মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ২৬ চৈত্র ১৪৩০, ২৯ রমজান ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

আক্রমণের তীব্রতা বাড়িয়েছে রাশিয়া

বাখমুত ছেড়ে পালাচ্ছে ইউক্রেনীয়রা বাখমুত, উগলেদারের পতন ইউক্রেনের জন্য বড় ক্ষতি হবে সোলেডারে অসংখ্য লাশ রেখে গেছে ইউক্রেনীয় সেনা কিয়েভকে এবার দীর্ঘ পাল্লার রকেট দিতে যাচ্ছে যুক্তরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১২:০০ এএম

যেহেতু পশ্চিমা মিত্ররা ইউক্রেনকে অধিকৃত অঞ্চল পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করার জন্য ভারী অস্ত্রশস্ত্র দেয়ার কথা ঘোষণা করছে, সে কারণে মস্কোর বাহিনী পূর্ব ফ্রন্টে আক্রমণ জোরদার করছে যা ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি একটি নতুন রুশ আক্রমণের শুরুর পদক্ষেপ হিসাবে বর্ণনা করেছেন। উভয় পক্ষই কয়েক মাস ধরে ভারী স্থল যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে, মস্কো পূর্ব ইউক্রেনের সমগ্র ডনবাস অঞ্চল দখলের লক্ষ্য নিয়ে অভিযান চালাচ্ছে।

রাশিয়া গত সেপ্টেম্বরের পর থেকে রেকর্ড হারে আর্টিলারি দিয়ে হামলা চালাচ্ছে এবং ডনবাসে ফ্রন্ট লাইনের ১৪০ মাইল প্রসারিত এলাকায় ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা ভেঙে দেয়ার জন্য কয়েক হাজার নতুন সৈন্য প্রেরণ করেছে বলে জেলেনস্কি দাবি করেছেন। ‘রাশিয়া সত্যিই কিছু বড় প্রতিশোধ নিতে চায়,’ তিনি এ সপ্তাহে বলেছিলেন, ‘আমি মনে করি এটি শুরু হয়েছে।’ গত মাসে ক্রেমলিন জেনারেল ভ্যালেরি ভি. গেরাসিমভকে ইউক্রেন অভিযানের দায়িত্ব দেয়ার পর থেকে, রাশিয়া ক্রমাগতভাবে ডনবাসে সেনরা সংখ্যা বাড়িয়েছে, ইউক্রেনের সামরিক কর্মকর্তারা বলছেন। ইউক্রেনীয় গোয়েন্দারা অনুমান করে যে, রাশিয়ার এখন ইউক্রেনে ৩ লাখ ২০ হাজার সৈন্য রয়েছে – যা মস্কোর প্রাথমিক আক্রমণকারী বাহিনীর আকারের প্রায় দ্বিগুণ। পশ্চিমা কর্মকর্তারা এবং সামরিক বিশ্লেষকরা বলেছেন যে, মস্কোর আরও দেড় থেকে আড়াই লাখ সৈন্য রিজার্ভ রয়েছে, যারা যে কোনও সময় যুদ্ধে যোগ দিতে পারে।

সোমবার দক্ষিণ কোরিয়া সফরকালে ন্যাটোর মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, তারা আরও যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে, তারা আরও সৈন্য, ২ লাখের বেশি এবং সম্ভাব্য তার চেয়েও বেশি সৈন্য সংগ্রহ করছে। তারা সক্রিয়ভাবে নতুন অস্ত্র, আরও গোলাবারুদ অর্জন করছে, তাদের নিজস্ব উৎপাদন বাড়াচ্ছে, পাশাপাশি ইরান এবং উত্তর কোরিয়ার মতো অন্যান্য কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্র থেকে আরও অস্ত্র অর্জন করছে।’ ক্রেমলিন শেষ পর্যন্ত তার হাজার হাজার নতুন যোদ্ধা কীভাবে মোতায়েন করবে তাও একটি জল্পনা-কল্পনার বিষয়। ইউক্রেনীয় কর্মকর্তা ও সামরিক বিশ্লেষকদের মতে, উত্তর-পূর্ব ইউক্রেনের সুমি বা খারকিভের অঞ্চল পুনরুদ্ধারের জন্য রাশিয়ার সীমান্ত পেরিয়ে মস্কো একটি নতুন ফ্রন্ট খোলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। তারা ইউক্রেনীয় সংস্থানগুলিকে সরিয়ে দেয়ার জন্য এবং কিয়েভের নিজস্ব আক্রমণ চালানোর ক্ষমতাকে ক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য পূর্ব ফ্রন্ট বরাবর লড়াইকে বাড়িয়ে তুলতে পারে। তারা পূর্ব ইউক্রেনের দখলকৃত অঞ্চল থেকে লুহানস্ক এবং ডোনেৎস্ক অঞ্চলের গভীরে ধাক্কা দেয়ার পরিকল্পনা করতে পারে, যা ডনবাস তৈরি করে।

ঐকমত্যের একমাত্র বিষয় হল রাশিয়া যে, অঞ্চল নিয়েছে তাতে সন্তুষ্ট নয় এবং ইউক্রেনকে পরাধীন করার চ‚ড়ান্ত লক্ষ্য বজায় রাখছে। তীব্র আক্রমণ প্রায় এক বছর ধরে রাশিয়ার প্যাটার্ন অব্যাহত রেখেছে: নিরলস আক্রমণের মাধ্যমে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর রক্তপাত করা। ইউক্রেনের ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যান্ড ডিফেন্স কাউন্সিলের প্রধান ওলেক্সি ড্যানিলভ মঙ্গলবার স্কাই নিউজকে বলেছেন যে, ‘মূল লড়াই এখনও শুরু হয়নি।’

বাখমুত ছেড়ে পালাচ্ছে ইউক্রেনীয়রা : পূর্ব ইউক্রেনের বাখমুতের ফ্রন্ট লাইন (সংঘর্ষ রেখা) বরাবর, একটানা আর্টিলারি হামলা চলছে। ট্যাঙ্ক, সাঁজোয়া কর্মী বাহক এবং গোলাবারুদ ভরা বিশাল ট্রাক ছাড়া ইউক্রেনীয়-নিয়ন্ত্রিত এলাকার রাস্তাগুলো বেশিরভাগই খালি। যে কয়েকটি গ্যাস স্টেশন এখনও কাজ করছে সেখানে সৈন্যরা যুদ্ধে ফিরে যাওয়ার আগে গরম কফি খেতে ভিড় করছে।

ফ্রন্ট লাইনের কাছাকাছি হাসপাতালগুলোও ব্যস্ত। সেখানে আহত ইউক্রেনীয় সেনাদের নিয়ে একের পর এক অ্যাম্বুলেন্স যাওয়া আসা করছে। বিভিন্ন পর্যায়ে আহত সৈন্যদের দিয়ে হাসপাতালের করিডোর পূর্ণ। মস্কো যখন পুরো ডনবাস অঞ্চল দখলের জন্য তার অভিযান জোরদার করছে, তখন ভয়ঙ্কর যুদ্ধ হচ্ছে অসহায় পূর্বাঞ্চলীয় শহর বাখমুতের চারপাশে কেন্দ্রীভ‚ত, যেখানে রাশিয়ান বাহিনী ধীরে ধীরে গুরুত্বপূর্ণ সরবরাহ লাইন বন্ধ করে দিচ্ছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ক্রমবর্ধমান পরিস্থিতিকে মস্কো নতুন আক্রমণের প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে বলে বর্ণনা করেছেন। মঙ্গলবার, রাশিয়ান বাহিনী স্বল্প-পাল্লার আর্টিলারি দিয়ে ইউক্রেনের অবস্থানগুলিতে ১৯৭ বার আঘাত করেছিল এবং দুই পক্ষের মধ্যে প্রায় ৪২ বার সংঘর্ষ হয়েছিল, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে।
‘তারা শুধু এগিয়ে আসছে; তারা কভার নেয় না, তারা সর্বাত্মকভাবে আসছে,’ ডেনিস ইয়ারোসøাভস্কি, যিনি বর্তমানে বাখমুতে একটি ইউনিটের নেতৃত্ব দিচ্ছেন, এই সপ্তাহে ইউক্রেনীয় টেলিভিশনে বলেছেন। তিনি বলেছিলেন যে, রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সৈন্যরা এখন ওয়াগনার প্রাইভেট মিলিটারি কোম্পানির যোদ্ধাদের সহায়তা করছে, যারা যুদ্ধে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে।

প্রায় এক বছর আগে রাশিয়া ইউক্রেনে তার পূর্ণ মাত্রায় অভিযান শুরু করার আগে, বাখমুতের জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৭০ হাজার। কিন্তু যারা বিধ্বস্ত শহরে বসবাস করেন তাদের বেশিরভাগই অনেক আগেই পালিয়ে গিয়েছিলেন এবং মঙ্গলবার রাতে মেয়র ওলেক্সি রেভা জানিয়েছেন, শহরে মাত্র ৬,৫০০ বেসামরিক নাগরিক রয়ে গেছেন।

বাখমুত, উগলেদারের পতন ইউক্রেনের জন্য বড় ক্ষতি হবে : রাশিয়া আর্টিওমভস্ক (ইউক্রেনের বাখমুত নামে পরিচিত) এবং উগলেদার শহরে মুক্ত করলে তা ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর জন্য একটি গুরুতর ক্ষতি হবে এবং রাশিয়ান বাহিনীর জন্য বিভিন্ন দিকে অভিযান চালনা করার দরজা খুলে দেবে, ডোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের (ডিপিআর) ভারপ্রাপ্ত প্রধান ডেনিস পুশিলিন মঙ্গলবার বলেছেন।

‘আর্টিওমভস্কের মুক্তির পর, ক্রামতোর্স্ক এবং সøাভিয়ানস্কের দিকে অভিযানের পথ উন্মোচিত হবে। এবং স্বাভাবিকভাবেই এটি তাদের অবস্থান ধরে রাখার ক্ষেত্রে শত্রæদের জন্য একটি গুরুতর ক্ষতি হবে। উগলেদার হারানোর ক্ষতিও তাদের জন্য কম গুরুতর হবে না। কারণ এটি কুরাখোভো, মেরিঙ্কা এবং ক্রাসনোয়ারমিস্কে অগ্রসর হওয়ার পথ খুলে দেবে,’ তিনি কমসোমলস্কায়া প্রাভদা রেডিও স্টেশনের সাথে একটি সাক্ষাতকারে বলেছিলেন।

তিনি আভদেয়েভকা শহরের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার গুরুত্বও ব্যাখ্যা করেছিলেন। ‘আভদেয়েভকার জন্য, তারা পুরোপুরি বোঝে যে তারা ডোনেৎস্কের কিয়েভস্কি এবং কুইবিশেভস্কি জেলা, ইয়াসিনভাটায়ায় আমাদের বসতিগুলিকে হামলা করার সুযোগ হারাবে। তারা প্রতিরোধ করবে এবং আমরা এটি দেখতে পাচ্ছি কারণ শত্রæ যখন লোকবলের ক্ষতির কথা চিন্তা করে না, তখন সবকিছু এটা পরিষ্কার। সামনে এগোনো ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই,’ তিনি উল্লেখ করেন।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে আর্টিওমভস্কের নিয়ন্ত্রণের জন্য রুশ বাহিনী লড়াই করছে। শহরের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার ফলে রাশিয়ান বাহিনীর পক্ষে ডিপিআর-এর উত্তরাঞ্চলের দিকে আক্রমণ চালানো সম্ভব হবে, পুশিলিন আগে বলেছিলেন, উগলেদার একটি প্রধান লজিস্টিক হাব যা মেরিঙ্কা দিক বরাবর ইউক্রেনীয় ইউনিটগুলির জন্য রনদ সরবরাহ করে এবং যেখান থেকে ডোনেৎস্কে গোলাবর্ষণ করা হয়।

সোলেডারে অসংখ্য লাশ রেখে গেছে ইউক্রেনীয় সেনা : ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনী সোলেডার থেকে পশ্চাদপসরণ করার সময় তাদের বিপুল সংখ্যক সহকর্মীর লাশ ফেলে রেখে গেছে, লুহানস্ক পিপলস মিলিশিয়ার কর্নেল ও সামরিক বিশেষজ্ঞ ভিটালি কিসিলিভ বলেছেন। ‘সোলেডারে প্রচুর সংখ্যক লাশ ফেলে রাখা হয়েছিল। ইউক্রেনীয়রা তাদের প্রাক্তন ভাইদের অস্ত্র হাতে নেয়নি,’ তিনি বলেছিলেন। শীঘ্রই লাশগুলো ইউক্রেনের কাছে হস্তান্তর করা হতে পারে বলে ধারণা করছেন ওই কর্মকর্তা।

১৯ জানুয়ারী কিসিলিভ বলেন যে, ইউক্রেনীয় বাহিনী আর্টিওমভস্ক (বাখমুত) এবং সোলেডারের প্রতিরক্ষায় ১৪ ব্রিগেড সেনা নিযুক্ত করেছিল, যার প্রায় ৬০-৭০ শতাংশ সদস্য রাশিয়ান বাহিনীর সাথে লড়াইয়ে নিহত হয়েছে। ১২ জানুয়ারী, সোলেডার ইউক্রেনীয় বাহিনীর কাছ থেকে মুক্ত হয়েছিল। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মেজর জেনারেল ইগর কোনাশেনকভের মতে, এ শহরের উপর সম্প‚র্ণ নিয়ন্ত্রণ আর্টিওমভস্কে ইউক্রেনীয় বাহিনীর সরবরাহ লাইন কাটা, সেখানে থাকা বাহিনীকে অবরুদ্ধ ও ঘেরাও করা সম্ভব করে।

কিয়েভকে এবার দীর্ঘ পাল্লার রকেট দিতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কিয়েভ সরকারকে ২২০ কোটি ডলার মূল্যের আরেকটি সামরিক সহায়তা প্যাকেজ প্রস্তুত করছে। গতকাল বার্তা সংস্থা রয়টার্স নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুই মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, নতুন এ প্যাকেজে প্রথমবারের মতো দীর্ঘ পাল্লার রকেট অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ওই রকেটগুলোর ধরন নির্দিষ্ট করা হয়নি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডেলিভারিতে অন্যান্য গোলাবারুদ ও অস্ত্রও থাকবে।

সামরিক অভিযানে কোন প্রভাব ফেলবে না মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র : ইউক্রেনে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের সম্ভাব্য সরবরাহ সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলছে এবং জল্পনার তীব্রতা ক্রমবর্ধমান হারে বাড়াচ্ছে, কিন্তু এ সব বিশেষ সামরিক অভিযানের গতিপথ পরিবর্তন করবে না। এটি অব্যাহত থাকবে, বুধবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

‘হ্যাঁ, এটি উত্তেজনা বাড়ানোর এবং সংঘর্ষের মাত্রা বাড়ানোর একটি সরাসরি উপায়। আমরা এটি দেখতে পাচ্ছি। এর জন্য আমাদের অতিরিক্ত প্রচেষ্টা চালানো প্রয়োজন। তবে আমি আবারও বলি: এটি ঘটনার গতিপথ পরিবর্তন করবে না। বিশেষ সামরিক অভিযান অব্যাহত থাকবে,’ তিনি জোর দিয়েছিলেন। ক্রেমলিনের মুখপাত্র উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়ার জন্য এখন মূল কাজটি হচ্ছে বিশেষ সামরিক অভিযান চালিয়ে যাওয়া এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে, ‘রাষ্ট্রপ্রধান কর্তৃক প্রণয়নকৃত কাজগুলি পূরণ করা।’

মস্কো কিয়েভের সাথে নয়, ইউক্রেনের পরিস্থিতির পটভ‚মিতে ওয়াশিংটনের সাথে সর্বোচ্চ পর্যায়ে আলোচনার সম্ভাবনা বিবেচনা করছে কিনা জানতে চাইলে পেসকভ বলেন, ‘আপাতত, পুতিন এবং বাইডেনের মধ্যে আলোচনার কোন পরিকল্পনা নেই।’ মঙ্গলবার দুই বেনামী মার্কিন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনকে ২২০ কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা প্যাকেজ প্রসারিত করার প্রস্তুতি নিচ্ছে যাতে প্রথমবারের মতো দীর্ঘ পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সূত্র : তাস, নিউইয়র্ক টাইমস, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
Abdus Salam ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০১ এএম says : 0
যুদ্ধে শুধুমাত্র জনসাধারণের জানমালের ক্ষতি!!! আমরা কোন যুদ্ধেরই পক্ষপাতি না!!
Total Reply(0)
Matal Motaleb ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০১ এএম says : 1
পুতিন স্যারকে বলছি পুশ্চিমা সব কয়টারে ...
Total Reply(0)
Forhad Islam ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০০ এএম says : 0
ইরাক, সিরিয়া, ফিলিস্তিনের, মানুষ যখন বুক ফাটা,আর্তনাদ করেছিলো, তকন ইউরোপের মানুষ গুলি হেসে হেসে, তাসুল্য করেছিল,
Total Reply(0)
Nurjamal Sk ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০১ এএম says : 0
জেলেনস্কি এত বড়ো নির্বোধ জানতাম না, অস্ত্র দাও বললেই কি যুদ্ধে জেতা যায়। অবস্থা যখন সঙ্গীন, তখন আত্মসমর্পন করলেই ভালো হত। আর যুদ্ধে শুধু সেনা মরবে আর সাধারণ মানুষ মরবে না এ ধারণা ভুল। সেনারা পেটের দায়ে চাকরি করে ওদের নেতারা খেলায়। সেনার প্রানের দাম নেই? ওদের সামনে পাঠিয়ে অনেক পাব্লিক পিছন থেকে উস্কানি দেয়। তাই জিতলে জয় সবার, হারলেও সবার হোক। যুদ্ধ শুরু হলে ভি আই পি দের নিরাপত্তা উঠিয়ে দেওয়া দরকার তাহলে গরম ঘর থেকে ওরা মজা দেখতে পারবে না।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন