভøাদিমির পুতিনের সাথে ইউক্রেনে সামরিক কার্যক্রম শেষ করার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করতে প্রস্তুত, তবে পুতিনের সাথে যোগাযোগ করার এখনই কোনো তার পরিকল্পনা নেই।
বৃহস্পতিবার ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁর সাথে একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বাইডেন বলেন, ‘বাস্তবতা এবং ব্যাপারটি হল পুতিনের সাথে যোগাযোগ করার আমার অবিলম্বে কোন পরিকল্পনা নেই। আমি পুতিনের সাথে কথা বলতে প্রস্তুত যদি বাস্তবে তার সিদ্ধান্ত নেয়ার আগ্রহ থাকে যে তিনি যুদ্ধ শেষ করার উপায় খুঁজছেন। তিনি এখনও তা করেননি।’ তিনি আরও বলেন, ‘যদি তা-ই হয়, তাহলে আমার ফরাসি এবং আমার ন্যাটো বন্ধুদের সঙ্গে পরামর্শ করে পুতিনের সঙ্গে বসে তার মনে কী আছে, সেটা দেখতে পেরে খুশি হব।’ বাইডেন বলেন, এই যুদ্ধ শেষ করার একটা উপায় আছে। সেটা বেশ যুক্তিসঙ্গত উপায়; আর তা হচ্ছে- পুতিন ইউক্রেন থেকে বের হয়ে যাবেন। কিন্তু মনে হচ্ছে না তিনি সেটি করবেন। ‘এরই মধ্যে, আমি মনে করি ইমানুয়েল (ম্যাখোঁ) যা বলেছেন তা একেবারেই সমালোচনামূলক: আমাদের অবশ্যই ইউক্রেনের জনগণকে সমর্থন করতে হবে,’ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জোর দিয়েছিলেন।

পরিবর্তে, ম্যাখোঁ বলেছিলেন যে, তিনি ইউক্রেনের সংঘাত সমাধানের জন্য রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের সাথে আলোচনা চালিয়ে যেতে চান। ‘আমি প্রেসিডেন্ট পুতিনের সাথে কথা চালিয়ে যাব কারণ আমি একটি বৃদ্ধি রোধ করার এবং নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টা করছি, বিশেষত সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিরাপত্তার বিষয়ে, যেমন জাপোরোজিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র,’ ম্যাখোঁ উল্লেখ করেছেন। ‘সংলাপ বজায় রাখার প্রয়োজন আছে এবং আমরা তা করব,’ ফরাসি প্রেসিডেন্ট জোর দিয়ে বলেছিলেন।

পশ্চিমা সমর্থনে আলোচনা প্রত্যাখ্যান করছে কিয়েভ : ক্রেমলিন প্রেস সার্ভিস অনুসারে, গতকাল জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজের সাথে একটি ফোন কলে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন অস্ত্র দিয়ে ইউক্রেনকে সহায়তা করার একটি ধ্বংসাত্মক নীতির দিকে ইঙ্গিত করেছেন। ক্রেমলিন প্রেস সার্ভিস এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘জার্মানী সহ পশ্চিমা দেশগুলো যে কিয়েভ সরকারকে অস্ত্র দিয়ে প্লাবিত করছে এবং ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে, সেই ধ্বংসাত্মক নীতির প্রতি মনোযোগ আকর্ষণ করা হয়েছিল।’
ক্রেমলিনের মতে, ‘এ সবের ফলস্বরূপ, সেইসাথে ইউক্রেনের জন্য ব্যাপক আর্থিক সহায়তার জন্য, কিয়েভ আলোচনার ধারণাটিকে সরাসরি প্রত্যাখ্যান করে চলেছে। এছাড়া, এটি উগ্র ইউক্রেনীয় জাতীয়তাবাদীদের বেসামরিকদের বিরুদ্ধে আরও জঘন্য অপরাধ করতে উৎসাহিত করে,’ বিবৃতিতে যোগ করা হয়েছে। বিবৃতিতে জোর দিয়ে বলা হয়েছে, ‘রুশ প্রেসিডেন্ট জার্মানিকে ইউক্রেনের উন্নয়নের বিষয়ে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি পুনর্বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছেন।’ রাশিয়া ও জার্মানির নেতারা ইউক্রেনকে ঘিরে পরিস্থিতির বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেছেন। ‘পুতিন আবারও রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযান পরিচালনার পদ্ধতির বিশদ ব্যাখ্যা করেছেন,’ ক্রেমলিন প্রেস সার্ভিস উল্লেখ করেছে। কথোপকথনের সূচনা করেছিল জার্মানি। পুতিন এবং শোলৎজ সর্বশেষ ১৩ সেপ্টেম্বর একটি ফোন কলে কথা বলেছিলেন।

কিয়েভের বেশিরভাগ লক্ষ্য তার পশ্চিমা প্রভুদের দ্বারা নির্ধারিত : ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী যে লক্ষ্যবস্তুগুলি আক্রমণ করার জন্য বেছে নেয় তার বেশিরভাগই কিয়েভ সরকারের পশ্চিমা প্রভুদের দ্বারা নির্ধারিত হয়, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ ইউরোপীয় নিরাপত্তা বিষয়ক একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন।
‘ইউক্রেনীয় নাৎসি ব্যাটালিয়ন (ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনী) দ্বারা আঘাত করা লক্ষ্যগুলির বেশিরভাগই সেই কিয়েভ সরকারের পশ্চিমা প্রভুদের দ্বারা নির্ধারিত হয়,’ তিনি বলেছিলেন। ‘(প্রতিবেদকদের) এই বিষয়ে সততার সাথে লিখতে হবে। এর জন্য যথেষ্ট তথ্য রয়েছে,’ ল্যাভরভ জোর দিয়ে বলেছিলেন। শীর্ষ কূটনীতিকের মতে, রাশিয়া ইউক্রেনের সামরিক অভিযানকে সমর্থন করে এমন অবকাঠামো সুবিধাগুলিতে আঘাত করার জন্য উচ্চ-নির্ভুল অস্ত্র ব্যবহার করছে। তিনি জোর দিয়েছিলেন যে, গণমাধ্যমকে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযানের পদ্ধতি এবং যুগোসøাভিয়া, ইরাক এবং আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্র যা করেছে তার মধ্যে পার্থক্য দেখানো উচিত। ল্যাভরভ উল্লেখ করেছেন যে তখন, সমস্ত সামরিক লক্ষ্যবস্তু ফুরিয়ে গেলে বেসামরিক বস্তুর বিরুদ্ধে হামলা চালানো হয়েছিল।

তুরস্কে ‘গোপনীয়’ বৈঠকের তথ্য ফাঁসের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেছে রাশিয়া : সিআইএ পরিচালক উইলিয়াম বার্নস এবং রাশিয়ান বৈদেশিক গোয়েন্দা পরিষেবা পরিচালক সের্গেই নারিশকিনের মধ্যে যোগাযোগে বিষয়টি গোপন রাখার উপর জোর দিয়েছিল ওয়াশিংটন, কিন্তু আমেরিকান প্রতিনিধি দল আঙ্কারায় পৌঁছানোর সাথে সাথেই তথ্য ফাঁস হয়ে যায়, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ ইউরোপীয় নিরাপত্তা ইস্যুতে একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন।

‘আমেরিকানরা নিজেরাই আমাদের দশবার বলেছিল: এটি একটি সম্পূর্ণ গোপনীয় চ্যানেল হওয়া উচিত, আমাদের এটি ঘোষণা করা উচিত নয় যাতে কেউ কিছু না জানে, এটি গুরুতর হওয়া উচিত, এটি, এ চ্যানেলটি কোনও বিদেশী প্রচারের বিষয় না হওয়া উচিত ইত্যাদি। আমরা সম্মত হয়েছিলাম। কিন্তু তারা আঙ্কারায় পৌঁছানোর সাথে সাথেই এটি ফাঁস হয়ে যায়, আমি জানি না কোথা থেকে, হোয়াইট হাউস বা স্টেট ডিপার্টমেন্ট, তবে এটি ফাঁস হয়েছে,’ রাশিয়ার শীর্ষ কূটনীতিক জোর দিয়েছিলেন। ল্যাভরভ উল্লেখ করেছেন যে, এর পরে, রাশিয়ান বৈদেশিক গোয়েন্দা পরিষেবার পরিচালক সের্গেই নারিশকিনকে জনসমক্ষে বৈঠকে আলোচনা করতে হয়েছিল এবং পারমাণবিক নিরাপত্তা, কৌশলগত স্থিতিশীলতা এবং ইউক্রেনের পরিস্থিতি সহ স্পর্শ করা বিষয়গুলির তালিকা করতে হয়েছিল। ল্যাভরভের মতে, আমেরিকান পক্ষের উদ্যোগে গোয়েন্দা প্রধানদের মধ্যে আলোচনার আয়োজন করা হয়েছিল।

ডোনেৎস্কের আরেকটি শহর মুক্ত করার ঘোষণা রাশিয়ার : রুশ সেনারা ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) এর কুর্দিউমোভকা শহর পুরোপুরি মুক্ত করেছে। বৃহস্পতিবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘রাশিয়ান বাহিনীর দ্বারা পরিচালিত আক্রমণাত্মক অভিযানের ফলস্বরূপ, ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের কুর্দিউমোভকা বসতি সম্পূর্ণরূপে মুক্ত করা হয়েছে।’ রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এর আগে ডিপিআর-এর আন্দ্রেয়েভকা, বেলোগোরোভকা এবং পার্শে ত্রাভন্যাকে মুক্ত করার ঘোষণা করেছিল।
ডনবাসে সংঘর্ষে একদিনে ইউক্রেনের ১২০ সেনা নিহত : বৃহস্পতিবার মিত্র বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে ডনবাস এলাকায় অন্তত ১২০ জন ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে। গতকাল এলপিআর ও ডিপিআর এর পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এলপিআর পিপলস মিলিশিয়ার মুখপাত্র ইভান ফিলিপোনেঙ্কো জানিয়েছেন, গত দিনে লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী ৭০ জনেরও বেশি হতাহতের শিকার হয়েছে। ‘গত ২৪ ঘন্টায়, এলপিআর পিপলস মিলিশিয়া বাহিনীর সক্রিয় আক্রমণাত্মক অভিযানের ফলে শত্রুর জনশক্তি এবং সামরিক সরঞ্জামের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তাদের ৭৫ জনের মতো সেনা নিহত হয়েছে,’ মুখপাত্রের বরাত দিয়ে এলপিআর পিপলস মিলিশিয়ার প্রেস অফিস জানিয়েছে।

গত দিনে, এলপিআর মিলিশিয়া বাহিনী একটি ইউক্রেনীয় ট্যাঙ্ক, দুটি মনুষ্যবিহীন বিমান যান এবং তিনটি সাঁজোয়া কর্মী বাহকও ধ্বংস করেছে, তিনি বলেছিলেন। গত ২৪-ঘন্টার সময়কালে, এলপিআর ফিল্ড ইঞ্জিনিয়াররা প্রজাতন্ত্রের পোপাসনিয়ানস্কি জেলার কামিশেভাখা এবং ক্যাটেরিনোভকার বসতিগুলির এলাকায় ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর দ্বারা রোপণ করা বিস্ফোরকগুলি সরিয়ে পাঁচ হেক্টরেরও বেশি এলাকা ডি-মাইন করেছে, মুখপাত্র বলেছেন।

এদিকে, শুক্রবার ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়ার প্রেস অফিস জানিয়েছে, গত দিনে ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর) বাহিনীর সাথে যুদ্ধে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী ৫০ জনেরও বেশি হতাহত হয়েছে। প্রেস অফিস তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘শত্রুর জনশক্তির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৫০ জনেরও বেশি।’
এছাড়াও, ডিপিআর মিলিশিয়া যোদ্ধারা রাশিয়ান সেনাবাহিনীর সাথে যৌথভাবে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর একটি স্ব-চালিত আর্টিলারি বন্দুক, তিনটি হাউইটজার কামান, চারটি ট্যাঙ্ক এবং ১০টি সাঁজোয়া যান ও মোটর গাড়ি ধ্বংস করেছে। তারা গত ২৪ ঘন্টায় শত্রুর সাতটি মনুষ্যবিহীন আকাশযানকে ও গুলি করে ধ্বংস করেছে, প্রেস অফিস জানিয়েছে।

যুদ্ধের ময়দান ছেড়ে পালানো ইউক্রেনীয় সেনার সংখ্যা বাড়ছে : রাশিয়ার সাথে সংঘর্ষে গত নয় মাসে ইউক্রেনের ক্ষয়ক্ষতির তথ্য প্রকাশ করে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন একটি বিবৃতি দেয়ার পরে ইউক্রেনীয় সার্ভিস সদস্যরা তাদের অবস্থান পরিত্যাগ করে পালিয়ে যাচ্ছে। গোয়েন্দা তথ্যের বরাত দিয়ে শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছেন লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের (এলপিআর) একজন কর্মকর্তা আন্দ্রে মারোচকো।
তার মতে, বিশেষ সামরিক অভিযানের সময় ইউক্রেনের ক্ষয়ক্ষতির কেলেঙ্কারি যা ভন ডার লিয়েনের মন্তব্য দ্বারা উস্কে দেয়া হয়েছিল তা ইউক্রেনীয় সেনাদের মনোবলকে খুব নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করেছিল। ‘এখানে ক্রমবর্ধমানভাবে আরও বেশি নাশকতাকারী এবং সেনারা তাদের অবস্থান ছেড়ে চলে যাচ্ছে (বিশেষ অপারেশন জোনে), সেইসাথে কমান্ডারদের সাথে তাদের মত-পার্থক্য বাড়চে ও শৃঙ্খলা নষ্ট হচ্ছে। মাদক ও অ্যালকোহল গ্রহণের ঘটনাও বেড়েছে। এছাড়া, সামাজিক উত্তেজনা তীব্রভাবে বেড়েছে ইউক্রেনে,’ মারোচকো বলেছেন, ইউক্রেনের চাকরিজীবীদের পরিবার গ্রেপ্তারের ঝুঁকিকে অস্বীকার করে তাদের শহরে সামরিক কমিশনারে ভিড় জমাচ্ছে।

ভন ডার লিয়েন গত বুধবার সকালে একটি ভিডিও ভাষণে বলেছিলেন যে, ‘যুদ্ধে ১ লাখেরও বেশি ইউক্রেনীয় সামরিক কর্মকর্তা নিহত হয়েছে।’ কিছুক্ষণ পরে, মন্তব্যটি তার ভিডিও বার্তা থেকে মুছে ফেলা হয়েছিল, এবং ভিডিওটি টুইটার থেকে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শীঘ্রই নতুন করে পোস্ট করা হয়েছিল, যেখানে কিয়েভের সামরিক ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে তার কোন মন্তব্য রাখা হয়নি। সূত্র : তাস, নিউ ইয়র্ক টাইমস, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
Esmail Asahaak ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ৪:১১ এএম says : 0
ইরাক ইয়ামেন সিরিয়া লিবিয়া ফিলিস্তিন আফগানিস্তানের মানুষের পালানোর জায়গা ছিল না, আমেরিকা ন্যাটোর নির্মম নির্যাতন শিকার হয়েছিল তারা। পশ্চিমাদের মানবতা মুসলিমদের জন্য এক রকম আর অমুসলিমদের জন্য এক রকম, পশ্চিমাদের মানবতা সবার জন্য সমান নয়। মানবতা হোক সর্বজনীন পৃথিবী হোক মানুষের। পৃথিবী মুক্তি পাক অস্ত্র ব্যবসায়ী পুঁজিবাদীদের হাত থেকে।
Total Reply(0)
Gabriel Gomes ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ৪:১২ এএম says : 0
বড় পরিবর্তনের শুরু। পশ্চিম থেকে পূর্বে ক্ষমতার স্থানান্তর। পশ্চিমের আধিপত্যে ফাটলের চিহ্ন।
Total Reply(0)
Moniruzzaman Nayem ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ৪:১২ এএম says : 0
নিজের কিছু নাই। হুদাই USA এর কথাই যুদ্ধে গেছে কেন? এমন সরকার প্রধান ক্ষতায় থাকলে সেই দেশের জন্য বহিঃশত্রুর দরকার নাই।
Total Reply(0)
Md Bashar ৩ ডিসেম্বর, ২০২২, ৪:১৩ এএম says : 0
যেভাবে আমেরিকা ইউরোপ নিজেদেরকে মূল্যায়ন করে সেভাবে জেলেনস্কি যদি নিজেকে মূল্যায়ন করতে পারতো তাহলে ইউক্রেন এই বিপর্যয়ে পড়তো না।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন